র‍্যাম্পে প্রথম শ্মশ্রুধারী নারী,-332460 | বিবিধ | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১২ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৪ জিলহজ ১৪৩৭


র‍্যাম্পে প্রথম শ্মশ্রুধারী নারী, আলোচনার ঝড়

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৫ মার্চ, ২০১৬ ১৬:১০



র‍্যাম্পে প্রথম শ্মশ্রুধারী নারী, আলোচনার ঝড়

আমেরিকার বার্কশায়ারের নারী হারনাম কৌর। ২৫ বছর বয়সী এই নারী 'বেয়ারড ওমেন' নামে ব্যাপক পরিচিতি পেয়েছেন। মুখে দাড়িসহ এই নারী একজন সেলিব্রিটি ডিজাইনার হিসাবে র‌্যাম্পেও হেঁটেছেন।

গত সপ্তাহে আমেরিকান জুয়েলারি ডিজাইনার মারিয়ানা হারুতুনিয়ান-এর মডেল হয়ে এই শ্মশ্রুধারী নারী লন্ডনের রয়াল ফ্যাশন ডে-তে র‍্যাম্প করেছেন। ছোটকাল থেকেই তার স্বপ্ন ছিল মডেল হবেন।

নেভি ব্লু স্কেটার ড্রেসের সঙ্গে কালো কম্ব্যাট বুট এবং অলংকারে ঝকমকে ছিলেন তিনি। পোশাকের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ পাগড়ি ছিল মাথায়। ঠোঁটে ছিল লাল লিপস্টিক। অভিজাত ফ্যাশন জগতে প্রবেশ করা ছিল তার স্বপ্ন। আর এমনই এক শো-এ এসে তার সেই স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। এটা কোনো রীতিবিরুদ্ধ বিষয় নয় যে এমন এক নারী র‍্যাম্প করছেন যার মুখে দাড়ি-গোঁফ রয়েছে। বরং অনেকের কাছে তা অনুপ্রেরণাদায়ক হয়ে উঠেছে।

ইতিমধ্য ইন্টারনেটে ভাইরাল তিনি। দীর্ঘ দাড়ি এবং গোঁফ নিয়ে এই নারী মানুষের নজরে পড়েছেন। তাকে প্রথমবারের মতো দেখা যায় লন্ডনের শহুরে ফটোগ্রাফিতে। সেখানে কিছু ব্রাইডাল ফটোগ্রাফি করেন তিনি।

হারনাম জানান, প্রতি প্রজন্মের আমেরিকান টপ মডেলদের দেখতে দেখতে আমি বড় হয়েছি। টায়রা ব্যাঙ্কস আমার দারুণ অনুপ্রেরণা। তার মতো সুন্দর একটা মডেল হওয়ার স্বপ্ন দেখতাম। তিনি যেভাবে হাঁটতেন আর পোশাক পরতেন তেমনটাই চেষ্টা করতেন হারনাম।

আমি সুন্দর নই। ছোটকালে সবাই আমাকে বলতো আমি মোটা, কুৎসিত এবং বিরক্তিকর। আমার দেহ মোটেও ভালো নয় বলে মন্তব্য করতেন সবাই। যখন বলতাম আমি মডেল হবো, তখন সবাই হাসতো আর বাজে বকতো, বলেন হারনাম।

১১ বছর বয়সে হারনামের পলিসিসটিক ওভারি সিনড্রোম ধরা পড়ে। এটি এমন এক হরমোনের কারসাজি যার ফলে মুখে অতিরিক্ত লোম দেখা দেয়। সপ্তাহে দুই বার করে শেভ করতে হতো তাকে। এর জন্যে দারুণ বাজে সময় কেটেছে তার। কিন্তু একটা সময় থেকে নিজেকে ধিক্কার দেওয়া বন্ধ করলেন এবং আত্মবিস্বাসী হয়ে উঠলেন।

আত্মবিশ্বাসের অভাবে ন্যুব্জ এক টিনএজার থেকে নিজেকে ইতিবাচক করে তুলে ধরতে এবং মডেল হিসাবে প্রতিষ্ঠিত করতে বহু পথ হাঁটতে হয়েছে তার।

কৌর আরো বললেন, যদি নিজের মূল্যায়ন নিজে করতে না পারেন তবে পরাজিত হবেন। আপনার ভেতরের সুন্দর হৃদয়টাকে ধারণ করতে হবে। আপনি কত সু্ন্দর তা আবারো আয়নায় দেখুন।
সূত্র : হিন্দুস্তান টাইমস

 

মন্তব্য