kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


সতর্ক থাকুন রেস্তোরাঁতেও

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০১:২১



সতর্ক থাকুন রেস্তোরাঁতেও

রেস্তোরাঁয় ইটিং আউট এখন হট ফেভারিট। ছুটি পেলে রেস্তোরাঁয় গিয়ে মেনু দেখে খাবার অর্ডার তো দেন।

কিন্তু জানেন কি এমন খাবারও সেখানে পাওয়া যায় যেগুলো আদৌ স্বাস্থ্যসম্মত নয়। কর্মীরা ভাল করেই জানেন এই খাবারগুলোর কথা। তাঁদেরই পরামর্শ, এই খাবারগুলো এড়িয়ে যাওয়াই ভাল।

❏ ‌বরফ দেয়া সরবত:‌ অধিকাংশ জায়গাতেই বরফ ভালভাবে সংরক্ষণ করা হয় না। আইস মেকারগুলোও পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন নয়। কোনোটা সপ্তাহে একবার কোনোটা তাও নয়। বুঝতেই পারছেন। তাছাড়া বরফের পানিও ভাল থাকে না। অধিকাংশ জায়গাতেই আইস মেকার রাখা থাকে রান্না ঘরে। ফলে তেল মশলা ঢোকে ভেতরে।

❏ ‌ফল বা ফলের রস: প্রায়‌ কখনওই ফলগুলো ঠিকঠাক ধোওয়া হয় না। বা রেস্তোঁরার কর্মীরা খালি হাতে সেগুলো ধুয়ে ফেলেন। ফলত যা আপনি ভিটামিনের মত উপকারী ভেবে খাচ্ছেন তা আসলে নোংরা, জীবাণুর আখরা।

 ❏ ‌চিজ ডিপ:‌ শুনতে যতই ভাল হোক, খেতে ভাল হওয়ার জন্য তাতে ৯৫ শতাংশই মাখন মেশানো হয়। তাই একবার খেলে সারাদিনের ক্যালরি ঢুকে যাচ্ছে আপনার শরীরে। মোটা হওয়ার সমূহ সম্ভাবনা।

 ❏ চাহিদা নেই এমন পদ:‌ সব সময় জনপ্রিয় খাবার অর্ডার দিন। দেখা গিয়েছে যে খাবার ততটা জনপ্রিয় নয় সেগুলোর উপাদান সব সময় মজুত থাকে না। তাই যা পাওয়া যায় তাই দিয়েই বানানো হয় আপনার চাহিদার খাবার। অনেক সময় অবিক্রিত খাবার ফ্রিজ থেকে বার করে দেয়া হয়।

 ❏ তেল চপচপে চীনা খাবার:‌ চীনা খাবারে এমনিতেই মশলা বেশি থাকে। তাই খাবারের গুণাগুণ নিয়ে কেউ ভাবে না। কর্মীরাও মশলা দিতে যতটা সময় ব্যায় করেন ততটা যত্ন নিয়ে বানান না।

 ❏ রেস্তোরাঁ দেখে খাবার বাছবেন না:‌ একটি রেস্তোঁরায় একাধিক রাঁধুনি থাকেন। ফলে কোনোদিন খাবার ভাল হল। তো কোনও দিন একই পদ মুখে দেওয়া গেল না। ভাল হয় যদি আপনার সামনে রান্না করা হয়। ছোট কোনও রেস্তোরাঁয় খান। সেখানে একজন রাঁধুনি থাকে। খাবারের গুণমান ভাল হয়। ‌

সূত্র: ‌আজকাল


মন্তব্য