kalerkantho


ঘরে বসেই যেভাবে বানাবেন রসে টইটম্বুর রসমালাই

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৬ মার্চ, ২০১৭ ১৩:৩৭



ঘরে বসেই যেভাবে বানাবেন রসে টইটম্বুর রসমালাই

বাংলার সেরা মিষ্টিগুলির একটি হল রসমালাই। কথাতেই যেন লুকিয়ে রয়েছে সবটুকু। রস এবং মালাই, এই দুটি শব্দের মধ্যে যেন স্বাদের জোয়ার বইছে। আর আমরা, মানে বাঙালি ভোজন রসিকেরা সেই কোন যুগ থেকে তারিয়ে তারিয়ে উপভোগ করছি এই মিষ্টিটি। দুধের সাগরে ভাসমান রসমালাইয়ের জন্ম নিয়ে যদিও বিতর্ক রয়েছে। কেউ বলেন পশ্চিমবঙ্গের কলকাতার এক নামি মিষ্টি নির্মাতার হাতে জন্ম হয়েছে এই মিষ্টির। যদিও আরেক দলের মত একেবারেই আলাদা। বাংলাদেশের কুমিল্লা জেলাও রসমালাইয়ের জন্য বিখ্যাত।

বিতর্ক থাকুক নিজের জায়গায়, আমাদের কাজ তো স্বাদ নিয়ে। কি তাই তো! তাহলে অপেক্ষা কিসের চলুন শিখে নেওয়া যাক রস মালাই বানানো। একবার আপনার হাতে বানানো রসমলাইয়ের স্বাদ পেলে আপনার ভালোবাসার লোকরা যে আর কোনোদিন দোকান থেকে এই মিষ্টিটি কিনে খাবেন না, সে কথা হলফ করেই বলা যায়।



পরিবেশন করবেন- ৫-৬ পিস

উপকরণ গোছাতে সময় লাগবে- মাত্র ৫ মিনিট

বানাতে সময় লাগবে- ৪৫ মিনিট

উপকরণ

১. রসগোল্লা- ১২-১৫ টা। ২. গরুর দুধ- ১ লিটার। ৩. চিনি- ৪-৫ চামচ ৪. বাদাম- ১০-১২ চামচ ৫. পিস্তা- ১০-১২ চামচ ৬. জল- পরিমাণ মতো ৭. গোলাপ জল- ১-২ চামচ ৮. কেসর- অল্প পরিমাণ

বানানোর পদ্ধতি

১. একটা বাটিতে পরিমাণ মতো পানি নিয়ে তাতে বাদাম আর পিস্তাটা মিলিয়ে পানিটা ফোটান। কম করে ৩০-৪০ মিনিট পানিটা ফোটাবেন।

২. ৩০ মিনিট বাদে বাদাম এবং পিস্তাটা পানি থেকে তুলে খোসাটা ছাড়িয়ে নিন। তারপর ছোট ছোট টুকরো করে নিন সেগুলি।

৩. এবার কড়াইয়ে এক লিটার দুধ ঢেলে নিন।

৪. আল্প আঁচে দুধটা ফুটিয়ে নিন।

৫. দুধটা ফুটে গেছে কিনা লক্ষ করুন।

৬. এবার কড়াইয়ের দুধে পরিমাণ মতো কেসর মিশিয়ে দুধটা ভাল করে নাড়াতে থাকুন।

৭. দুধটা ফুটে গেল আঁচ কমিয়ে দিন এবং ক্রমাগত নাড়াতে থাকুন, যতক্ষণ না এক কড়াই দুধ কমে আধা কড়াই হয়ে যাচ্ছে।

৮. দুধের উপরে জমতে থাকা সরটা সংগ্রহ করতে থাকুন।

৯. এবার দুধে পরিমাণ মতো চিনি মিশিয়ে পুনরায় দুধটা নাড়ান। খেয়াল করুন চিনিটা ভাল করে দুধে গলে গেছে কিনা।

১০. বাদাম এবং পিস্তাটা দুধে মেশান।

১১. উপকরণগুলি মেশানোর পর আবার দুধটা নাড়াতে থাকুন।

১২. এবার রসোগোল্লাগুলি চেপে নিয়ে রসটা বার করে দিন।

১৩. সবকটি রসোগোল্লার রস বার করা হয়ে গেলে একে একে রসোগোল্লাগুলি দুধে মেশান।

১৪. এবার আঁচটা বন্ধ করে দিয়ে দুধে ১ চামচ গোলাপ জল মেশান।

১৫. ভাল করে দুধ এবং রসোগোল্লাটা নাড়াতে থাকুন। এবার কড়াইটা চাপা দিয় দিন এবং দুধটা ঘরের তাপমাত্রায় ঠাণ্ডা হতে দিন।

১৬. ঠাণ্ডা হয়ে গেলে রসমলাইগুলো পরিবেশন করুন।


মন্তব্য