kalerkantho


চল্লিশোর্ধ্বদের ওজন কমাতে...

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৯ আগস্ট, ২০১৮ ০৯:২৫



চল্লিশোর্ধ্বদের ওজন কমাতে...

ছবি অনলাইন

কম খেতে হবে

যারা বেশি খেয়ে থাকে তাদের জন্য এই পরামর্শ। পাতে খাবারের পরিমাণ কমাতে থাকুন। অবশ্য একেক মানুষের ক্যালরির চাহিদা ভিন্ন থাকে। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, যে নারী চল্লিশের পর দুই হাজার ক্যালরি গ্রহণ করছে, তাকে অবশ্যই ৪০০-৫০০ ক্যালরি কমিয়ে আনতে হবে।

প্রতি সপ্তাহে ওজন কমান

ওজন হ্রাসের টার্গেট নিন। প্রতি মাসে ওজন কমানোর পরিকল্পনায় অলসতা আসতে পারে। তাই সপ্তাহের মধ্যে কিছুটা সফলতা মিললে উৎসাহ বাড়বে। ধীরে ধীরে ভালো অভ্যাসগুলো আয়ত্ত করবেন। ফল-সবজিতে মন দিন। সপ্তাহে যেন অন্তত এক পাউন্ড ওজন কমে সেদিকে খেয়াল রাখুন।

তিন বেলার খাবার

দিনের মূল খাবারগুলো এড়িয়ে যাবেন না। এতে দেহের বিপাকক্রিয়া বাধাগ্রস্ত হবে। কাজেই বাদ না দিয়ে পরিমাণে অল্প খান। বাদ দিলে রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা আকস্মিক বাড়তে পারে। তাই তিন বেলার খাবার কখনো বাদ দেবেন না।

জটিল কার্বোহাইড্রেট

আপনার খাবারের পাতে শস্যদানা, শিম, ফল ও মিষ্টি আলু জাতীয় খাবারের পরিমাণ বৃদ্ধি করতে হবে। এ ধরনের খাবার আমরা এমনিতেই খেয়ে থাকি। কিন্তু নিয়মিত খাওয়ার ওপর জোর দিন।

স্বাস্থ্যকর প্রোটিন

প্রোটিন দেহের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য অত্যাবশ্যক। যতবার খাবেন ততবারই ৭-১০ গ্রাম প্রোটিন যেন পেটে পড়ে সেদিকে খেয়াল রাখবেন। দেড় টেবিল চামচ অলিভ অয়েল, একটি অ্যাভোকাডোর চার ভাগের এক ভাগ কিংবা দুই টেবিল চামচ বাদাম থেকে সমপরিমাণ প্রোটিন মিলতে পারে।

জাংক ফুডকে ‘না’

ধীরে ধীরে অস্বাস্থ্যকর খাবারের লোভ ত্যাগ করতে হবে। ফাস্ট ফুড কিংবা জাংক ফুডকে ‘না’ বলুন। যারা এর ভক্ত তাদের জন্য আরো অনেক সুস্বাদু ও স্বাস্থ্যকর খাবার পড়ে রয়েছে। সেদিকে এগিয়ে যান। কিছু দিন খেলেই আর আজেবাজে খাবারের কথা মনে আসবে না।

ইন্টারনেট অবলম্বনে সাকিব সিকান্দার



মন্তব্য