kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


'তিন সপ্তাহের সম্পর্কে ছেলেটি হঠাৎ করেই হাওয়া, কি করবো?'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৪ অক্টোবর, ২০১৬ ১৬:৪৭



'তিন সপ্তাহের সম্পর্কে ছেলেটি হঠাৎ করেই হাওয়া, কি করবো?'

সম্পর্কে নানা জটিলতা নিয়ে যখন মানুষ দিশেহারা, তখন বিশেষজ্ঞের পরামর্শ তাদের জীবনে স্বস্তি আনতে পারে। এখানে এমনই এক সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করেছেন সোশাল সাইকোলজিস্ট এবং সেক্স রিসার্চার পেত্রা বয়ন্টন।

নাম প্রকাশে এক তরুণী লিখেছেন, কয়েক সপ্তাহ ধরে এক ছেলের সঙ্গে সম্পর্ক আমার। দেখা হওয়ার পর পর সে আমাকে সব সময় ফোন দিতো। সপ্তাহে কয়েকবার দেখা করতাম আমরা। দেখা না হলে ফোন আর টেক্সটিং চলতো। গত সপ্তাহ থেকে সে আমার কোনো কল ধরছে না। অবশেষে মেসেজ করে জানায়, কাজে অনেক ব্যস্ত ছিল। তার পর থেকে এখন পর্যন্ত দেখা করার কথা বলছে না। আমার বন্ধুরা বলছে, তার সঙ্গে আর সম্পর্ক না রাখতে। ছেলেটি আমার সঙ্গে এমনিতেই সময় কাটিয়ে হাওয়া হয়ে গেছে। এখন আমার কি করা উচিত?

পরামর্শ : বয়ন্টন বলছেন, আমারও মনে হয় বন্ধুরা ঠিক কথাই বলেছেন। নতুন সম্পর্কে কেউ যখন হঠাৎ করেই সব যোগাযোগ বন্ধ করে দেন তখন এ অবস্থাকে বলে 'ঘোস্টিং'। তারা ভূতের মতো হাওয়ার হয়ে যান।

এ ধরনের অবস্থায় পড়া সব সময়ই কঠিন বিষয়। তবে পরিস্থিতির ভিন্নতায় এ অবস্থা অনেক ধরনের হতে পারে। এ ঘটনা আপনাকে ব্যাপক পেরেশানিতে ফেলতে পারে। কারণ আপনি এখনো জানেন না, আপনার প্রতি ছেলেটার আগ্রহ আদৌ আছে কি নেই? আবার তার আগ্রহ বদলে গেলেও আপনি জানেন না, কেন এমনটা হলো? যেহেতু ছেলেটি যোগাযোগ করছেন না, কাজেই আপনি জানতেও পারছেন না।

এ অবস্থায় আপনি ক্ষোভ, হতাশা, অস্বস্ত এবং অসহায় বোধ করতে পারেন। বার বার মাথায় আসবে, আমি কি এমন ভুল করে ফেলেছি? নিজে থেকে যোগাযোগ করবেন কিনা তাও বুঝে উঠতে পারেন না।

মানুষ কেন এমন করে? এ আচরণ কেন করতে পারে তা জেনে রাখতে হবে। এমন হতে পারে যে-

১. সম্পর্কটা শেষ করতে চান। কিন্তু তা করার যৌক্তিক কারণ ও সাহস তার নেই।

২. আপনার প্রতি ভদ্রতাসূচক আচরণের প্রতি যথেষ্ট শ্রদ্ধাশীল নন তিনি।

৩. অন্য কারো সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে গেছেন।

৪. আপনার বিষয়টি সিরিয়াসলি নেননি।

৫. নতুন সম্পর্কের উত্তেজনা হারিয়ে গেছে।

আপনি যা করতে পারেন : ঘোস্টিংয়ের সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো অনিশ্চয়তা। আপনার কি চেষ্টা করে যাওয়া উচিত? কাউকে পাওয়ামাত্র তাকে হারানোর বিষয়টি সোজা নয়। যদি পিছু না ছাড়েন, তবে বেশ আগ্রাসী হতে হবে। এখানে কিছু পরামর্শ দেওয়া হলো।

১. যদি মনে হয় সে আপনার আবেগকে মূল্য দিচ্ছেন না, তবে বলে দিন এখানেই শেষ। এ ক্ষেত্রে আপনার পক্ষ থেকে যে সম্পর্কের ইতি টানা যাবে না তা নয়।

২. বলুন যে আপনি তার সঙ্গে একবার দেখা করতে চান। হতে পারে আপনার পক্ষ থেকে এটাই তার জন্য শেষ সুযোগ। স্পষ্টাভাবে ডেট করার প্রস্তাব দিন। টেক্সট করে তা জানাতে পারেন। যদি তারা জবাব না দেন তো উত্তর পেয়ে গেলেন।

৩. সে যা করছে তার প্রতিবাদ করুন। বলতে পারেন যে, সে এমন কেন করছেন তা আপনি জানেন না। কিন্তু এর একটা ইতি ঘটা দরকার।

৪. কিংবা কিছুই করার দরকার নেই। একে বাজে অভিজ্ঞতা মেনে নিয়ে নিজের মতোই থাকুন।

তবে সব ঘোস্টিং এমন হয় না। একটা জায়গায় থেকে গিয়ে আবারো পুরোদমে শুরু হতে পারে। হয়তো আসলেই কোনো সমস্যার কারণে এমনটা ঘটে গেছে। হয়তো সে আন্তরিকভাবে ক্ষমা চাইতে পারেন। সে ক্ষেত্রে আপনি বিষয়টি বিবেচনায় আনতে পারেন।

আপনি যদি নিজেও তা করে থাকেন এবং ফিরে যেতে চান তার কাছে, তবে ক্ষমা চাইতে লজ্জাবোধ করবেন না। আবার সে ফিরে আসলে এবং যথাযোগ্য কারণ দর্শনের পরও যে আপনাকে কঠোর থাকতে হবে এমন কোনো কথা নেই।

সম্পর্কের ধরন নানা ধরনের হতে পারে। তাই এ বিষয়ে সাবধান থাকতে হবে। অল্প সময়ের মধ্যে খুব বেশি যোগাযোগ, ডেটিং, অন্তরঙ্গতা ইত্যাদি অশনি সংকেত বহন করে। সম্পর্কের এসব বিষয়েও সচেতন হতে হবে।

ঘোস্টিংয়ের শিকার হলে সেখান থেকে অভিজ্ঞতা নিন। এ অবস্থায় ভেঙে পড়বেন না। সম্পর্ক বিষয়ে এটা আপনাকে দিতে পারে গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষা। সূত্র : টেলিগ্রাফ

 


মন্তব্য