kalerkantho


কালো ত্বকের যত্নে যা করতে হবে

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৪:৫৯



কালো ত্বকের যত্নে যা করতে হবে

সৌন্দর্যবর্ধক ক্রীমগুলো যত প্রতিশ্রুতিই দিক না কেন তাতে আসলে কিছুই যায় আসে না। একজন ব্যক্তিকে যা সুন্দর করে তোলে তা হলো একটি স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন এবং ইতিবাচক চেহারা ধরে রাখা। কালোও সুন্দর এবং ফর্সা ত্বকের মতোই এর যত্নও নিতে হয়।

বাংলাদেশসহ ভারত উপমহাদেশীয়দের একটি সাধারণ বিশ্বাস হলো ফর্সা মানেই সুন্দর। কিন্তু আমরা সকলেই কালো ত্বকের ধাঁধা সম্পর্কেও জানি। ঠিকমতো যত্ন নেওয়া হলে কালো ত্বকও ফর্সা ত্বকের আবেদনময়তা ও সৌন্দর্যকে টেক্কা দিতে সক্ষম।

কিন্তু দুঃখজনক হলো, আমরা ফর্সা ত্বক আর সৌন্দর্যকে এক করে দেখি। আমাদের কানের কাছে সারাক্ষণই এই ধারণাটি উচ্চারিত হয়। ফলে আমরা মনে এই বদ্ধমূল বিশ্বাস নিয়েই বড় হই, ফর্সা ত্বক মাত্রই সুন্দর।

কিন্তু সুন্দর শব্দটিকে শুধু ফর্সা ত্বকের সঙ্গে গুলিয়ে ফেললেই চলবে না। একজন মানুষ কালো বা ধূসর রংয়ের ত্বকের অধিকারী হয়েও সুন্দর হিসেবে গণ্য হতে পারেন। কিন্তু ফর্সা ত্বকের প্রতি আমাদের অন্ধ মোহ দেখে নিজেদেরকে এখন বারবার এই প্রশ্নটিই করা দরকার হয়ে পড়েছে, আমরা কি মানসিকভাবে এখনো ঔপনিবেশিক যুগেই আটকে আছি?

কালো ত্বকের জন্য ত্বকের যত্ন-শৃঙ্খলা কতটা জরুরি?
সবকিছুই আসলে ত্বকের যত্ন শৃঙ্খলার ওপর নির্ভর করে। আমাদের ত্বক আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ কর্মই সম্পাদন করে। কিন্তু বেশির ভাগ সময়ই আমরা ত্বকের সঠিক যত্ন নেই না।

ত্বকের একটি উত্তম যত্ন-শৃঙ্খলা শুরু হয় ত্বককে ভালো করে পরিষ্কারকরণ, বর্ণ ঠিক রাখা, আর্দ্রতা ধরে রাখা এবং সানস্ক্রিন বা সানব্লক ব্যবহারের মাধ্যমে সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মি থেকে রক্ষা করার মধ্য দিয়ে। ত্বকে কী ধরনের পণ্য ব্যবহার করতে হবে তা নির্ভর করে ব্যক্তি বিশেষের ত্বকের ধরনের ওপর।

সাধারণত বিশ্বাস করা হয়, আর্দ্রতা বাড়ানো বা তেল লাগানোর মাধ্যমে ত্বকের বর্ণ গাঢ় হয়। এটা কি সত্য? যদি সত্য না হয় তাহলে ঘোলাটে বর্ণের ত্বক সংবলিত মানুষদেরকে কী ধরনের ময়েশ্চারাইজার বা আর্দ্রতাবর্ধক ব্যবহারের পরামর্শ দিতে হবে?

ময়েশ্চারাইজার বা আর্দ্রতাবর্ধক প্রসাধনী পণ্য ত্বকের বর্ণ গাঢ় করে না। সব ধরনের ত্বকের যত্নেই এই প্রসাধনী পণ্যটির ব্যবহার জরুরি। ত্বকের বর্ণের ধরন নির্বিশেষে কারো ত্বক যদি শুষ্ক হয় তাহলেই তাকে ময়েশ্চারাইজার ভিত্তিক লো্শন ব্যবহার করতে হবে। আর কারো ত্বক যদি হয় তৈলাক্ত তাহলে তার জন্য তেল-মুক্ত ময়েশ্চারাইজার ব্যবহারের পরামর্শই সর্বোত্তম পরামর্শ।

কালো বর্ণের ত্বকের অধিকারীদের চুল রাঙাতে কোন রং?

এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে ভালো হবে :
উষ্ণ চকলেট শেড
সোনালি পীত বর্ণ
সূর্যের তাপে পোড়া স্বর্ণাভ ছায়া
শ্যাম বর্ণ
এসব বর্ণ ত্বকের সঙ্গে চুলের রঙের সমন্বয় সাধন করে কালোদের দেখতে আরো অসাধারণ করে তোলে।

কালো ত্বকের যত্নে নিয়মিত কর্মসুচি কী হতে পারে?
ত্বকের যত্নের রুটিনে কোনো ভিন্নতা নেই। ত্বকের বর্ণ নির্বিশেষে ভালো ত্বক পেতে বা ত্বক ভালো রাখতে ত্বকের যত্নের সার্বজনীন পদক্ষেপগুলোই- সিটিএম প্লাস এস ফর্মূলা অনুসরণ করতে হবে। এর মানে ক্লিনজিং বা পরিষ্কারকরণ, টোনিং বা বর্ণ ঠিক রাখা, ময়েশ্চারাইজিং বা আর্দ্রতা ধরে রাখা এবং সিকিউরিটি বা প্রতিরক্ষা নিশ্চিতকরণ।

ঘোলাটে বর্ণের অধীকারীদের ফাউন্ডেশন ব্যবহারে মানা আছে?
প্রতিদিনই ফাউন্ডেশন ব্যবহারে কোনো সমস্যা নেই। যদি সন্ধ্যায় তা মেক-আপ রিমুভার দিয়ে তুলে ফেলা হয়।

তবে সবচেয়ে বড় কথা হলো, স্বাস্থ্যকর জীবন-যাপন বা খাদ্যাভ্যাসে অভ্যস্ত না হলে যত পরিমাণ প্রসাধনীই ব্যবহার করা হোক না কেন তাতে কোনো লাভ নেই। জীবনের একটি ইতিবাচক বাইরের চেহারা অর্জন করুন এবং ত্বকের যত্নে একটি নিয়মিত শৃঙ্খলাবদ্ধ কর্মসুচি গ্রহণ করুন। এই সব কিছুই হাতে হাত ধরে চলে।
সূত্র : টাইমস অফ ইন্ডিয়া


মন্তব্য