kalerkantho


রক্ত পরীক্ষার যে বিষয়গুলো হয়তো জানেন না

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ১৪:৫১



রক্ত পরীক্ষার যে বিষয়গুলো হয়তো জানেন না

বিভিন্ন রোগ নির্ণয়ে বা স্বাস্থ্যের খোঁজ-খবর করতে অনেক সময়ই রক্ত পরীক্ষা করতে হয়। অনেক ধরনের রক্ত পরীক্ষা আছে।

লিভার ফাংশন টেস্ট, আয়রন টেস্ট, থাইরয়েড টেস্ট, সেরোলজিসহ আরেও অনেক কাজের পরীক্ষা। রোগীরা বা সাধারণ মানুষ রক্ত পরীক্ষার গুটিকয়েক অংশ সম্পর্কে জেনে থাকেন চিকিৎসকের কাছ থেকে। ব্লাড কাউন্ট, সিবিসি কিংবা বেসিক মেটাবলিক প্যানেল শব্দগুলো বেশ পরিচিত। এগুলো সংক্রামক রোগ, হৃদরোগ বা কিডনির সমস্যা নির্ণয়ে করা হয়। আসলে রক্ত পরীক্ষার কিছু নির্দিষ্ট বিষয়ই সবাই জানতে পারেন। কিন্তু আরো কিছু বিষয় আছে যা চিকিৎসকরা আপনাকে বলেন না। এখানে বিশেষজ্ঞরা এমনই না জানা তথ্য সম্পর্কে ধারণা দিচ্ছেন।  

'নরমাল' নারী-পুরুষভেদে এক অর্থ প্রকাশ করে না 
জীববিজ্ঞান 'নরমাল' বা স্বাভাবিক ফলাফল নারী ও পুরুষের ক্ষেত্রে একই অর্থ প্রকাশ করে বলে মনে করে না। এটা অবশ্য টেস্টের ফলাফলেই চোখ দিলে পেয়ে যাবেন।

ওখানে অনেক সময়ই লেখা থাকে। যেমন- হিমোগ্লোবিনের পরিমাণের পরীক্ষায় পুরুষের ক্ষেত্রে নরমাল হলো ১৩.৮-১৭.২ গ্রাম/ডিএল। কিন্তু নারীর ক্ষেত্রে নরমাল হবে ১২.১-১৫.১ গ্রাম/ডিএল।  

সব বয়সের জন্যেও 'নরমাল' ফলাফল এক নয় 
বেশ কয়েকটি পরীক্ষা রয়েছে যেখানে 'নরমাল' সীমা বয়সের সঙ্গে বদলে যায়। হিমোগ্লোবিনের ক্ষেত্রে তাই নয়। রক্তচাপের স্বাভাবিক মাত্রাও বয়েসের সঙ্গে বদলে যায়। আবার এলডিএল কোলেস্টেরলের স্বাভাবিক মাত্রা বয়সের সঙ্গে বদলায় না। সব বয়সীদের জন্যেই এর মাত্রা ১০০ মিলিগ্রাম/ডিএল এর মধ্যে থাকা উচিত।  

ফলাফলে 'পজিটিভ' হতে পারে নেতিবাচক খবর 
এইচআইভি, হেপাটাইটিস সি কিংবা সিকল সেল অ্যানেমিয়া টেস্টের ক্ষেত্রে ফলাফলে 'পজিটিভ' আসাটা কিন্তু খারাপ খবর দেয়। এর অর্থ আপনি ওই রোগে আক্রান্ত। কাজেই এসব রোগের পরীক্ষায় 'নেগেটিভ' ফলাফল পেলে আপনি নিশ্চিত থাকতে পারেন।  

ভুল পরীক্ষা অস্বাভাবিক বিষয় নয় 
এমন অনেক রোগের রক্ত পরীক্ষা আছে যার সঠিক ফলাফল নির্ভর করে বিশেষ কিছু শর্ত ও বিশেষ দৈহিক অবস্থার ওপর। যেমন- সংক্রমিত না হলেও কোনো মানুষের এইচআইভি পরীক্ষার ফলাফল 'পজিটিভ' হতে পারে। এর কারণ হলো, এইচআইভি পরীক্ষায় রক্তের অ্যান্টিবডি পরিমাপ করা হয়। যদি ওই মানুষটি রিউমাটয়েড আরথ্রাইটিসে আক্রান্ত হয়ে থাকেন, সেক্ষেত্রে ভুল ফলাফল আসাটা স্বাভাবিক বিষয়। এমন কিছু বিশেষ সমস্যার উপস্থিতি এইচআইভি এর মতো পরীক্ষায় ভুল ফল দিয়ে থাকে। বিষয়টি মাথায় রেখে চিকিৎসকের সঙ্গে আলাপ করুন।  

কোনো ফল মেলা মানেই রোগ আছে তা নয় 
কোনো পরীক্ষায় যদি বিরূপ ফল আসে, তবে তা সব সময় রোগের উপস্থিতি নির্দেশ করে না। অনেক কারণে এটা হতে পারে। বিশেষ সমস্যায় ওষুধপত্র খেতে থাকলে, অ্যালকোহল পান করলে, পরীক্ষার আগে খাওয়া যাবে না নির্দেশনা থাকা সত্বেও তা খেলে উল্টোপাল্টা ফলাফল আসতেই পারে। সে ক্ষেত্রে তার রোগ নির্দেশ করে না। এ বিষয়ে পরীক্ষার আগে বিশেষজ্ঞের সঙ্গে আলাপ করে নিতে হবে।  

ল্যাবরেটরি ভেদে ফলাফল ভিন্ন হতে পারে 
একই পরীক্ষা ভিন্ন ভিন্ন ডায়াগনস্টিক সেন্টারে করা হলে একেক ধরনের ফলাফল আসতেই পারে। কারণ, যে নমুনা সংগ্রহ করা হয় তা পরীক্ষার ক্ষেত্রে একেক পরীক্ষাগার একেক সীমারেখা নির্ধারণ করে নিতে পারে। তবুও সন্দেহ থাকলে ডায়াগনস্টিক সেন্টার বদলাতে পারেন।  
সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া 


মন্তব্য