kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


নিজের বয়স কমিয়ে দিন দশ বছর!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৭:৫১



নিজের বয়স কমিয়ে দিন দশ বছর!

না, ঝাঁড়-ফুঁক, তাবিজ-কবচ কিংবা কোনো ম্যাজিক নয়। নিজের বয়স কমপক্ষে দশ বছর কম দেখানোর চাবিকাঠি আপনার হাতেই রয়েছে।

আবারও ভাবছেন কোনো বিশেষ চিকিৎসা কিংবা ক্রিম মাখানোর গল্প? একদমই নয়, বরং কিছু নিয়ম আছে যা মেনে চললে আপনার কমে যাবে দশ বছর। দেখে নিন কী কী করতে হবে:

ভাল এবং পর্যাপ্ত ঘুম

ইয়ং লুক পাওয়ার জন্য সবার আগে দরকার পর্যান্ত ঘুম। শরীর মন দুইই ভালো থাকে এতে। ঘুমাতে যাওয়ার ঘণ্টাখানেক আগে নিজের ফোন সুইচ অফ করে দিন। সুন্দর ঘুমের জন্য যেটা ভীষণ জরুরী। ৭-৮ ঘণ্টা টানা ঘুম দিন। ঘুমানোর আগে বই পরার অভ্যাস ভালো। এই নিয়ম না মানলে ডার্ক সার্কল তো হবেই উপরি হিসাবে বয়সের তুলনায় বেশি বয়স্ক লাগবে।

রাত জাগা কমান

খুব বেশি রাত জাগা ঠিক নয়। বিশেষ কারো জন্মদিন, নিউ ইয়ার কিংবা বন্ধুদের নিয়ে কোনো বিশেষ পার্টি ছাড়া রাত জাগা নয়। চিকিৎসকরা বছরে চারদিনের বেশি রাত জাগতে নিষেধ করেন।

সামাজিক হোন

সামাজিক সম্পর্কগুলো যত মজবুত থাকবে মনে ততটাই শান্তি আসবে। আর মনে যদি শান্তি থাকে তাহলে বয়সের তুলনায় আপনাকে তরুণ দেখাতে বাধ্য। তাই আত্মীয় স্বজন, প্রতিবেশী এবং বন্ধু বান্ধবের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখুন।

ব্রেকফাস্টে মিষ্টি

প্রাতঃরাশ না করা খুবই খারাপ অভ্যাস। আজই এই বদভ্যাস ছাড়ুন। সকালের ব্রেকফাস্টে নিজের পছন্দের কেক কিংবা পায়েস খেলে বয়সের তুলনায় অনেক কম দেখাবে। মনও থাকবে ইয়ং। তাই ছোটবেলার চকলেট, লাইমজুসকে ইয়েস বলুন। উল্লাস!

বেরি জাতীয় ফল

বেরিতে প্রচুর অ্যান্টি অক্সিডেন্ট থাকে যা আপনার ত্বকের বয়স কম রাখতে সাহায্য করে। তাছাড়া এই ফল খেলে প্রদাহ কমে। লো ক্যালোরি ও লো সুগার এই ফলটি আপনার মস্তিষ্ককেও স্বাস্থ্যকর রাখতে সাহায্য করে।

হেয়ারস্টাইল

নতুন নতুন হেয়ারস্টাইলে নিত্য নতুন লুক পাওয়া যায়। আর দেখতেও ভালো লাগে। আর নতুন করে তো বলে দিতে হবে না যে দেখতে ভালো লাগলে মনও থাকবে ভালো স্বাভাবিকভাবেই এক নিমেষে বয়স কমবে ১০ বছর!

গান শুনুন

গান শুনুন। মানুষের মনকে সুন্দর রাখতে গান অপরিহার্য। পছন্দ রক চিক গার্ল হোক বা রবীন্দ্রসঙ্গীত, ভালো গান শুনলে মনও ভালো থাকে। আর পছন্দের ট্র্যাক যখন কানে যায় তখন আপনি চোখ বুজলেই যৌবন কিংবা কৈশোরে ফিরে যেতে বাধ্য।

ব্যায়াম করুন

সাইক্লিং কিংবা বাইক রাইড করুন। কোনোকিছু সম্ভব না হলে স্কিপিং করুন। নিজেকে অনেক ইয়ং লাগবে। নিজের বাচ্চার বয়সে চলে গিয়ে তার সঙ্গে খেলাধুলা করতে পারেন। বয়স্ক ভাবলেই বয়স্ক না ভাবলে নয়। সব কিন্ত্ত মনের ব্যাপার।


মন্তব্য