kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


সত্য জবাবে যখন চাকরি মেলে না, তখন কি করবেন?

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ অক্টোবর, ২০১৬ ১৩:২০



সত্য জবাবে যখন চাকরি মেলে না, তখন কি করবেন?

ভাবুন, আপনি ইন্টারভিউ বোর্ডের সামনে বসে রয়েছেন। সবকিছু ঠিকঠাকমতোই চলছে।

আপনি ইন্টারভিউয়ের প্রতিটি প্রশ্নের উত্তর আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে দিয়ে চলেছেন। বেশ ভালোই বোধ করছেন।

একটা সময় প্রশ্নকর্তাদের একজন জানতে চাইলেন, কাজের সময় একঘেয়েমি থেকে বের হতে কি করেন আপনি?

আসলে প্রশ্নটি খুব সহজ কিছু নয়। কর্মক্ষেত্রের একঘেয়ে অবস্থা কর্মীদের জীবনের সবচেয়ে বড় সংগ্রাম।

এ প্রশ্নের জবাবে আপনি সততার আশ্রয় নিলেন। বললেন, বেশ মজার প্রশ্ন। আসলে আমি একঘেয়ে সময়কে সামলে নিতে পারি না। এটা আমার বড় দুর্বলতা। একঘেয়ে হয়ে পড়লে সাধারণত ফেসবুকে ঢুঁ মারি বা গেম খেলি।

এই জবাবেই চাকরিটি হারানোর ভয় রয়েছে আপনার। তাই একটিমাত্র প্রশ্নের সৎ জবাব দিতে গিয়ে যদি চাকরি হারাতে হয়, তাহলে মিথ্যা বলতে হবে? না, মিথ্যা না বলেও চাকরিটি পেতে পারেন আপনি। তবে এর জন্য দুটো উপায় রয়েছে আপনার হাতে।

১. পুরো এড়িয়ে না গিয়ে ইতিবাচক বলার কিছু খুঁজতে থাকুন। প্রশ্ন এড়িয়ে যাওয়ার কখনোই উচিত নয়। একে কেন্দ্র করেই ভালো কিছু বলতে হয়। এমন বলতে পারেন যে, আমি ভাগ্যবান যে কাজের সময় খুব কমই একঘেয়ে লাগে। ব্যস্ত দিনগুলোতে একঘেয়ে অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসার বিষয়ে আমার কিছু উপায় রয়েছে। তবে ব্যবস্থাপনা ও অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে এদের সামলে নেওয়া আমার বেশ ভালো গুণ। এর জন্য আমি.......। এমন কাজের কথা বলুন যেগুলো ইতিবাচক এবং উৎপাদনশীলতা নষ্ট করে না।

২. সৎ থাকুন। তবে সমস্যা দূর করতে কি করেন তাই তুলে ধরুন। প্রথম উপায়টি কাজে লাগবে না বলে মনে হলে কিছুটা সরাসরি হতে হবে। এই জবাব দেওয়ার পরও প্রশ্নকর্থা আরো সরাসরি জানতে চাইতে পারেন। সে ক্ষেত্রে আপনি কি কি কাজ করেন তাই বলতে হবে। এ সময় ভালো কাজের কথাই বলুন। বলতে পারেন, আসলে একঘেয়ে অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসার ক্ষেত্রে আমি সব সময় শক্তিশালী নই। তবে এ কাজে পারদর্শী হওয়ার বিষয়ে আমি যথেষ্ট আগ্রহী। চেষ্টাও চালিয়ে যাচ্ছি। কয়েক মাস আগ থেকেই আমি ইয়োগা ও মেডিটেশন চর্চা করছি। .... এভাবে কথোপকথন এগিয়ে নিয়ে যান।
সূত্র : বিজনেস ইনসাইডার

 


মন্তব্য