kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


নারীদের পুরুষ বিষয়ক ভাবনাগুলোর উত্তরে কী বলছেন পুরুষরা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ অক্টোবর, ২০১৬ ১৬:২৪



নারীদের পুরুষ বিষয়ক ভাবনাগুলোর উত্তরে কী বলছেন পুরুষরা

আলিঙ্গনের প্রটোকল থেকে শুরু করে সঙ্গী সুখি কিনা- এসব সহ পুরুষরা তাদের ব্যাপারে নারীদের তুচ্ছাতিতুচ্ছ প্রশ্নগুলোরও উত্তর দিয়েছেন। রেডিটের আস্কমেন সেকশন এর নারী ইউজারদেরকে একটি প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার আহবান জানিয়েছেন: “আস্ক মেন এর নারীরা সত্যি করে বলুন, আপনারা পুরষদের কোন বিষয়গুলো জানতে চান?
শীর্ষ রেটিং প্রাপ্ত প্রশ্নটি ছিল এক নারীর করা এই প্রশ্নটি: “আপনি কি এই ব্যাপারে সতর্ক যে আপনার দেহের যে স্ফীত অংশটি বেরিয়ে আছে তা আমি দেখছি?”
এর উত্তরে এক পুরুষ লিখেছেন, “পুরুষদের কাছে আপনাদের বুকের ভাঁজও ঠিক একই রকম লাগে।

কিন্তু এর চেয়েও বেশি স্ফীতি আপনাদের চেহারায় রয়েছে। ”
আরেক ইউজার জিজ্ঞেস করেছেন, ছেলেরা মেয়ে বন্ধুদের আলিঙ্গনাবদ্ধ হতে বিরক্তিবোধ করবেন কিনা।
তিনি প্রশ্ন করেন, “আমি আলিঙ্গন করতে ভালোবাসি। কিন্তু আমার মেয়ে বন্ধুরা তা পছন্দ করেন না। সুতরাং আমি আমার কোনো ছেলে বন্ধুকে আলিঙ্গন করতে চাই। আমি ভাবছি এতে তার কী অনুভূতি হবে। আজব?
এর উত্তরে একজন লিখেছেন: “আমি ব্যক্তিগতভাবে এটি পছন্দ করি। তবে আমি নিশ্চিত অনেকেই তা পছন্দ করেন না। আমিও আপনার মতোই। আলিঙ্গন খুবই ভালো জিনিস। ”
আরেকজন বলেছেন: “বিষয়টি নির্ভর করছে ছেলে বন্ধুটি এবং পরিবেশ পরিস্থিতির ওপর। ”
অন্যরা ডেটিংয়ের শিষ্টাচার নিয়ে চিন্তিত। এক ইউজার ভাবছেন পুরুষরা নারীদের কাছ থেকে প্রেমের প্রস্তাব পাওয়াকে পছন্দ করবেন কিনা।
তিনি লিখেছেন, “আমি কোনো আকর্ষণীয় পুরুষের কাছে গিয়ে তাকে বলতে চাই তাকে দেখতে সুন্দর লাগছে। কিন্তু আমি বিব্রত। আমি এটি করছিনা কারণ আমার এমন অনুভূতি হচ্ছে যে, আমার কোনো সুযোগ নেই। এমনকি আগে কোনো কিছু করার পরও…”।
তবে তাকে এ ব্যাপারে নিশ্চিত করা হয় যে, পুরুষরাও নারীদেরকে প্রেমের প্রস্তাব দিতে গিয়ে সবসময় এই একই ধরনের উদ্বেগে ভোগেন:
“বিষয়টি এভাবে দেখুন: ১) আপনি কখনোই কোনো পুরুষকে প্রেমের প্রস্তাব দেননি। সুতরাং তার মানে হলো ১০০ ভাগ সময়ই আপনি নিজেই নিজের পায়ে কুড়ুল মারছেন। ২) আপনি পুরুষকে প্রেমের প্রস্তাব দেওয়ার চেষ্টা করেন। সবসময়ই তা সাফল্যের মুখ দেখে না। কিন্তু আপনার প্রচেষ্টা যখনই সাফল্যের মুখ দেখে তখনই আপনি আনন্দে আত্মহারা হয়ে পড়লেন!”
আরেক নারী প্রশ্ন করেছেন, সঙ্গী সুখি কিনা তা বুঝা যাবে কীভাবে। ব্যাখ্যায় তিনি বলেন: “অনেক সময় আমি বলতে পারি না আমার সঙ্গী অসুখি কিনা বা আমার নিজের মাঝে উদ্বেগজনিত কোনো সমস্যা আছে কিনা। ”
তাকে বলা হয়েছিল: “তার পাশে বসে বিষয়টি নিয়ে তার সঙ্গে খোলাখুলি কথা বলুন। অনুমানের ওপর ভিত্তি করে কিছু বলবেন না। সততাই সর্বোত্তম পন্থা। ”
তবে আরেকজন বলেছেন, আস্থার বিষয়টিও গুরুত্বপূর্ণ। তিনি যদি বলেন তিনি সুখি তাহলে আপানাকে তার কথা বিশ্বাস করতে হবে। সম্পর্ক ঠিক রাখার জন্য সঠিক যোগাযোগ এবং আস্থার প্রয়োজন হয়।
আরেকজন জিজ্ঞেস করেছেন, এমন কোনো যাদুকরী কৌশল আছে কিনা, যার মানে হলো পুরুষরা সবসময়ই সঠিক পদক্ষেপটি গ্রহণ করতে জানেন।
এক পুরুষ এর জবাবে বলেছেন: “আমি মনোযোগ দিই। ”
এক নারী জিজ্ঞেস করেছেন, কেন কিছু পুরুষ নারীদের প্রতি আগ্রহী হওয়া সত্ত্বেও তাদের পিছু ছোটেন না।
এর উত্তরে সোজাসাপ্টাভাবে বলা হয়, “লজ্জা, সামাজিকভাবে বিব্রত এবং প্রত্যাখ্যাত হওয়ার ভয়” এসব কারণেই পুরুষরা তা করেন না।
সবচেয়ে বিব্রতকর প্রশ্নটি ছিল, “পুরুষদের জননাঙ্গ কি ভেসে থাকে”।
এক পুরুষ এর উত্তরে বলেছেন: “একটু অপেক্ষা করুন… হ্যাঁ!”
সূত্র: দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট


মন্তব্য