kalerkantho


সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সাফল্যের নেপথ্যে 'সংযুক্ত থাকা'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩ এপ্রিল, ২০১৬ ১২:৩১



সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সাফল্যের নেপথ্যে 'সংযুক্ত থাকা'

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এখন বহু পেশাদারি সংস্থা বা ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের বিচরণক্ষেত্র। এসব ব্যবসায় অনেকেই রাতারাতি সাফল্য পেয়ে যান, অনেকে আবার তা একেবারেই পান না।

কিন্তু কী সেই জাদুমন্ত্র, যার বলে কেউ কেউ এতে রাতারাতি সাফল্য পেয়ে যান? এ বিষয়ে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মূল বিষয় হলো- সংযুক্ত থাকা। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে বিজনেস নিউজ ডেইলি।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আপনি যত বেশি অন্যদের সঙ্গে সক্রিয় থাকবেন ততিই তা ব্যবহারকারীদের সঙ্গে সম্পর্ক বৃদ্ধি করবে। এ বিষয়টি অনলাইন বিক্রেতাদের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। যতই সক্রিয় হওয়া যাবে ক্রেতারা ততই পণ্য কিনতে আগ্রহী হবে।

সম্প্রতি জার্নাল অব প্রমোশন ম্যানেজমেন্ট-এ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের এ বিষয়টি নিয়ে একটি গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। এতে উঠে এসেছে যেসব ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ক্রেতাদের সঙ্গে সব সময় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে যোগাযোগ রাখে, তথ্য ও প্রচারণামূলক নানা বিষয় অবহিত করে তারা ক্রেতাদের মনোযোগ আকর্ষণে সফল হয়।

গবেষণা প্রতিবেদনটির অন্যতম লেখক ও ডক্টরাল প্রার্থী হলি ওট। তিনি পেনসিলভানিয়া স্টেট ইউনিভার্সিটির গবেষক।

তিনি জানান, ক্রেতাদের সঙ্গে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের সম্পর্ক গড়ে তোলা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। প্রতিষ্ঠান যখন তাদের নানা বিষয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সরাসরি ক্রেতাদের অবহিত করে তখন তা তাদের মাঝে ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে। এতে তাদের মাঝে পণ্য কেনার ব্যাপারে ইতিবাচক প্রবণতা সৃষ্টি হয়।

তিনি আরও বলেন, 'যোগাযোগের মান মূলত তথ্য ব্যবহার করে সংযুক্ত থাকার বিষয়ে দৃষ্টিভঙ্গি তৈরি করে। এতে মানুষ কোনো একটি ব্র্যান্ডের বিষয়ে আগ্রহ তৈরি করে এবং সে ধরনের পণ্য কেনাকাটা করতে আগ্রহী করে তোলে। '

এ গবেষণার জন্য ১৩১ জন অংশগ্রহণকারী তাদের মতামত জানান। এ ছাড়া বিভিন্ন পণ্যের প্রেস রিলিজ ও ফেসবুকে সেসবের প্রচার-প্রচারণা বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করা হয়। গবেষকরা অংশগ্রহণকারীদের কয়েকটি ভাগে ভাগ করে নেন। এরপর ক্রেতাদের মাঝে তাদের কোনো পণ্যের প্রচার-প্রচারণার ভিত্তিতে উচ্চ, মধ্যম ও নিম্নমানের যোগাযোগের শ্রেণিতে ভাগ করা হয়। এরপর বিভিন্ন পণ্য বিষয়ে তাদের মতামত জানতে চাওয়া হয়।

গবেষকরা জানান, যেসব পণ্যের বিষয়ে ক্রেতাদের সঙ্গে বেশি যোগাযোগ করা হয় সেসব পণ্য বিষয়ে ক্রেতারা বেশিমাত্রায় আগ্রহী হয়ে ওঠে। এতে তারা পণ্যটি কেনার বিষয়েও আগ্রহী হয়ে ওঠে।

গবেষকরা ক্রেতাদের সঙ্গে বিক্রেতাদের অনলাইনে পারস্পরিক যোগাযোগের বিষয়টিও অনুসন্ধান করেন। এতে দেখা যায়, অনলাইনে প্রধান নির্বাহী অফিসার বা একজন শিক্ষানবিশ যখন ক্রেতাদের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ করেন তখন তারা প্রতিষ্ঠানটি বিষয়ে আগ্রহী হয়ে ওঠে। ফলে দেখা গেছে, কোনো প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে ব্যবহারকারীদের সঙ্গে যত বেশি যোগাযোগ করা হয় তারা তত বেশি প্রতিষ্ঠানটি সম্পর্কে আগ্রহী হয়ে ওঠে এবং প্রতিষ্ঠানের পণ্য ও সেবা কিনতে আগ্রহী হয়ে ওঠে।


মন্তব্য