kalerkantho


স্থবির হয়ে পড়েছে ব্রিটেনের তরুণ-তরুণীদের যৌনজীবন!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৪:০৫



স্থবির হয়ে পড়েছে ব্রিটেনের তরুণ-তরুণীদের যৌনজীবন!

ভবিষ্যৎ নিয়ে হতাশা, উদ্বেগ ও অর্থনৈতিক সংকটের চাপে ব্রিটেনের তরুণ-তরুণীদের যৌনজীবন স্থবির হয়ে পড়েছে। আর এ ক্ষেত্রে তরুণীরাই সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।

নতুন এক জরিপে এমনটাই দেখা গেছে।

অল্প বেতন এবং কর্মসংস্থানের অভাবে ব্রিটেনের তরুণ-তরুণীরা তাদের যৌনজীবন স্থগিত করে রেখেছেন। এদের অনেকেই আবার বাবা-মার সঙ্গে বসবাস করছেন বা পরিবারে ফিরে যাচ্ছেন। এমনকি অনেকে সন্তান জন্মদানেও আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন। ওই জরিপে ১৮ থেকে ৩০ বছর বয়সী হাজার হাজার ব্রিটিশ তরুণ-তরুণী অংশগ্রহণ করেন।

এই তরুণ-তরণীদের বিশাল অংশ, প্রায় ৪২ শতাংশ নিজেদেরকে জরাজীর্ণ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন, ৪৭% নিজেদেরকে আত্মবিশ্বাসহীন বলেছেন আর ৫১% বলেছেন তারা নিজেদের ভবিষ্যত নিয়ে উদ্বিগ্ন।

পপুলাস ডেটা সলিউশন এর মাধ্যমে দাতব্য প্রতিষ্ঠান দ্য ইয়াং ওমেনস ট্রাস্ট জরিপটি চালায়। ইয়াং ওমেনস ট্রাস্ট হুঁশিয়ারি দিয়েছে, ব্রিটেন একটি 'সংকটের আবর্তে তরুণ প্রজন্ম' এর মুখোমুখি হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি এ ব্যাপারে সরকারকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণেরও আহ্বান জানিয়েছে।

সার্বিক যুবনীতি প্রণয়নের দায়িত্ব দিয়ে একজন মন্ত্রী ও মন্ত্রণালয় সৃষ্টি করার পরামর্শও দেয় ইয়াং ওমেনস ট্রাস্ট।

এ ছাড়া ২৫ বছরের কম বয়সীদের জন্যও জাতীয় ন্যূন্যতম মজুরি নীতিমালা মেনে চলার আদেশ দানের জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানানো হয়। আর তরুণ-তরুণীদের জন্য সরকারি আবাসন সুবিধা সরবরাহ এবং কর্মস্থলে বৈষম্যের শিকার হওয়া থেকে সুরক্ষার জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করার কথা বলা হয়। এ ছাড়া প্রাপ্তবয়স্ক তরুণদের জন্য এবং বিশেষ করে তরুণীদের জন্য বিশেষ উদ্যোগে কর্মসংস্থান সৃষ্টির কথাও বলা হয়।

বিশেষ করে ব্রিটেনের তরুণীরা বেশি সমস্যায় আক্রান্ত হচ্ছেন। তরুণীদের ৫৪% জানিয়েছেন তারা আত্মবিশ্বাসহীনতায় ভুগছেন। অন্যদিকে, তরুণদের মাত্র ৩৯% আত্মবিশ্বাসহীনতায় ভোগার কথা বলেছেন।

তরুণ-তরুণীদের প্রতি ১০ জনের ৪ জন বলেছেন, তারা নিজেদেরকে জরাজীর্ণ অনুভব করছেন। নারীদের ৪৬% আর পুরুষদের ৩৮% এমন অনুভূতির কথা বলেছেন। প্রতি তিনজনের একজন জানিয়েছেন, তারা তাদের মানসিক স্বাস্থ্য নিয়েও উদ্বিগ্ন। নারীদের ৩৮% আর পুরুষদের ২৯% এমন উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

ইয়াং ওমেনস ট্রাস্টের প্রধান নির্বাহী ড. ক্যারোল ইস্টন বলেন, ১৬ থেকে ৩০ বছর বয়সী নারীরা খুবই কম মজুরি বা বিনা মজুরিতেই কাজ করতে বাধ্য হচ্ছেন। অথচ ঐতিহ্যগতভাবে জীবনের এই সময়টাকেই সবচেয়ে বেশি তারুণ্যদীপ্ত আত্মবিশ্বাসের সময়কাল হিসেবে চিহ্নিত করা হয়ে থাকে।

তিনি বলেন, "বুঝতে ভুল করবেন না। আমরা সংকটের আবর্তে নিপতিত একটি তরুণ প্রজন্ম নিয়ে কথা বলছি। আর তরুণ-তরুণী উভয় জনগোষ্ঠীর সদস্যদের জীবন কঠিন হয়ে পড়লেও বিশেষ করে অল্প বয়সী নারীদের জীবন তুলনামূলকভাবে বেশি কঠিন। "

নো কান্ট্রি ফর ইয়াং ওমেন শিরোনামে পরিচালিত গবেষণায় ১৮-৩০ বছর বয়সী ৪ হাজার নারী-পুরুষের ওপর জরিপ চালানো হয়। এতে দেখা যায়, তরুণ-তরুণীদের ৪৩ শতাংশই এখনো তাদের পরিবারের সঙ্গে বসবাস করছেন। আর স্বাধীনভাবে জীবনযাপনের ব্যয় বহন করতে না পেরে এক চতুর্থাংশই পরিবারে ফিরে গেছেন।

এ ছাড়া ৫৬% তরুণ-তরুণী জানিয়েছেন, তারা কাজের জন্য বিদেশে পাড়ি জমাতেও ইচ্ছুক।
সূত্র : দ্য গার্ডিয়ান


মন্তব্য