kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৭ জানুয়ারি ২০১৭ । ৪ মাঘ ১৪২৩। ১৮ রবিউস সানি ১৪৩৮।


অজগর সাপ ধরার প্রতিযোগিতা 'পাইথন চ্যালেঞ্জ'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৪ মার্চ, ২০১৬ ১৩:৩১



অজগর সাপ ধরার প্রতিযোগিতা 'পাইথন চ্যালেঞ্জ'

নানা বিষয়ে প্রতিযোগিতার কথা শোনা গেলেও অনেকেই অজগর সাপ ধরার প্রতিযোগিতার বিষয়ে আগে শোনেননি। আশ্চর্যজনক এ অজগর সাপ ধরার প্রতিযোগিতাটি হয় যুক্তরাষ্ট্রে। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে বিজনেস ইনসাইডার।

'এটি এক হাজার ডলারের সাপ' কথাটি বলছিলেন ২২ বছর বয়সী ড্যানিয়েল মনিজ। তিনি ১৩ ফুট লম্বা ও ৮ দশমিক ৭ ইঞ্চি চওড়া অজগর সাপ ধরেছেন। বার্মিজ প্রজাতির এ নারী সাপটি তাকে একটি পুরস্কার এনে দেবে বলেই তিনি আশাবাদী।

যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা রাজ্যে দ্বিতীয় ‘পাইথন চ্যালেঞ্জ’ গত মাসে অনুষ্ঠিত হলো। সে প্রতিযোগিতায় অসংখ্য প্রতিযোগী অংশ নেন অজগর সাপ ধরে সেগুলোকে হত্যা করে। ফ্লোরিডায় অজগর সাপকে পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর হিসেবেই ধরা হয়। আর এ কারণে সেখানে সাপটি ধরার প্রতিযোগিতাকে নিষিদ্ধ করা হয়নি। এ প্রতিযোগিতার আয়োজক ফ্লোরিডা ফিশ অ্যান্ড ওয়াইল্ডলাইফ কনজারভেশন কমিশন (এফডব্লিসি)।

প্রতিযোগিতা শেষে মনিজ এক হাজার ডলার পুরস্কার পান দীর্ঘ এ সাপটি ধরে।

এ ছাড়া আরও সাড়ে তিন হাজার ডলার পুরস্কার পান তিনি। ১৩টি অজগর ধরে তিনি যেকোনো ব্যক্তির তুলনায় বেশি সাপ ধরার সম্মাননা পান।

এ প্রতিযোগিতার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের ২৯টি রাজ্য থেকে এক হাজারেরও বেশি প্রতিযোগী আসেন। তারা তাদের হাত, পিলোকেস ও ব্যাগ ব্যবহার করে সাপ ধরেন। এতে মোট ১০৬টি অজগর সাপ ধরা হয়। ২০১৩ সালে অনুরূপ প্রতিযোগিতায় ৬৮টি সাপ ধরা পড়েছিল।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় অজগরের সংখ্যা নিয়ন্ত্রণের জন্য এ প্রতিযোগিতা আয়োজন করা হয়। সেখানে অজগরের সংখ্যা বেশি হয়ে গেলে তা প্রকৃতিতে বিচরণ করা অন্যান্য প্রাণীর ক্ষতি করে বলে জানান সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

এ প্রতিযোগিতায় পুরস্কারপ্রাপ্ত মনিজ যুক্তরাষ্ট্রের নিউ জার্সি রাজ্যে জন্মগ্রহণ করেন এবং সেখানেই বড় হয়েছেন। প্রতিযোগিতায় আসার আগে তিনি কখনোই অজগর ধরেননি বলে জানান।

তিনি বলেন, 'আমি জানতাম এটি খুবই মজার হবে। তবে বিজয়ী হব এটা ভাবতেই পারিনি। '

অজগর সাপ ধরতে গিয়ে মনিজের কোনো ক্ষতি হয় কি না, সে জন্য উদ্বিগ্ন ছিলেন তার মা। আর তাই তার সঙ্গে যেতে হয় তার বাবাকেও। তার বাবাই জঙ্গলে মনিজকে বড় সাপটি দেখিয়ে দেন। এটি ধরেই মনিজ পুরস্কার লাভ করেন।


মন্তব্য