kalerkantho


ইতিবাচক ‘মানসিকতা’ চাইলে...

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০৯:৩৪



ইতিবাচক ‘মানসিকতা’ চাইলে...

ছবি অনলাইন

অনেকেই আছেন যাঁরা সব কিছুতে নেতিবাচক কিছু না কিছু খুঁজে পান। আপনিও যদি সেই তালিকায় পড়েন, তবে আজকের এ পরামর্শগুলো আপনার জন্যই। দৃষ্টি বাড়ালে নেতিবাচক বিষয়ের মধ্যেই ইতিবাচকতা খুঁজে পাওয়া যায়। জীবনটাকে সহজে বিষিয়ে তোলে নেতিবাচক মনোভাব। স্বর্গীয় মুহূর্তগুলোকেও নরকযন্ত্রণায় ভরিয়ে তোলে। এখানে জেনে নিন বিজ্ঞানসম্মত কয়েকটি পরামর্শ—

১.         নাক দিয়ে গভীরভাবে শ্বাস নিয়ে মুখ দিয়ে ধীরে ধীরে ছাড়ুন। পর পর তিনবার করলেই অনেক কিছু হালকা হয়ে যাবে।

২.         সকালবেলা বাইরে একটু হেঁটে আসুন। দৌড়ানোর অভ্যাসও করতে পারেন। সূর্যের তাপ নিন। সুন্দর একটা দিনের শুরু দেখতে পাবেন।

৩.         সৃষ্টিশীলতা দিয়ে নতুন কিছু তৈরি করুন। এটা সব সময়ই উপভোগ্য। রান্না থেকে শুরু করে যেকোনো বিষয়ে সৃজনশীলতার চর্চা করা যায়।

৪.         প্রতিদিন রাতে যাবতীয় ‘না’-বোধক বিষয়গুলো লিখে ফেলুন। এই লেখার মধ্যেই আনন্দ মিলবে। আর লেখার পর অনেক অশান্তিকর বিষয়ই গৌণ মনে হবে।

৫.         পছন্দের গান শুনুন। নতুন সংগীত উপভোগের চেষ্টা করুন। মনের অনেক খেদ হাওয়ায় মিলিয়ে যাবে।

৬.         মন খারাপের সময়টাতে বন্ধু বা পরিবারের সঙ্গে সময় কাটান। অন্য ভালো বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করুন। মন ভালো হয়ে আসবে।

৭.         একটি ডায়েরিতে মস্তিষ্কের সব চিন্তা লিখে ফেলুন। মনের উত্থান-পতন ভাব কর্পূরের মতো উড়ে যাবে। হালকা বোধ করবেন।

৮.         প্রযুক্তির বিষক্রিয়া থেকে মুক্ত হোন। দিনের নির্দিষ্ট একটা সময় স্মার্টফোন, ল্যাপটপ, টেলিভিশন ও সোশ্যাল মিডিয়া থেকে দূরে থাকুন।

৯.         জীবনে প্রতিনিয়ত আপনি কোনো না কোনো বিষয়ে আশীর্বাদপুষ্ট। এগুলো লিখে ফেলুন।

১০.       কোনো কাজ দ্রুততার সঙ্গে করতে যাবেন না। জরুরি কাজগুলো করার সময় মনকে ধীরস্থির রাখুন।

১১.       চুপচাপ স্থানে একটা ম্যাট পেতে বসে পড়ুন। দুই চোখ বন্ধ করে নির্দিষ্ট কিছু চিন্তা করতে হবে। ধ্যানমগ্ন হয়ে পড়ুন।

১২.       ভ্রমণের চেয়ে সুখকর আর কিছু নেই। সুযোগ পেলে ঘুরতে চলে যান। অচেনা কোনো স্থানকে গন্তব্য করুন।

১৩.       মনটা যন্ত্রণায় কাতর হয়ে থাকলে নিভৃতে কেঁদে নিন। খুব ভালো বোধ করবেন।

১৪.       শান্তির ঘুম দিন। গভীর ঘুমে দেহ-মন-প্রাণ চাঙ্গা হয়ে ওঠে।

১৫.       কোনো অনুষ্ঠান বা আয়োজনে স্বেচ্ছাসেবকের কাজ করুন। এতে উদ্দীপনা বাড়ে।

১৬.       নেতিবাচক দিকগুলো কিভাবে সামাল দেবেন এর জন্য নিজস্ব কৌশলগুলো লিখে ফেলুন। এটা নিয়ে চিন্তা করুন মাঝে মাঝে।

১৭.       নিজের সঙ্গে মিথ্যা বলবেন না। এতে করে আপনার সহজাত ক্ষমতা হারাতে থাকবেন। নিজের মাঝে কোনো কমতি থাকলে তা মেনে নিন। তা পূরণের চেষ্টা করুন।

১৮.       নতুন একটি শখে সময় ব্যয় করুন। এতে আগ্রহ-উত্সাহ বাড়বে।

-- টাইমস অব ইন্ডিয়া অবলম্বনে সাকিব সিকান্দার

 



মন্তব্য