kalerkantho


মশা তাড়ানোর হাতিয়ার

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ১৫:১৪



মশা তাড়ানোর হাতিয়ার

কর্পূর

বাড়িতে কর্পূর রেখে মশা তাড়ানো যেতে পারে। এ জন্য আগেই দরজা-জানালা বন্ধ করে দিতে হবে।

এরপর ছোট পাত্রে কিছু কর্পূর রেখে তাতে আগুন ধরিয়ে দিন। এর গন্ধ যেন ঘরের ভেতরে থাকে, সেটা নিশ্চিত করতে প্রয়োজন ছাড়া ঘরের দরজা খোলা যাবে না।

নিমের তেল

নিমের তেল বহু পোকামাকড় দূর করে। একইভাবে মশা তাড়াতেও এটি কার্যকর। এটি কর্পূরের সঙ্গে মিশিয়ে ঘরের এক কোনায় রেখে দেওয়া যেতে পারে। এর গন্ধেই মশা পালানোর কথা। একইভাবে শুধু নিমপাতাও ব্যবহার করা যায়।

তরল রিপেলার

মশা তাড়ানোর জন্য কয়েল বা এ ধরনের পদার্থ ব্যবহার ক্ষতিকর। তবে করতেই হলে অপেক্ষাকৃত নিরাপদ তরল রিপেলার ব্যবহার করা যেতে পারে।

এগুলোতে বৈদ্যুতিক সংযোগ দিতে হয়, যা ধীরে ধীরে মশা তাড়ানো রাসায়নিক নিঃসরণ করে।

 

পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা

বাড়ির আশপাশে ঝোপ-জঙ্গল, স্যাঁতসেঁতে পরিবেশ ও নর্দমা থাকলে মশার উত্পাত বেশি হবে। এ কারণে বাড়ির ভেতর ও বাইরের নোংরা আবর্জনা পরিষ্কার করুন।

বদ্ধ পানি নয়

বদ্ধ পানি মশার প্রজননক্ষেত্র। এ ক্ষেত্রে অব্যবহূত চৌবাচ্চা, বদ্ধ ড্রেন, নর্দমা, পানির ট্যাংক কিংবা পরিত্যক্ত টায়ারে পানি জমে থাকলে তা পরিষ্কার করতে হবে।

জানালায় নেট

বাড়ির বাইরে থেকে মশা যেন ঢুকতে না পারে, সে জন্য জানালায় নেট লাগানো যেতে পারে। একই সঙ্গে দরজার নিচের ও অন্যান্য ফাঁকা বন্ধ করতে হবে, যেন মশা ভেতরে ঢোকার পথ না পায়।

উজ্জ্বল হলুদ ও সেনালি আলো

উজ্জ্বল হলুদ বা সোনালি আলোয় মশা ভালো দেখতে পায় না। মশা তাড়ানো বাতিও পাওয়া যায় বাজারে। মশার উপদ্রব বাড়লে এ রঙের বাতি জ্বালাতে পারেন।

টাইমস অব ইন্ডিয়া অবলম্বনে ওমর শরীফ পল্লব

 

মন্তব্য