kalerkantho


প্রথম দেখাকে স্মরণীয় করে রাখতে ৬ কাজ করুন

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৮ মার্চ, ২০১৬ ১৮:১১



প্রথম দেখাকে স্মরণীয় করে রাখতে ৬ কাজ করুন

কারো সঙ্গে দেখা হওয়ার বিষয়টিকে সবাই স্মরণীয় করে রাখতে চায়। এ স্মরণীয় করে রাখার বিষয়টি সহজ কাজ না হলেও কিছু পদক্ষেপ গ্রহণে তা সহজ করে তোলা যায়।

এ লেখায় রয়েছে তেমন কয়েকটি উপায়। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে বিজনেস ইনসাইডার।
১. কতাবার্তায় বিচক্ষণ হোন
অন্য মানুষের কথা শুধু শুনলেই হবে না, নিজের বিচক্ষণ মতামতও প্রকাশ করতে হবে। এক্ষেত্রে আপনাকে যেন বোকা না দেখায় সেজন্য যথাযথ প্রস্তুতি নিন। বোকার মতো কথা কিংবা বোকার মতো প্রশ্ন করবেন না। বিচক্ষণতা প্রয়োগ করুন।
২. ব্যতিক্রমী বক্তব্য দিন
অনেকেই প্রথম দিকের কোনো মিটিংয়ে বিতর্কিত কথা বলেন না। এটি প্রথমেই শুরু করলে তা অন্যদের মাঝে বিরূপ প্রতিক্রিয়া তৈরি করে। তবে বিতর্ক এড়াতে চাইলে কাউকে আঘাত না দিয়ে নিজের বক্তব্য প্রকাশ করুন। এতে কারো প্রতি আঘাত না দিয়েও ব্যতিক্রমী বক্তব্যের মাধ্যমে মনোযোগ আকর্ষণ করতে পারেন। মানুষ স্পষ্ট বক্তব্য কিংবা অনেকের প্রতি কিছুটা অস্বস্তিকর বিষয় প্রকাশ করলে আপনাকে মনে রাখবে।
৩. কিছুটা অসাধারণ হোন
আমরা একটি নির্দিষ্ট সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলে বাস করি। সাস্কৃতিক এসব বিষয়ে আমরা যেমনটা দেখে অভ্যস্ত, তেমনটা সবার মনে থাকার সম্ভাবনা কম। কিন্তু আপনি যদি তাতে কিছুটা ব্যতিক্রমী বেশভূষা তুলে ধরতে পারেন তাহলে তা অন্যদের মনে রাখায় সহায়ক হতে পারে। যেমন ব্যতিক্রমী বেশভূষা কিংবা ব্যতিক্রমী বক্তব্য প্রদান। এক্ষেত্রে আপনার পরিচয় দেওয়ার কথা বললে যদি কিছুটা রসবোধের সঙ্গে তা দেওয়া যায় তাহলে তা যথেষ্ট কার্যকর হতে পারে।
৪. দেহের ভাষায় আত্মবিশ্বাসী
আত্মবিশ্বাস অন্যদের মাঝে আপনার উপস্থিতি জানান দেবে। এটি আপনার দেহের ভাষায় প্রকাশিত হতে পারে। এক্ষেত্রে দাঁড়ানোর ভঙ্গি, হাত মেলানো, কথাবার্তা, চোখের দিকে তাকানো ইত্যাদি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এ বিষয়গুলো অনুশীলনের মাধ্যমে রপ্ত করতে হয়।
৫. আবেগ প্রকাশ করুন
আপনার স্বাভাবিক কথাবার্তা অনেকেরই মনে থাকবে না। কিন্তু আপনি যদি আবেগ দিয়ে সে কথাগুলোই বলতে পারেন, তাহলে তা তাদের মনের মাঝে গেঁথে যাবে। কাউকে আপনার সম্পর্কে গভীরভাবে পরিচয় করানোর জন্য তাই আবেগকে মুক্ত করে দিন। স্বাভাবিক কথাবার্তায় কিভাবে আবেগ সঞ্চারিত করবেন? এক্ষেত্রে অন্যকে হাসানো যেতে পারে দারুণ কোনো ঘটনা প্রকাশ করে। এছাড়া বিপদ সম্পর্কে জানিয়ে দেওয়া, ভুল করলে সেজন্য দুঃখ প্রকাশ করা, কারো ইগোতে আঘাত করা কিংবা কারো প্রতি সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেওয়া হতে পারে বড় একটি উদাহরণ।
৬. ভালো শ্রোতা হোন
কারো সঙ্গে পরিচিত হওয়ার পর যদি আপনি শুধু কথা বলতে থাকেন তাহলে তা মোটেই আপনার আকর্ষণ বাড়াবে না। এ কারণে ভালো শ্রোতাও হয়ে উঠতে হবে। তার কথার সঠিক প্রসঙ্গটি বুঝতে হবে এবং সে অনুযায়ী যথাযথ প্রত্যুত্তর দিতে হবে। মনোযোগী শ্রোতা না হলে এ বিষয়টি অসম্ভব।

 


মন্তব্য