kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


আপনি কি পর্নে আসক্ত? সমস্যাগুলো জেনে রাখুন

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৫:৪০



আপনি কি পর্নে আসক্ত? সমস্যাগুলো জেনে রাখুন

পর্নোগ্রাফি এখন অনলাইনের কল্যাণে মানুষের হাতের মুঠোয়। আর এ কারণে বহু মানুষই পর্নের নেশায় আক্রান্ত হয়ে পড়েছে।

কিন্তু আপনি যদি সত্যিই পর্নে আসক্ত হয়ে থাকেন তাহলে কী করবেন? এ লেখায় তুলে ধরা হলো তার কয়েকটি উপায়। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে টাইমস অব ইন্ডিয়া।

আপনি কি পর্নে আসক্ত?
পর্নোগ্রাফিতে আসক্ত হওয়ার কয়েকটি লক্ষণ রয়েছে। আপনার যদি এ লক্ষণগুলো মিলে যায় তাহলে বুঝতে হবে আপনি পর্নোগ্রাফিতে আক্রান্ত। এগুলো হলো-
১. আপনি প্রতিদিন প্রচুর সময় পর্ন দেখার কাজে ব্যয় করেন। এ সময় প্রতিসপ্তাহে ১০ ঘণ্টা।
২. আপনার বীর্য স্খলনে সমস্যা হয় কিংবা স্বাভাবিক যৌনজীবনে সঙ্গীর সঙ্গে যৌনতায় স্বাভাবিক হতে পারেন না।
৩. আপনি প্রায়ই সারাদিন পর্ন দেখার পরিকল্পনা করেন।
৪. বন্ধু ও পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে দেখা করার বদলে আপনি পর্ন দেখতে পছন্দ করেন।
৫. আপনার বিনোদনের অন্যতম মাধ্যম পর্ন দেখা।
৬. আপনি পর্ন দেখার জন্য নিজেকে ক্ষমা করতে পারেন না। আবার এটি ছাড়তেও পারেন না।

সমস্যাগুলো জেনে রাখুন
এ ক্ষেত্রে আপনার জেনে রাখতে হবে পর্নোগ্রাফির সমস্যাগুলো। অল্প সময় নিয়ে পর্ন দেখলে তাতে তেমন ক্ষতি নাও হতে পারে। কিন্তু তা যদি দীর্ঘ সময় ধরে নিয়মিত হতে থাকে তাহলে মারাত্মক সমস্যা হতে পারে। অনেকেই নিয়মিত বাড়তি সময় নিয়ে পর্নোগ্রাফি দেখেন। আর এটি একপর্যায়ে নেশার মতো হয়ে যায়।

'হেলথ' জার্নালের মনোবিজ্ঞান বিভাগের এডিটর ড. গেইল সালজ বলেন, পর্ন সিনেমার প্রতি আসক্তি কিন্তু বিরল ঘটনা নয়। এটা অহরহ দেখা যায়। অ্যালকোহল বা অন্য কোনো মাদকের প্রতি মানুষের যেমন আসক্তি, তেমনি একটি নেশা পর্ন।
আচরণগত দিক থেকে এর প্রতি নিরাসক্ত হওয়ার কোনো লক্ষণ প্রকাশ পায় না। এটাই মানসিক আকর্ষণের সবচেয়ে বড় লক্ষণ। এই আচরণগত লক্ষণের মাধ্যমে মস্তিষ্কে ডোপামাইনের ক্ষরণ ঘটনা স্পষ্ট হয়। তাই যখন এ অভ্যাস থেকে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করা হয়, মস্তিষ্কে তখন সমস্যা হয়।

তবে অনেক বিশেষজ্ঞই মনে করেন, আসক্তি বলতে যা বোঝায়, পর্নের প্রতি আসক্তি আসলে তেমনটা নয়। অনেকে এ ঘটনাকে 'আসক্তি' বা 'রোগ' বলতে রাজি নন। এটা আসলে নিয়ন্ত্রণহীন আচরণ। এসব কথা বলেন সাইকোথেরাপিস্ট এবং সেক্সুয়ালিটি কাউন্সেলর ইর্য়ান কারনার। যারা পর্ন ছবির আসক্তিতে পড়েন তাদের মধ্যে এক ধরনের আচ্ছন্নতা কাজ করে।

পর্ন আসক্তির কারণে তাদের দাম্পত্য সম্পর্ক প্রভাবিত হয়। সঙ্গী-সঙ্গিনীর মধ্যে সমস্যা সৃষ্টি করে এ আসক্তি। অন্তরঙ্গ মুহূর্ত বা যৌনজীবনে দুজন ধীরে ধীরে দূরে সরে যেতে থাকেন। আসক্তরা অপরজনকে পর্নের মতো করে কল্পনায় দেখেন।


মন্তব্য