kalerkantho


সেক্স থেরাপিস্টরা যে ছয় অভিযোগ সব সময় শোনেন

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৯ মার্চ, ২০১৬ ১৩:১৮



সেক্স থেরাপিস্টরা যে ছয় অভিযোগ সব সময় শোনেন

যৌন বিষয়ে বহু সমস্যার সমাধান করতে পারেন সেক্স থেরাপিস্টরা। সম্প্রতি একজন সেক্স থেরাপিস্ট সেলেস্টি হির্শম্যান তার অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেন এ বিষয়ে। এ লেখায় রয়েছে তার যেসব প্রশ্ন শুনতে হয় সেগুলোর কিছু সমাধান। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে হাফিংটন পোস্ট।
১. আমি আবার যৌনতার জন্য সবকিছু করতে চাইলেও যৌনতার কোনো তাগিদ পাই না।
এ বিষয়টি বহু বিবাহিত নারীই বলেন যে, তিনি আবার যৌনতার জন্য সবকিছু করতে চান। তবে তিনি আর যৌনতার তাগিদ পান না। এ সমস্যাটির মূলে রয়েছে যৌনতার সংজ্ঞা। অনেকেই শুধু ‘ইন্টারকোর্স’কে যৌনতা বলে স্বীকার করলেও অন্য কোনো বিষয়কে যৌনতা বলে মনে করেন না। এ ক্ষেত্রে যৌনতার সংজ্ঞা বদলাতে হবে। যৌনতায় কোনো নির্দিষ্ট লক্ষ্য থাকা উচিত নয়। তার বদলে নানা যৌন কর্মকাণ্ড একত্রে যৌনতার তৃপ্তি দিতে পারে, যা অনুশীলন করা উচিত।
২. আমাদের যৌনতাহীন বিয়ের কারণে ভিন্ন মানুষের সঙ্গে সম্পর্ক তৈরি হচ্ছে।
বহু দম্পতিই অভিযোগ করেন যে, তাদের বিবাহিত সম্পর্কে যৌনতার বিষয়টি একেবারেই অনুপস্থিত। এ কারণে তারা ভিন্ন মানুষের সঙ্গে সম্পর্ক গড়তে আগ্রহী হয়ে উঠছেন। যদিও এ বিষয়টি একেবারেই অনাকাঙ্ক্ষিত। এ ক্ষেত্রে দম্পতিদের মাঝে বিশ্বাস, সততা ও সম্পর্ক গড়ে তোলা প্রয়োজন। এ জন্য ভালোবাসার গুরুত্ব ফেলে দেওয়া যায় না। একে অন্যকে বোঝার মাধ্যমেই সমস্যাটির সমাধান সম্ভব।
৩. আমার স্বামী বিছানায় বেশিক্ষণ সবল থাকেন না
বহু নারীই অভিযোগ করেন তার স্বামী বেশিক্ষণ যৌনতায় সবল থাকেন না। অনেকেই খুব তাড়াতাড়ি বীর্যপাতের সমস্যায় ভোগেন। এতে মানসিকভাবে অনেকেই ভেঙে পড়েন। যদিও পুরুষের দিক থেকে এ বিষয়টি আদতে বড় কোনো সমস্যাই নয়। যৌনতা যেমন শুধু নির্দিষ্ট একটি আচরণ নয় তেমন দ্রুত বীর্যপাতও কোনো বড় সমস্যা নয়। তবে নারীর তৃপ্তি না হলে তা সমস্যা হিসেবে গণ্য হতে পারে। এ ক্ষেত্রে নারীর অর্গাজমকে যদি গুরুত্ব দেওয়া যায় তাহলে সমস্যাটির সমাধান করা সম্ভব। নারীর অর্গাজমের জন্য ভ্যাজাইনাল যৌনতার তুলনায় ক্লাইটোরাল যৌনতা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। এ ক্ষেত্রে তাই ভ্যাজাইনাল যৌনতা শুরুর আগে বেশ কিছুক্ষণ ফোরপ্লে ও ক্লাইটোরাল যৌনতা করার পরামর্শ দেওয়া হয়।
৪. যৌনতা ক্রমে একঘেয়ে হয়ে উঠেছে
হানিমুনের সময়ে আপনার সঙ্গীর সঙ্গে আপনি যেভাবে যৌনতায় লিপ্ত হতে পারতেন, তা আর কখনোই ফেরত পাবেন না। কিন্তু আপনি মানসম্মত যৌনতার বিষয়ে আরও এগিয়ে যেতে পারবেন। এতে যৌনতা তার চেয়েও ভালো হতে পারে। এ জন্য আপনাদের দুজনকেই একত্রে চেষ্টা করতে হবে। দুজনের নিবিঢ় যোগাযোগ ও প্রচেষ্টায় একঘেয়েমি কাটিয়ে তোলা সম্ভব হবে।
৫. আমি সঙ্গীর সঙ্গে যৌনতায় সংযুক্ত বলে মনে করি না।
অনেক দম্পতিই অভিযোগ করেন একে অন্যের সঙ্গে যৌনতার ক্ষেত্রে যে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ, তা আর হয়ে উঠছে না। বহু সপ্তাহ ধরেই অনেকের যৌন সম্পর্ক দায়সারা গোছের হয়ে পড়ে। এ ছাড়া অনেকের যৌন সম্পর্কও থাকে না বললেও চলে। এ ক্ষেত্রে উভয়ের যৌনতায় সঠিকভাবে আগ্রহ ও প্রচেষ্টা থাকা প্রয়োজন। শারীরিক ও মানসিকভাবে যৌনতার জন্য প্রস্তুত হতে হবে। একে অপরকে স্পর্শের মাধ্যমে যৌনতায় আগ্রহ ছড়িয়ে দিতে হবে।
৬. ব্যস্ততার কারণে যৌনতার সময় পাই না।
বহু দম্পতিই নাগরিক জীবনের নানা ব্যস্ততার কারণে যৌনতার সময় পান না বলে অভিযোগ করেন। এ ক্ষেত্রে যৌনতার সময়ের তুলনায় আগ্রহ কমে যাওয়াকেই মূল কারণ বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। যৌনতাকে যদি শুধু ২০ মিনিটের একটি কর্মকাণ্ড বলে মনে করেন এবং তার বাইরের জীবনকে স্বাভাবিক বলে ধরে নেন তাহলেই এমনটা হতে পারে। এ কারণে বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দিচ্ছেন, শুধু যৌনতার জন্য যৌনতা নয়, আরও কিছু বিষয়কে বিবেচনা করা উচিত। দম্পতিদের মাঝে অন্যান্য বিষয়েও আগ্রহী হয়ে উঠতে হবে। একে অপরের সঙ্গে মানসিকভাবে কাছাকাছি থাকতে হবে। এ ছাড়া ব্যস্ততা বাদ দিয়ে ভালো থাকার জন্য কিছু সময় বরাদ্দ করতে হবে। এ সময়ে একে অপরকে সময় দেওয়া, স্পর্শ, চুম্বন, আলিঙ্গন, সংগীত, নৃত্য ইত্যাদি বিষয়েও গুরুত্ব দেওয়া উচিত।


মন্তব্য