kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বিশ্বকে পাল্টে দিতে পারে স্টার্টআপ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৭:২২



বিশ্বকে পাল্টে দিতে পারে স্টার্টআপ

প্রযুক্তিগত বিষয়ে দ্রুত পরিবর্তনশীল বিশ্বকে সামনে এগিয়ে নিতে পারে স্টার্টআপ। আর এটি এখন কোনো অবাস্তব কথা নয়।

কারণ সারা বিশ্বের প্রযুক্তি জগত এখন দ্রুত পরিবর্তিত হচ্ছে। এখানে নিত্যনতুন আইডিয়া নিয়ে দ্রুত সাফল্য লাভ করেছে বহু স্টার্টআপ প্রতিষ্ঠান। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে টাইমস অব ইন্ডিয়া।
তবে স্টার্টআপ গড়ে তোলা কিংবা তা এগিয়ে নিয়ে যাওয়া মোটেই সহজ কাজ নয়। যত দারুণ আইডিয়াই আপনার থাক না কেন, বাস্তব জগতে তা প্রয়োগ করতে গিয়ে নানা ধরনের প্রতিবন্ধকতা দেখা যায়। আর এ প্রতিবন্ধকতা এড়িয়ে যাওয়ার উপায়গুলোকে নিজের বইতে তুলেধরেছেন ভারতীয় লেখক সুভেন সিনহা। তিনি তার বই ‘টিপ অব দ্য আইসবার্গ’ সাজিয়েছেন স্টার্টআপ প্রতিষ্ঠানগুলোর সাফল্যলাভের নানা উপায়।
এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘যে কারো নিজের প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা কিংবা এ স্টার্টআপ বিপ্লবে নিজের আগ্রহ মেটাতে চাইলে বইটি পড়া উচিত। ’
প্রধানত ভারতীয় স্টার্টআপ বিষয়ে ২১ বছরের অভিজ্ঞ এ সাংবাদিকের লেখাটি। তবে যে কেউ এ থেকে উপকৃত হবেন বলে তার বিশ্বাস।
অনেকেরই ধারণা, স্টার্টআপ বিপ্লব শেষ। তবে এর সঙ্গে দ্বীমত পোষণ করেন সুভেন। তার মতে মানুষ সবেমাত্র বিশাল হিমবাহের একটি অংশ দেখেছে।
স্টার্টআপের বিনিয়োগের অর্থ পাওয়া যাবে কোথায়? এ প্রসঙ্গে সুভেন বলেন, স্টার্টআপের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নয় অর্থ। এখানে অর্থের চেয়ে বহু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় রয়েছে। সত্যিকার উদ্যোক্তারা এ সমস্যা সমাধানে তেমন কোনো অসুবিধায় পড়েন না। বহু ব্যক্তি বেতনভুক্ত জীবনযাপনের কারণে অবশ্য স্টার্টআপ গড়তে ভয় পান। তবে এ বিষয়টি মনে রাখা উচিত যে, সত্যিকার উদ্ভাবনী ক্ষমতার মাধ্যমে অর্থবহ কোনো বিষয় গড়তে পারলে অর্থ নিজেই আসবে। এজন্য বাড়তি চিন্তা করার প্রয়োজন হবে না।
স্টার্টআপ কিভাবে সফল হবে? এ প্রসঙ্গে কয়েকটি পরামর্শ দেন সুভেন। তিনি বলেন-
১. আপনি যদি বিষয়টিতে বিশ্বাস না করেন তাহলে তা করবেন না।
২. শুধু টাকার জন্য এটি করবেন না।
৩. গ্ল্যামার বা চাকচিক্য দেখানোর জন্য এটি করবেন না।
৪. আপনি এ কাজটি করবেন কারণ আপনি এটির জন্য হৃদয় থেকে টান অনুভব করেন। আপনি জানেন, এটি আপনার করতেই হবে। আপনি জানেন এটি কিভাবে করতে হবে। আর এ জ্ঞান আপনার অন্তরে কোনোভাবেই গোপন করে রাখতে পারেন না আপনি।
৫. আপনি বিষয়টিকে ভালোবাসেন। আর এ ভালোবাসার জন্যই বিষয়টি করবেন। আপনি যখন বিষয়টি বাস্তবতার নিরিখে করতে পারবেন তখন বিলিয়ন ডলার ব্যয়ের চেয়েও তা কার্যকর হবে।


মন্তব্য