kalerkantho


'চোখের দৃষ্টি অক্ষুণ্ন থাকা সত্ত্বেও কম্পিউটার চশমা পরি যে কারণে'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৬ অক্টোবর, ২০১৬ ১৫:০২



'চোখের দৃষ্টি অক্ষুণ্ন থাকা সত্ত্বেও কম্পিউটার চশমা পরি যে কারণে'

আমি খুবই ভাগ্যবান। দশকের পর দশক ধরে টেলিভিশন, কম্পিউটার স্ক্রিন, ফোন, ট্যাবলেট এবং হাতে ধরা গেম কনসোলের স্ক্রিনে তাকিয়ে থাকার পরও আমার চোখ ভালো আছে। আমার এখনো ২০/২০ দৃষ্টিশক্তি রয়েছে।

তবে আমার ভালো ঘুম হয় না। আমার ঘুমের কাঠামো খুবই খারাপ। উচ্চ বিদ্যালয়, কলেজে এবং পরবর্তী সময়েও আমি প্রায়ই রাত জাগতাম। নিদ্রাহীন থাকতাম। প্রায় সারারাতই জেগে থাকতাম। যারা গ্যাজেট ভালোবাসেন তাদের জীবনযাপনের একটি সাধারণ অঙ্গ রাতজাগা। অনেকে এর দায় চাপান 'ব্লু লাইট' বা 'নীল আলো'র ওপর।

সংক্ষেপে, নীল আলো সেই হালকা বর্ণালীর অংশ যা আপনার চোখের গভীরে প্রবেশ করে। এই আলো আপনার মস্তিষ্ককে এই সংকেত দেয় যে, 'ওহে! ঘুম থেকে ওঠো'। বিদ্যুৎ আবিষ্কারের আগে মানুষরা তাদের নীল আলোর বেশির ভাগই সংগ্রহ করতো সূর্যের আলো থেকে। সূর্য ওঠার সঙ্গে সঙ্গে তারা ঘুম থেকে উঠতেন এবং সূর্যাস্তের সঙ্গে সঙ্গে ঘুমাতে যেতেন। আর এভাবেই চলতে থাকতো দিনযাপন।

তবে, এ ব্যাপারে অকাট্য কোনো যুক্তি নেই যে, আপনি যে পরিমাণে নীল আলো গ্রহণ করেন তার হার কমিয়ে আনলে আপনি আরো ভালো ঘুম ঘুমাতে পারবেন। বা এতে আপনার নিদ্রাহীনতা দূর হবে। অবশ্য বিষয়টি নিয়ে নানা তর্ক-বিতর্ক আছে।

বিজনেস ইনসাইডারে কাজ শুরু করার আগে আমি এমন একটি চাকরি করতাম যেখানে দিনের বেশির ভাগ সময়ই আমাকে কম্পিউটার স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে থাকতে হতো। সেখানে কাজ করার জন্য আমি একজোড়া কম্পিউটার চশমা কিনি।
আমার যেহেতু আগে কখনো চশমা পরার অভ্যাস ছিল না ফলে আমি চশমা পরা নিয়ে উদ্বিগ্ন ছিলাম। চশমা পরাটা কি আমার জন্য আরামদায়ক হবে? দেখতেই বা কেমন লাগবে? ঠিকমতো লাগবে তো? কিন্তু চশমাগুলো পরার পর বেশ আরামদায়কই লাগছিল। আমি টেরই পাচ্ছিলাম না যে আমার মুখের ওপর আলগা কিছু লাগানো আছে। এ ছাড়া চশমাগুলো দেখতে সুন্দর হয়েছে বলেও প্রশংসাসূচক মন্তব্য শুনতে পাই আমি। আর চশমাগুলো দেখতেও সাধারণ চশমার মতোই। কেউ দেখে বুঝতেই পারেন না চোখে নীল আলো কমানোর জন্য আমি ওগুলো পরেছি।
গত কয়েক মাসে আমি চোখে নীল আলো গ্রহণের পরিমাণ কমাতে বেশ কয়েকটি পদক্ষেপ গ্রহণ করি। এ উদ্দেশ্যে আমি আমার ম্যাকবুক প্রো-তে এফ.লাক্স ইনস্টল করেছি। আর আইফোন এবং আইপ্যাডে নাইট শিফট সক্রিয় করেছি।

কিন্তু অফিসে আমি যে কম্পিউটারটি ব্যবহার করি সেটির মনিটরে নীল আলো কমানোর কোনো ব্যবস্থা ছিল না। প্রতিদিন আমি গড়ে এর স্ক্রিনে অন্তত ১০ ঘণ্টা তাকিয়ে থাকি। ফলে আমার চোখের ভেতরের নীল আলোর বেশির ভাগই আসে এটি থেকে।

চোখে নীল আলো গ্রহণের পরিমাণ কমানোর আরেকটি বড় উপকারিতা হলো, চোখে কম ব্যথা হওয়া। এমনকি যদিও আমি কম্পিউটার স্ক্রিনে প্রায় সারাদিনই তাকিয়ে থাকি তথাপি দিনশেষে আমার চোখে কোনো ব্যাথা হয় না।

নীল আলো নিরোধক চশমা ছাড়া আমি কম্পিউটার স্ক্রিনে তাকিয়ে দেখেছি, এতে কম্পিউটার স্ক্রিনটি আগের চেয়ে আরো বেশি উজ্বল দেখায়।

আপনিও যদি কর্মস্থলের কাজ শেষে চোখে ব্যাথা অনুভব করেন তাহলে জেআইএনএস এর একজোড়া চশমা ব্যবহার করে দেখুন। চশমাগুলো সত্যিই আরামদায়ক, দেখতে সুন্দর। যা আমার কর্মদিবসগুলোকে উন্নত করেছে এবং ঘুমের সমস্যাও দূর করেছে।
সূত্র : বিজনেস ইনসাইডার


মন্তব্য