kalerkantho


সব সময় সেলফি নয়

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩ জানুয়ারি, ২০১৮ ০৯:২২



সব সময় সেলফি নয়

ছবি অনলাইন

সেলফি নিয়ে অনেক গবেষণা আর তর্ক-বিতর্ক চলছে। কিভাবে ভালো সেলফি নিতে হয়, সে বিদ্যা নিয়েও লেখালেখি থেমে নেই।

অতিরিক্ত সেলফি তোলা মানসিক রোগ বলেও জানিয়েছেন গবেষকরা। তবুও অনেকেই যেকোনো সময় যেকোনো পরিবেশে সেলফি তোলায় মেতে ওঠে। কিন্তু এমন কিছু পরিবেশ ও পরিস্থিতি থাকে, যেখানে সেলফি তোলা সাধারণ জ্ঞানের অভাবকেই প্রকাশ করে। সেসব পরিস্থিতি নিয়েই আজকের টিপস—

বন্ধুদের সঙ্গে আলাপচারিতার সময়
আলাপচারিতাই উপভোগ করা উচিত। আলাপচারিতার মাঝে নিজে বা অন্য কোনো বন্ধু বা সবাইকে নিয়ে সেলফি তুলতে গিয়ে চমৎকার সময়ে ছেদ ঘটাবেন না। তবে কথা বলতে বলতে চট করে সবার একটা সেলফি তুলে ফেললে সেটা ভিন্ন বিষয়। কিন্তু স্মার্টফোনের পেছনে বেশি সময় দেবেন না।

খাওয়ার সময়
একা, পরিবার কিংবা বন্ধুদের সঙ্গে খাওয়ার আয়োজনে সেলফিতে সময় নষ্ট করতে নেই। সবাই মিলে খাবার উপভোগের বিষয়টি অনন্য অভিজ্ঞতা।

এগুলো স্মৃতি হয়ে থাকে। খাবার মুখে তোলা রেখে ওটার ছবি তোলা নির্বোধের পরিচায়ক। তা ছাড়া আপনি এ কাজটি পছন্দ করলে অন্যরাও যে উপভোগ করবে, এমন কোনো কথা নেই।

অফিসের ব্যস্ততায়
মাঝেমধ্যে সহকর্মীদের সঙ্গে একটা সেলফি নেওয়া দোষের নয়। কিন্তু কাজের ব্যস্ততার ফাঁকে সেলফি নেশা আপনার দায়িত্বজ্ঞানহীন মানসিকতার তথ্য দেয়। তা ছাড়া কাজের টেবিলে বসে সেলফি তোলার বিষয়টি সহকর্মী বা বস ভালো চোখে নাও দেখতে পারেন।

যখন গাড়ি চালাচ্ছেন
এটা যে কতটা ঝুঁকিপূর্ণ, তা স্বাভাবিক বুদ্ধিসম্পন্ন মানুষকে বলে বোঝানোর প্রয়োজন পড়ে না। যারা ড্রাইভিং সিটে বসে রয়েছেন তাঁদেরই বলা হচ্ছে। গাড়ি চালানো অবস্থায় সেলফি তোলার মতো ঝুঁকি আপনি নিতে পারেন না। এটা বড় ধরনের দুর্ঘটনার কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

যখন আপনি বিরক্ত
সেলফি আসলে এমন সব মুহূর্তে তুলতে হয়, যখন আপনি রোমাঞ্চকর সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন। যখন বিরক্ত, তখন সেলফি তুলবেন না। সুন্দর কিছু বন্দি করুন সেলফিতে।

অন্যকে নিয়ে কৌতুকের সময়
বিষয়টি স্পর্শকাতর হয়ে উঠতে পারে। অন্যদের নিয়ে কৌতুক করার সময় সেলফি না তোলাই ভালো। আপনি হয়তো স্বাভাবিক চিন্তাভাবনা থেকেই কাজটি করছেন, কিন্তু অন্যপক্ষ অপমানিতবোধ করতেই পারে। কাজেই আপনার সেলফি যেন অন্যের কষ্টের কারণ না হয়ে দাঁড়ায়।

--চিট শিট অবলম্বনে সাকিব সিকান্দার

 



মন্তব্য