kalerkantho


সুস্বাস্থ্যে তিল তেলের নানাবিধ ব্যবহার

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



সুস্বাস্থ্যে তিল তেলের নানাবিধ ব্যবহার

তিল তেলের একদিকে যেমন রয়েছে ওষধি গুণ, তেমনই পুষ্টি উপাদানেও ভরপুর। সুস্বাস্থ্যে ফ্ল্যাভোনয়েড, ফেনোলিক অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট, ওমেগা ৬, ফ্যাটি অ্যাসিড, ডায়েটারি ফাইবার ও ভিটামিনে সমৃদ্ধ তিল তেলের গুণাগুণগুলি চলুন জেনে নেয়া যাক।

১) রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণঃ উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে তিলের তেল। নিয়ন্ত্রণে রাখে সিস্টোলিক ও ডায়াস্টোলিক। সেইসঙ্গে বডি মাস ইনডেক্স কমায়।

২) কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণঃ তিলের তেলে যে অ্যান্টি ইনফ্ল্যামেটরি উপাদান থাকে তা রক্ত জমাট বেঁধে যাওয়া কমায়। হৃদস্পন্দন নিয়মিত রাখতে সাহায্য করে। ধমনীর মধ্যে দিয়ে রক্ত সঞ্চালন স্বাভাবিক রাখে। রক্তে কোলেস্টেরলের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করে। তিল তেলে ৩৫-৫০ শতাংশ লিনোলেয়িক অ্যাসিড থাকে, যা রক্তে কোলেস্টেরলের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রেখে হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়।

৩) ক্যান্সার প্রতিরোধঃ প্রটেস্ট, অন্ত্রাশয়, ফুসফুস, কোলন ও স্তন ক্যানসার প্রতিরোধে সাহায্য করে।

৪) যন্ত্রণায় উপশমঃ তিল তেলের অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট, অ্যান্টিপাইরেটিক ও অ্যানালজেসিক উপাদান যন্ত্রণার উপশম ঘটাতে সাহায্য করে।

৫) সর্দি কাশি সারাতেঃ তিল তেলের অ্যান্টি ভাইরাল গুণাগুণ আছে। যা ভাইরাস আক্রমণ থেকে শরীরকে রক্ষা করে। সর্দি কাশি ও সাইনাসের চিকিৎসায় দারুণ উপকার দেয়। বন্ধ নাকে তিল তেল লাগালে আরাম পাওয়া যায়।


মন্তব্য