kalerkantho


চতুর্থ রিজেন্ট সায়েন্স ফেয়ার অনুষ্ঠিত

বিদ্যুৎ উৎপাদন করবে রাস্তায় চলমান গাড়ি!

অন্যান্য   

১৭ মার্চ, ২০১৬ ০৯:৫৩



বিদ্যুৎ উৎপাদন করবে রাস্তায় চলমান গাড়ি!

রাস্তায় চলমান গাড়িগুলো বিদ্যুৎ উৎপাদন করবে আর তা দিয়ে স্বয়ংক্রিয়ভাবে জ্বলতে থাকবে সড়কবাতিগুলো। আবার শুধুমাত্র লেজার লেন্স, স্মার্টফোন ব্যবহার করেই সেলুলার মাইক্রোস্কোপ বা অনুবীক্ষণ যন্ত্র তৈরি করা সম্ভব।

এ যন্ত্র দিয়ে উদ্ভিদের অতি ক্ষুদ্র কণা বা জীবাণু দেখা সম্ভব। এ ধরনের মজার সব আবিষ্কার নিয়ে গুলশানের রিজেন্ট কলেজে বুধবার অনুষ্ঠিত হয়েছে চতুর্থ রিজেন্ট সায়েন্স ফেয়ার।

শিক্ষার্থীদের মাঝে বিজ্ঞানকে জনপ্রিয় করার লক্ষে খুদে বিজ্ঞানীদের এসব অদ্ভুত আবিষ্কার নিয়ে জমজমাট এ মেলায় রাজধানীর প্রায় ২০টি স্কুলের শিক্ষার্থীরা তাদের তৈরি ৪০টির মতো প্রজেক্ট প্রদর্শন করে। মেলা শেষে স্কুল প্রাঙ্গণে চ্যাম্পিয়ন ও রানার আপ দলকে পুরস্কার ও ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল অ্যাসোসিয়েশনের (বেমসা) সাধারণ সম্পাদক জি এম নিজাম উদ্দিন। বিচারক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের সহাকারী অধ্যাপক ড. মো. তানভীর হানিফ। অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন স্কুলের ভাইস প্রিন্সিপ্যাল সানাউল হক খান (রাজ)।  

প্রধান অতিথি জি এম নিজাম উদ্দিন বলেন, "বিজ্ঞানের নিত্য নতুন আবিষ্কারই হলো আধুনিক পৃথিবীর উপহার। তবে খুদে প্রতিভাধরদের খুঁজে বের করতে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখে স্কুল পর্যায়ের বিজ্ঞান মেলাগুলো।

তিনি সারা দেশের স্কুল পর্যায়ে নিয়মিত বিজ্ঞান মেলা অনুষ্ঠিত হওয়ার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

ক্যালকুলেটর মাইক্রোস্কোপের জন্য 'এ' লেভেলে চ্যাম্পিয়ন হয় রিজেন্ট কলেজ ঢাকা। রেল গান ব্যবহার করে ম্যাস ড্রাইভার প্রজেক্টের জন্য রানার আপ হয় ইবেনজার ইন্টারন্যাশনাল স্কুল। তারা দেখায়, লেজার লেন্স, স্মার্টফোন ব্যবহার করে কীভাবে উদ্ভিদের ক্ষুদ্র সেল এবং জীবাণু ইত্যাদি দেখার অনুবীক্ষণ যন্ত্র তৈরি করা যায়।

'ও' লেভেলে স্ট্রিট লাইট প্রজেক্টের জন্য চ্যাম্পিয়ন পুরস্কার জিতে নেয় এএসএফএক্স গ্রিন হেরাল্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুল। তাদের তৈরি এ প্রজেক্টে দেখানো হয়েছে কীভাবে রাস্তার স্বয়ংক্রিয় বাতি ব্যবহার করে বিদ্যুৎ ব্যয় কমানো যায়। এ গ্রুপে ভূগর্ভস্থ মেট্রো স্টেশন তৈরি করে রানার আপ হয় সাউথ ব্রিজ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল। তাদের প্রজেক্ট ছিল, রাস্তায় চলমান গাড়িগুলো কীভাবে বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে পারে এবং তা দিয়ে কীভাবে সড়কবাতিগুলো স্বয়ংক্রিয়ভাবে জ্বলতে পারে।

 


মন্তব্য