kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


কর্মক্ষেত্রে ৯টি বিষয়ে নারী-পুরুষের দৃষ্টিভঙ্গীর পার্থক্য

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৯ মার্চ, ২০১৬ ১১:৪৫



কর্মক্ষেত্রে ৯টি বিষয়ে নারী-পুরুষের দৃষ্টিভঙ্গীর পার্থক্য

আমেরিকায় কর্মক্ষেত্রে নারী-পুরুষের দৃষ্টিভঙ্গীর পার্থক্য বুঝতে একটি জরিপ পরিচালিত হয়। 'ব্রিজ' শিরোনামে আয়োজিত জরিপে ১ হাজার কর্মজীবী নারী-পুরুষের বিভিন্ন তথ্য নেওয়া হয়।

শ্রমবাজারে তাদের পারিশ্রমীক, লিঙ্গ বৈষম্য এবং যৌন নির্যাতন ইত্যাদি বিষয়ে নানা প্রশ্ন করা হয়। বিভিন্ন ক্ষেত্রে নারী-পুরুষের দৃষ্টিভঙ্গীর পার্থক্য রয়েছে। তবে তারা সবাই আশাবাদী। এ কারণে আগামী ৫ বছরের মধ্যে কর্মক্ষেত্র আরো সুন্দর ও উপভোগ্য হয়ে উঠবে। এর জন্যে অবশ্য অনেক কিছু করার রয়েছে। বিশেষজ্ঞরা জরিপে যা পেয়েছেন তা তুলে ধরা হলো।

১. জরিপকৃত পুরুষদের ৫৮ শতাংশ মনে করেন, সমান কাজের জন্যে নারী-পুরুষরা নিরপেক্ষভাবে পারিশ্রমীক পান। তবে নারীদের ৪২ শতাংশ সমমত পোষণ করেন। বাকিরা পারিশ্রমীকের ক্ষেত্রে বৈষম্য রয়েছে বলেই দাবি করেন।

২. পুরুষদের প্রায় এক-তৃতীয়াংশের (৩৪ শতাংশ) বিশ্বাস, লিঙ্গ বৈষম্যের কারণে নারীদের পদোন্নতি পেতে বা নেতৃত্বে যেতে বহু কাঠখড় পোড়াতে হয়।

৩. দুই-তৃতীয়াংশ নারী (৬৬ শতাংশ) দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করেন, শুধুমাত্র নারী হওয়ার কারণে পদোন্নতি বা নেতৃত্ব পেতে তাদের বাধা প্রদান করা হয়েছে।

৪. কর্মক্ষেত্রে অন্যান্য বিষয়ে লিঙ্গ বৈষম্যের বিষয়টি পুরুষদের চেয়ে নারীরাই বেশি লক্ষ্য করে থাকেন। ৩৮ শতাংশ পুরুষের মতে, সমকামী নারী-পুরুষ, উভকামী এবং রূপান্তরকামীরা অনেক বেশি অবহেলার শিকার। এ অভিযোগ সমর্থন করেন ৬২ শতাংশ নারী।

৫. যৌন হয়রানিকে ৩৮ শতাংশ পুরুষ বড় ধরনের সমস্যা বলে মত দিয়েছেন। সাধারণত নারীরাই এমন হয়রানির শিকার হয়ে থাকেন। জরিপে এর পক্ষে মত দিয়েছেন ৬২ শতাংশ নারী।

৬. কর্মক্ষেত্রে যৌন হয়রানি খুব সহজে বন্ধ হবে না বল প্রত্যেকেই মনে করেন। পুরুষদের ২০ শতাংশ এবং নারীদের ২৫ শতাংশের ধারণা, ২০২০ সালের মধ্যে সমস্যা অনেকটা কমে আসবে।

৭. জরিপকৃত নারীদের ২৯ শতাংশ যৌন হয়রানির শিকার হয়েছেন। আর পুরুষদের ১৩ শতাংশ এর শিকার। এসব ঘটনা নিয়মিত ঘটে চলেছে বলে মনে করেন তারা।

৮. একটি বিষয়ে নারী-পুরুষের মধ্যে বিভেদ প্রকট হয়ে উঠেছে। একজন কর্মীকে যে বাবা অথবা মায়ের দায়িত্ব পালন করতে হয় তা যেন ভাবতেই পারে না প্রতিষ্ঠান। ২৪ শতাংশ পুরুষ মনে করেন, এ বিষয়ে অফিসের কোনো মাথাব্যথা নেই। এর পক্ষে মত দিয়েছেন ৭৬ শতাংশ নারী।

৯. পুরুষদের ৩২ শতাংশ মনে করেন, তাদের একই কাজের জন্যে নারীদের তুলনায় বেশি পারিশ্রমীক দেওয়া হয়। এ বিষয়ে একমত প্রকাশ করেন ৬৮ শতাংশ নারী। সূত্র : বিজনেস ইনসাইডার     

 


মন্তব্য