kalerkantho


ক্যানসারের কিছু পথ্য

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৪:২৩



ক্যানসারের কিছু পথ্য

ক্যানসারে আক্রান্ত হলে নানা ধরনের আধুনিক চিকিৎসাপদ্ধতির আশ্রয় নেওয়ার কোনো বিকল্প নেই। তবে পাশাপাশি কিছু খাবার রোগীর যন্ত্রণা উপশম করতে সহায়তা করে।

এ লেখায় তুলে ধরা হলো তেমন কিছু পথ্যের কথা। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে টাইমস অব ইন্ডিয়া।

১. হলুদ
হলুদ ক্যানসার রোগীর খাবারের পথ্য হিসেবে ব্যবহৃত হয়। হলুদের একটি উপাদানের নাম কারকিউমিন। এটি ক্যানসার প্রতিরোধী উপাদান হিসেবে বিখ্যাত। কারকিউমিন ক্যানসারের বিস্তার রোধ করতেও সহায়তা করে। আর এর সংক্রমণ প্রতিরোধী ভূমিকার কথাও অনেকের জানা রয়েছে। ক্যানসারে আক্রান্ত হলে খাবারে হলুদের মাত্রা বাড়িয়ে দেওয়া যায়। এতে ক্যানসারের কোষগুলোর বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হতে পারে।

২. পেঁপের খোসা
কাঁচা পেঁপের খোসা থেকে প্রাপ্ত নির্যাস ক্যানসার প্রতিরোধে ভূমিকা রাখে। গবেষণায় দেখা গেছে, এটি টিউমারের কোষগুলোকে আক্রণ করে এবং দেহের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। এটি রেডিয়েশনের প্রভাবও লাঘব করে। বাজারে পাপাইন নামে এ সাপ্লিমেন্ট পাওয়া যায়। এ ছাড়া আপনি নিজের মতো করেই এটি বানিয়ে নিতে পারবেন।
 

৩. আদা
আদার ক্যানসার প্রতিরোধী ভূমিকা বহুকাল আগে থেকেই মানুষ জানে। আর এ কারণে বিভিন্ন প্রাচীন চিকিৎসাপদ্ধতিতে আদার ভূমিকা রয়েছে। আর ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার পরও এটি রোগীদের যন্ত্রণা উপশম ও সংক্রমণ প্রতিরোধে সহায়তা করে।
 

৪. পানি
কোনো ভেষজ উপাদানই এত গুরুত্বপূর্ণ নয়। ক্যানসারে কিংবা কেমোথেরাপিতে আপনার দেহের জলীয় অংশ কমে যায়। আর এ কারণে বেশি করে পানি পান করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে। মানবদেহে পানির পরিমাণ সঠিক মাত্রায় বজায় রাখা অত্যন্ত জরুরি বিষয়। ক্যানসারে আক্রান্ত হলে তাই সর্বদা পানির চাহিদার বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে।


মন্তব্য