kalerkantho


পেশিতে ব্যথা মানেই সুষ্ঠু উপায়ে ব্যায়াম নয়

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৭ নভেম্বর, ২০১৭ ১৭:১৫



পেশিতে ব্যথা মানেই সুষ্ঠু উপায়ে ব্যায়াম নয়

যুগ যুগ ধরে স্বাস্থ্যসচেতন মানুষরা শরীরচর্চা কেন্দ্রে গেলে একটি কথাই শুনেছেন। তা হলো- ব্যায়াম করে যদি পেশিতে ব্যথা হয় তবেই কাজ হচ্ছে বলে ধরতে হবে।

হাত-পা বা দেহের অন্যান্য স্থানের পেশিতে ব্যথা মানেই ব্যায়ামে উপকার মিলছে বা পেশি গঠন হচ্ছে। এখন প্রশ্ন হচ্ছে, ব্যায়ামে কাজ হওয়ার প্রমাণ কী পেশির ব্যথার ওপর নির্ভর করে? বিশেষজ্ঞরা এককথায় উত্তর দিচ্ছেন- 'না'।

পেশিকে ব্যথা তখনই দেখা দেয় যখন আপনার কঠোর শ্রমে ওই পেশির ব্যবহার ঘটেছে। কিংবা অনেক সময় পর ওই পেশিকে হঠাৎ কাজ লাগাচ্ছেন। এ অবস্থাকে ডিওএমএস বা ডিলেইড-অনসেট মাসল সোরনেস নামে অভিহিত করা হয়। এ যন্ত্রণা অসহ্যকর হতে পারে। তবে মনে রাখবেন, এই ব্যথা ভালো বা মন্দ উভয় কারণেই হতে পারে।  

ধরুন আপনি ৫০টা বুকডন দিলেন। কিংবা অনেকটা পথ দৌড়ে আসলেন।

সেক্ষেত্রে পেশিতে অতি ক্ষুদ্র আকারে চিড় ধরে। এতে ব্যথার সৃষ্টি হয়। একটা পর্যায়ে তা অহস্যকর হতে পারে। আবার এ ব্যথার কারণে প্রথম দিন পেশির ওই অংশে রক্ত চলাচল বাধাগ্রস্ত হতে পারে। ফলে এই ক্ষত সারাতে হরমোন এন্ডোরফিন্স যে প্রোটিন বয়ে আনে তা যথাযথ পরিমাণে আসতে পারে না। ফলে যন্ত্রনা অনেকটা সময় থাকতে পারে। দ্বিতীয় দিন যন্ত্রণার কারণে পেশিতে জমা তরল তাকে আরো অবসাদ করে দেয়। এ সময় যদি আরো ব্যায়াম করা হয় তো কষ্ট বেড়ে যেতে পারে। এভাবে ব্যায়াম চালিয়ে যেতে থাকার অর্থ ওই পেশিতে যন্ত্রণা বাড়ানোর কাজ করা।  

আসলে পেশিতে এ ধরনের ব্যথা দুশ্চিন্তার কারণ হবে যদি তা ২৪-৪৮ ঘণ্টার পরও থেকে যায়। এর অর্থ সেখানে আরো বড় ধরনের সমস্যা হয়েছে। হতে পারে র‍্যাবডোমায়োলাইসিসের মতো কোনো সমস্যা হয়েছে। এ সমস্যায় রক্তপ্রবাহে অতিরিক্ত প্রোটিন ক্ষরিত হয়।  

আসলে ব্যায়ামের সময় পেশিতে ব্যথার অর্থ এই নয় যে আপনি ঠিকঠাকমতো ব্যায়ঙাম করছেন। কিংবা ব্যায়াম আপনার দেহে বেশ কাজ করছে। এটা পেশির ভেতরে ক্ষুদ্র আকারে আঘাতের কারণে হয়। ব্যায়ামের কারণে পেশির ভেতরে এমনটা ঘটে। যদি ব্যায়ামের আগে ও পরে পর্যাপ্ত পানি খান হবে এই ব্যথা খুব দ্রুত ভালো হয়ে যাবে। কিন্তু যদি প্রতিদিনই করতে থাকে, তাহলে বিশেষজ্ঞের কাছে যেতে হবে। নইলে বড় ধরনের বিপদে পড়তে পারেন।  
সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া 


মন্তব্য