kalerkantho


দুঃস্বপ্নে খাবারের হাত!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৯ মার্চ, ২০১৭ ১১:২০



দুঃস্বপ্নে খাবারের হাত!

স্বপ্ন এমন এক ঘটনা, যার নিরেট ব্যাখ্যা মেলে না। বিজ্ঞান বলছে, দুঃস্বপ্নের সঙ্গে বিশেষ কয়েকটি খাবারের সম্পর্ক আছে। অর্থাৎ খাবারের প্রভাবে যেমন গভীর ঘুম আসতে পারে, তেমনই তা আমাদের স্বপ্নকেও প্রভাবিত করতে সক্ষম। সাইকোলজি টুডের মতে, এমন কিছু খাবার আছে, যা ঘুমানোর আগে খেলে আপনি দুঃস্বপ্ন দেখতে পারেন। তেমনই পাঁচটি খাবার নিয়ে আজকের আয়োজন—

পনির ও দুগ্ধজাত খাবার
এগুলো নিঃসন্দেহে পুষ্টিকর। কিন্তু ব্রিটিশ চিজ বোর্ডের এক গবেষণায় বলা হয়, যারা ঘুমের আগে পনির বা অন্যান্য দুগ্ধজাত খাবার খেয়ে বিছানায় যায় তারা বিদঘুটে সব স্বপ্ন দেখে। ‘সাইটেবল বাই নেচার এডুকেশন’ জানায়, যারা পনির বা দুধ থেকে উত্পন্ন খাবার খেয়ে ঘুমায় তারা স্বপ্ন অনেক স্পষ্টভাবে মনে রাখতে পারে। অবশ্য পনিরের ধরনের ওপর স্বপ্নের অবস্থা নির্ভর করে বলে জানানো হয় গবেষণায়। যারা স্টিলটন পনির খেয়েছে, তাদের স্বপ্ন ভয়ংকর হয়েছে।

মসলাদার খাবার
কখনো খেয়াল করেছেন যে আপনি যতটা মসলাপূর্ণ খাবার খান তত বাজে স্বপ্ন দেখেন? এনবিসি নিউজের ‘দ্য বডি অড’ জানায়, মসলা আপনার মস্তিষ্কে কারুকাজ ঘটিয়ে স্বপ্নের ওপর ব্যাপক প্রভাব ফেলতে পারে। যুক্তরাষ্ট্রের ক্লিভল্যান্ড ক্লিনিকের স্লিপ ডিস-অর্ডারস সেন্টারের বিশেষজ্ঞ ড. চার্লস বে বলেন, ঘুমের আগে মসলাদার খাবার খেলে তা হজমে বাড়তি শ্রম দিতে হয় দেহের।

এটা ঘুমের স্বাভাবিক প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করে। এ ছাড়া কিছু মানুষের দেহ মসলার রাসায়নিক উপাদানের উপস্থিতিতে স্পর্শকাতর হয়ে ওঠে। এ কারণেও স্বপ্ন হতে পারে দুঃস্বপ্ন।

ক্যাফেইনপূর্ণ চা
রাতে অনেকে চা খেতে পছন্দ করে। বিশেষ করে ঘুমের আগেও চা খায় অনেকে। যদি তা হয় ক্যাফেইনপূর্ণ, তবে তাত্ক্ষণিকভাবে মস্তিষ্ক উত্তেজিত হয়ে ওঠে। ফলে ঘুমানোর সময় এলোমেলো স্বপ্ন পেরেশানিদায়ক হয়ে উঠবে। তা ছাড়া ক্যাফেইন পান করে ঘুমানোও কঠিন বিষয়। ঘুম এলেও দুঃস্বপ্নের হাত থেকে বাঁচবে না।

ভ্যালেরিয়ানের শিকড়
এটি এক ধরনের গুল্মজাতীয় ফুল। বিশেষ করে নারীরা চায়ের সঙ্গে মিশিয়ে ভ্যালেরিয়ানের শিকড় ফুড সাপ্লিমেন্ট হিসেবে গ্রহণ করে। অনেক সময় ঘুমজনিত সমস্যা দূর করতে এ গাছের মূল খেয়ে থাকে। যুক্তরাষ্ট্রের মায়ো ক্লিনিক জানায়, এতে আরো কিছু উপাদান রয়েছে। কিন্তু তার সম্পর্কে কোনো ধারণা এখনো মেলেনি। এসব উপাদান দুঃস্বপ্ন দেখায়।

চেরি
এতে রয়েছে মেলাটনিন। এটা এমন এক হরমোন, যা দেহঘড়ির দেখভাল করে। আপনার ঘুম ও জাগরণের সময় ঠিক করে এই হরমোন। মেলাটনিন হরমোনের পরিমাণ বেশি থাকলে ঘুম অনেক গভীর হয় বলে ইউনিভার্সিটি অব মেরিল্যান্ড মেডিক্যাল সেন্টারের গবেষণায় উল্লেখ করা হয়েছে। যদি এ হরমোনে স্পর্শকাতর হয়ে থাকেন আপনি, তবে স্বপ্নের বারোটা বাজবে।

--চিট শিট অবলম্বনে সাকিব সিকান্দার


মন্তব্য