kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বিভিন্ন রোগের চিকিৎসায় কার্যকর ৮ ভেষজ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২ মার্চ, ২০১৬ ১৭:০৬



বিভিন্ন রোগের চিকিৎসায় কার্যকর ৮ ভেষজ

প্রাচীনকাল থেকেই সুস্থ থাকার জন্য বহু ধরনের ভেষজ চিকিৎসা পদ্ধতি ব্যবহৃত হয়। এ ধরনের চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয় অসংখ্য গাছগাছড়া ও ফলমূল।

এক ধরনের ভেষজ উপাদানের নাম ‘অ্যাডাপটোজেন’। এটি দেহের চাপ কমায় এবং নানা উপকার করে এ লেখায় রয়েছে তেমন ধরনের কয়েকটি ভেষজ। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে হিন্দুস্তান টাইমস।
১. যষ্টিমধু
এটি পাকস্থলির প্রদাহ সারাতে পারে। এছাড়া আলসার ও পেট ফুলে যাওয়া এবং অন্যান্য হজমের সমস্যার জন্যও এটি কার্যকর। নারীদের মাসিক যন্ত্রণা উপশমেও এটি ব্যবহৃত হয়।
২. অশ্বগন্ধা
এটি ঘুমের সমস্যা, মানসিক উদ্বেগ ও অবসাদের চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয় বহুদিন আগে থেকেই। এটি পুরুষের উর্বরতা সমস্যা দূর করতে এবং শুক্রাণু বৃদ্ধি করতে সহায়ক।



৩. রোদিওলা রোজিয়া
রোদিওলা রোজিয়া বা গোল্ডেন রুট চা হিসেবে পান করা হয়। খেলোয়াড়রা এটি পান করেন শক্তি ও উদ্যমের জন্য। এটি স্মৃতিশক্তি বাড়াতেও কার্যকর।


৪. এশিয়ান মাশরুম
এ ধরনের মাশরুম দেহের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে কার্যকর। এছাড়া দেহের কোলস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণেও এটি কার্যকর।


৫. জিনসেং
জিনসেং অনেকেই যৌন দুর্বলতা দূর করার ওষুধ হিসেবে চেনেন। তবে লাল জিনসেং কিডনি রোগ, প্রোস্টেট সমস্যা, ব্লাডারের সমস্যা ও বির্যপাতে সমস্যার জন্য কার্যকর ওষুধ হিসেবে বিবেচিত হয়। এশিয়ান জিনসেং বিষণ্ণতা, ডায়াবেটিস, অনিদ্রা ও শ্বাসকষ্টের চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়।


৬. তুলসি
তুলসি অনেকেই ঠাণ্ডার সমস্যায় সেবন করেন। তবে এটি দেহের হজম সমস্যা ও দুর্বলতার জন্যও ব্যবহৃত হয়। এছাড়া দেহের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতেও এ ভেষজ তুলনাহীন।


৭. হলুদ
এতে রয়েছে বহু ধরনের ঔষধী গুণ। হলুদে রয়েছে কারকিউমিন, যা মানসিক চাপ কমায় এবং দেহকে বিষমুক্ত করে। এছাড়া এতে রয়েছে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল উপাদান, যা দেহের সংক্রমণ প্রতিরোধ করে। এছাড়া হলুদ ঠাণ্ডা সমস্যাতেও সেবন করা যায়।


৮. আমলকি
আমলকি ক্রনিক ঠাণ্ডা সমস্যার উপশমে কার্যকর। এটি অ্যালার্জি, কোষ্ঠবদ্ধতা, পাইলস ও পেটের সমস্যা নিরাময় করতে পারে। এছাড়া দেহের কোলস্টেরল মাত্রা নিয়ন্ত্রণেও আমলকি কার্যকর।


সতর্কতা
যে কোনো ওষুধেরই পাশ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে। অ্যাডাপটোজেন সব সময় যে উপকার করবে এমনটা নয়। তাই বেশি মাত্রায় কোনো উপাদানই গ্রহণ করা উচিত নয়। গর্ভবতী নারীদের এ ধরনের ওষুধ গ্রহণের আগে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত। এছাড়া আপনার যদি উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগ ও অন্য ক্রনিক রোগ থাকে তাহলে ভেষজ উপাদান গ্রহণের আগে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।


মন্তব্য