kalerkantho

শুক্রবার । ২ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বিষণ্ণতার কারণে পুরুষের তুলনায় বেশি আত্মহত্যা করে নারী

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৪:০৩



বিষণ্ণতার কারণে পুরুষের তুলনায় বেশি আত্মহত্যা করে নারী

পুরুষের তুলনায় বিষণ্ণতার প্রভাব নারীর মাঝে বেশি পড়ে। আর এ কারণে বহু দেশেই পুরুষের তুলনায় নারীরা তিন গুণ বেশি আত্মহত্যা করে।

এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে এনডিটিভি।
ভারতীয় এক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, সেখানে ১৫ থেকে ৩০ বছর বয়সী ব্যক্তিদের মাঝে আত্মহত্যার হার সবচেয়ে বেশি। আর এক্ষেত্রে পুরুষের তুলনায় নারী তিন গুণ বেশি আত্মহত্যা করে।
এ বিষয়ে মনোবিদরা বলছেন, বিষণ্ণতার কারণে প্রচুর মানুষ আত্মহত্যা করে। মাত্র ১০ থেকে ১৫ শতাংশ ক্ষেত্রে আবেগপ্রবণ হয়ে আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে। বাকি আত্মহত্যাগুলো নানা ধরনের চিকিৎসার মাধ্যমে প্রতিরোধ করা সম্ভব।
১০ সেপ্টেম্বর বিশ্ব আত্মহত্যা প্রতিরোধ দিবস। আর এ দিবসে আত্মহত্যা প্রতিরোধে নানা ধরনের প্রচার-প্রচারণা ও আলোচনা করা হয়। সারা বিশ্বে মানুষের মৃত্যুর অন্যতম কারণ এ আত্মহত্যা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থারমতে প্রতি বছর প্রায় আট লাখ মানুষ আত্মহত্যা করে। আর এ কারণে প্রতি ৪০ সেকেন্ডে একজন করে মানুষ মারা যায়।
গ্রামাঞ্চলে নারীদের মাঝে প্রায়ই যৌতুকের কারণে আত্মহত্যাজনিত মৃত্যু দেখা যায়। আর এ মৃত্যুর হার কিছুটা সচেতন হলেই কমানো সম্ভব। এছাড়া আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার নজরদারি ও সঠিক বিচারের মাধ্যমেও এ ধরনের আত্মহত্যা প্রতিরোধ করা যায়।
আত্মহত্যার অন্যান্য কারণের মাঝে রয়েছে মানসিক উদ্বেগ, ব্যক্তিগত সমস্যা ও সিজোফ্রেনিয়ার মতো মানসিক রোগ।
আত্মহত্যার চেষ্টাকারী ব্যক্তিদের অনেক সময় প্রতিহত করা যায়। এক গবেষণায় দেখা যায় কেউ যখন আত্মহত্যার চেষ্টা করে তখন ৭১ শতাংশ ক্ষেত্রে আশপাশের মানুষের জানা থাকে না যে, এখন কি করা উচিত। আর এ কারণে প্রায়ই আত্মহত্যা প্রতিরোধ করা যায় না।
গবেষকরা বলছেন, আত্মহত্যার প্রবণতা যাদের মাঝে রয়েছে তাদের ৬৭ শতাংশ বড়ধরনের বিষণ্ণতাজনিত সমস্যায় ভোগেন। এছাড়া তাদের ৫৫ শতাংশ অ্যালকোহল ও অন্যান্য নেশায় আচ্ছন্ন থাকেন। ২৬ শতাংশ ক্ষেত্রে তাদের মানসিক সমস্যা দেখা যায়। এছাড়া ১২ শতাংশ ব্যক্তিদের উভয় সংকট ধরনের মানসিক সমস্যা, ৭ শতাংশ ক্ষেত্রে সিজোফ্রেনিয়ার লক্ষণ ও ২ শতাংশের ক্ষেত্রে খাওয়ার সমস্যা দেখা যায়।


মন্তব্য