kalerkantho


অফিস যখন বাড়িতে...

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৮ জুন, ২০১৮ ০৯:২৯



অফিস যখন বাড়িতে...

ছবি অনলাইন

সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ফ্রিল্যান্সারদের কাজের সুযোগ বেড়েছে। সাধারণত এ ধরনের পেশাজীবীরা বাড়িতে বসে কাজ করে। আবার অনেক ধরনের কাজ আছে, যা বাড়িতে বসেই সারতে পারে কর্মীরা। তা ছাড়া অনেক ব্যবসায়ী আছে, যারা বাড়িতে ছোট পরিসরে অফিস বানিয়ে নেয়। এমন সব পরিস্থিতিতে কাজ এগিয়ে নেওয়ার জন্য কিছু বিষয় খেয়াল রাখা উচিত। এ নিয়েই আজকের টিপস

ঘুমানোর বিছানায় কোনো কাজ নয়

ফোর্বসের এক গবেষণায় বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রে যারা গ্রাম বা প্রত্যন্ত অঞ্চলে বসবাস করে, তাদের ৯১ শতাংশই অফিসে গেলে কর্মোদ্যম ফিরে পায়। কিন্তু বাড়িতে উৎপাদনশীলতা ফিরে পাওয়া কঠিন বিষয়। কারণ বেশির ভাগ মানুষই বিছানায় শুয়ে শুয়ে কাজ করে।

‘স্মার্টলি’ কাজ করুন

নিউ ইয়র্ক টাইমস বাড়িতে কাজ করা পেশাজীবীদের জানিয়েছে ‘স্মার্ট গোল অ্যাপ্রোচে’র কথা। বাড়ির অফিসে বসে বা বাড়ির কোনো কোনায়—যেভাবেই করেন না কেন, সময় বেঁধে নেবেন। একটানা ২৫ মিনিট মনোযোগের সঙ্গে কাজ করবেন। পরবর্তী ৫ মিনিট বিরতি। আবার সামনের ২৫ মিনিট ব্যস্ত আপনি।

কাজের জায়গা আলাদা করে ফেলুন

‘হার্ভার্ড বিজনেস রিভিউস গাইড টু বিং মোর প্রডাক্টিভ’-এ বলা হয়েছে, বাড়িতে বসে অফিসের কাজকে যতক্ষণ পর্যন্ত যথেষ্ট গুরুত্ব দিচ্ছেন না, ততক্ষণ আপনি সফলভাবে কাজ শেষ করতে পারবেন না। আর পেশাদার কাজের জন্যে বাড়ির একটা অংশকে সদা প্রস্তুত রাখুন। সেখানে কোনোভাবেই বাড়ির কোনো কাজ করবেন না। এমনকি ঘরোয়া আড্ডাও হবে না।

সুন্দর একটা চেয়ার-টেবিল থাকবে

যদি আপনার কাজ দীর্ঘ সময়ের হয়, তবে বাড়ির অফিস অংশে একটা সুন্দর চেয়ার আর টেবিল থাকা জরুরি। তাহলে অফিসের আমেজ পাবেন। দেখবেন আপনি যে অফিসে নেই, তা বেমালুম ভুলে যাবেন।

পর্যাপ্ত আলো রাখুন

বাড়ি বলে যে কাজের ক্ষেত্রটাকে অন্ধকার করে রাখবেন, তা হবে না। অফিসে সাধারণত বাড়ির তুলনায় দ্বিগুণ পরিমাণ আলো থাকে। কর্মপরিবেশ এমনটাই হয়। কাজেই বাড়ির অফিস অংশে পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা করবেন।

অগোছালো ভাব কমাতে ব্যবস্থা

অফিসেও আবর্জনা জমে। ফেলে দেওয়া কাগজ রাখার জন্য বিন রাখতে হবে। যেখানে-সেখানে গোল করে মুড়িয়ে ফেলবেন না। আবার ফাইল গুছিয়ে রাখতে দেয়াল কেবিনেটের ব্যবস্থা থাকতে পারে। ফাইলগুলো অ্যাকশন, বেসিক ও ক্লাসিক ভাগে ভাগ করে নিতে পারেন।

বাড়তি আরামের ব্যবস্থা

বাড়ির ছোট্ট অফিসের কাছাকাছি এক সেট সোফা রাখতে পারেন। এটা হবে কাজসংশ্লিষ্ট কোনো আড্ডা বা আরামের স্থান। জটিল কাজ হলে একটু জিরিয়ে নেওয়ার দরকার হয়। আলোচনাও হয়তো জরুরি। এ জন্য কাজের টেবিল থেকে একটু দূরে আরামের ব্যবস্থা রাখতে পারেন।

-- ইন্টারনেট অবলম্বনে সাকিব সিকান্দার

 


মন্তব্য