kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


তিন সময়ে কর্মস্থলে নমনীয়তা গ্রহণযোগ্য নয়

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৫:৩৩



তিন সময়ে কর্মস্থলে নমনীয়তা গ্রহণযোগ্য নয়

কর্মক্ষেত্রে নমনীয়তার বিষয়ে বলতে গেলে, এমন কিছু বিশেষ সময় আছে যখন এই ধরনের আচরণ একদমই গ্রহণযোগ্য নয়। বিষয়টি মাথায় রেখে এখানে এমন কিছু পরিস্থিতির উল্লেখ করা হলো যখন কাজ সম্পন্ন করার ক্ষেত্রে সাধারণত হেলাফেলা করলে বরদাশত করা হয় না :

১. যখন বড় কোনো প্রকল্পের জন্য কঠোরভাবে সময়সীমা নির্ধারণ করে দেওয়া হয়
আপনি হয়ত বলতে পারেন, "যেহেতু নির্দিষ্ট সময়সীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছে সুতরাং আমি প্রকল্পটির কোনো কাজই অসম্পূর্ণ রাখবো না।

" তবে এ ক্ষেত্রে এমন ঝুঁকিও আছে, আপনি হয়ত নির্দিষ্ট সময়সীমার দিকে তাকিয়ে মাথায় যখন যেভাবে যা আসে সেভাবেই কাজটি সম্পন্ন করতে শুরু করলেন। কিন্তু আপনি যদি কোনো পরিষ্কার কর্মপরিকল্পনা ছাড়া এভাবে কাজ করেন তাতে মধ্যরাত হওয়ার আগেই বেশ কিছু সমস্যা দেখা দিতে শুরু করবে।

যারা সবেমাত্র নতুন কর্মস্থলে যোগ দিয়েছেন তারা হয়ত কোনো প্রকল্পের কাজ বিশৃঙ্খলভাবে করার প্রবণতাই প্রদর্শন করেন বেশি। কিন্তু এভাবে কাজ করলে প্রায়ই আপনাকে হয়ত পুনরায় পেছনে ফিরে গিয়ে কোনো কাজ দ্বিতীয়বার করার দরকার হবে। আর বিশৃঙ্খলভাবে কাজ করলে শেষ সময়ের আগে আপনি বুঝতেই পারবেন না প্রকল্পটির কাজ ভালোয় ভালোয় শেষ করার জন্য সব ঠিকঠাকমতো করা হচ্ছে কি না।

সুতরাং কোনো প্রকল্পের জন্য কঠোরভাবে সময়সীমা নির্ধারণ করে দেওয়া হলে ভালো মতো পূর্বপরিকল্পনা প্রস্তুত করে কাজটি সম্পন্ন করতে এগিয়ে যাওয়াই উত্তম। প্রথমেই কী কী করতে হবে তার একটি তালিকা তৈরি করে নিতে হবে। এরপর একে একে সেগুলো সম্পন্ন করতে হবে।

২. আপনি যখন ছুটি কাটাতে যাচ্ছেন
কর্মসূচির ব্যাপারে নমনীয় হওয়া একেবারে অনুচিত নয়। তবে অতীতে দীর্ঘদিন কাজ ছেড়ে থাকার ফলে আপনার মাঝে যে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা কাজ করতো তা স্মরণ করুন। আপনার হাতে হয়ত এক টন ই-মেইল ছিল যার উত্তর দেওয়ার প্রয়োজন ছিল। অথবা একগাদা প্রকল্প ছিল যেগুলো সম্পন্ন করতে হতো। এবং এমনকি আরো বেশি সংখ্যক বৈঠক সম্পন্ন করার জন্য আপনাকে হয়ত পুনরায় সময় নির্ধারণ করতে হবে।

তবে হ্যাঁ! যখন আপনার সাধারণভাবে ছুটি কাটানোর দিন আসে তখন অবশ্যই এমন কিছু করুন যা করে আপনি সুখী হবেন। কিন্তু কর্মস্থল ছাড়ার আগে সবকিছু শৃঙ্খলাবদ্ধ করে রেখে যান। নিজের প্রতি সদয় হন। এ ছাড়া সবকিছু কীভাবে মোকাবিলা করবেন তার একটি পরিকল্পনা তৈরি করুন যাতে আপনি আপনার ছুটির সময়টুকু ঠিকমতো উপভোগ করতে পারেন।

অনেকের কাছেই এর মানে হতে পারে স্বাভাবিকের চেয়ে একটু বেশি সংগঠিত হওয়া। আসন্ন ডেডলাইগুলোর ওপর চোখ বুলিয়ে নিন। আর আগেভাগেই কিছু কাজ সেরে ফেলুন। এ ছাড়া পূর্বনির্ধারিত বৈঠকগুলোর জন্যও পুনরায় তারিখ নির্ধারণ করতে পারেন। সহকর্মীদেরকেও আপনার অনুপস্থিতিতে কোনো কাজ সম্পন্ন করার দায়িত্ব দিয়ে যেতে পারেন। ছুটিতে যাওয়ার আগমুহূ্র্তে এতে হয়ত আপনার কাজের চাপ একটু বেড়েও যেতে পারে। তবে সামান্য কয়েক দিনের অতিরিক্ত ব্যস্ততা আপনাকে ছুটির দিনগুলো আরো ভালোভাবে উপভোগ করার সুযোগ তৈরি করে দেবে।

৩. আপনি যখন নিয়মিত বল ড্রপ করছেন
যদি খুব বেশি পূর্বপরিকল্পনা ছাড়া আপনি কোনো কাজ সম্পন্ন করতে পারেন তাহলে আপনি হয়ত অনেক বেশি কর্মক্ষমতার অধিকারী। আর আগেভাগে কোনো শক্ত কর্মতালিকা তৈরি করা ছাড়াই আপনার উচ্চ কর্ম উৎপাদনশীলতা দেখে সহকর্মীরাও হয়ত ঈর্ষান্বিত হয়ে পড়তে পারেন।

কিন্তু যদি এরপরও যদি সবকিছু এলোমেলো হয়ে যায় তাহলে একটু সময় নিন। এবং মনোযোগ দিয়ে বুঝার চেষ্টা করুন কেন এমনটি হচ্ছে। কারণ আপনি যদি এতটা বিশৃঙ্খলভাবে কাজ করেন এবং যখন যা সামনে আসে শুধু তাই করেন তাহলে যা হবে, তা হলো আপনি শুধু অসংগঠিত হওয়ার কারণেই পিছিয়ে পড়বেন। সুতরাং নিজেকে আরো কাঠামোবদ্ধ করার ব্যাপারে একদমই ভয় পাবেন না।
কখন আপনাকে এমনটা হতে হবে তা আপনি নিজেকে এই সরল কয়েকটি প্রশ্ন করেই বুঝতে পারবেন :
১. আমি যদি নিয়মিতই একটি কর্মতালিকা তৈরি করি তাহলে কি তাতে কাজ হবে? প্রতিদিনই ছোট বা বড় যেসব জিনিস করতে হবে তার একটি খসড়া প্রস্তুত করা।
২. আমি কি বেশি বেশি বড় কোনো প্রকল্পের শীর্ষে থাকতে পারব যদি আমি টিমমেটদের সাথে আরো বৈঠকের পরিকল্পনা করি। যা নির্ধারিত সময়সীমার দিকে পরিচালিত হবে?
৩. আমি কি আরো বেশি উৎপাদনশীল হব যদি আমি এবং আমার বস নিয়মিতভাবে পরিস্থিতির হালনাগাদ জানার জন্য বৈঠক করি?

নিজের দিনগুলোকে কঠোরভাবে কাঠামোবদ্ধ করার মধ্যে কোনো আনন্দ নেই। কিন্তু সেগুলোকে অগ্রাহ্য করা এবং বিশৃঙ্খলভাবে কাজ করার মধ্যে আরো অনেক কম আনন্দ রয়েছে।

প্রচুর লোক আছেন যারা আরো নমনীয় ছন্দে কাজ করতে চান। আপনি যদি এমন হন যে সুযোগ বুঝে কাজ করতেই আপনি অভ্যস্ত তাহলে তা হয়ত একদিন আপনার কাজে লাগতে পারে।

নিজের দিনগুলোকে কাঠামোবদ্ধ করার ব্যাপারে খুব বেশি কঠোরতা আপনাকে পাগল করে দেবে। কিন্তু অসংগঠিত এবং অসংলগ্নভাবে দিন পার করলে তা আপনাকে বদ্ধ উম্মাদ করে ছাড়বে। সুতরাং নিজের প্রতি সদয় হন এবং খেলায় সবসময় কিছুটা এগিয়ে থাকুন। এতে আপনি সত্যিই সুখী হতে পারবেন।
সূত্র : ফোর্বস


মন্তব্য