kalerkantho


আপনার পেশা কী বিবাহিত জীবন নষ্ট করছে? ১৩ লক্ষণে বুঝে নিন

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৪ মার্চ, ২০১৬ ১৮:২৬



আপনার পেশা কী বিবাহিত জীবন নষ্ট করছে? ১৩ লক্ষণে বুঝে নিন

পেশাগত জীবন বহু মানুষের ব্যক্তিগত জীবনে সমস্যা সৃষ্টি করে। আপনার পেশা কী ব্যক্তিগত জীবনে সমস্যা সৃষ্টি করেছে বা প্রচণ্ড চাপ তৈরি করছে? এক্ষেত্রে কিছু লক্ষণ দেখে বিষয়টি নির্ণয় করুন। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে ইন্ডিপেনডেন্ট।
১. বিবাহিত জীবনের সম্পর্কের চেয়েও আপনি কর্মক্ষেত্রকে বেশি গুরুত্ব দেন
আপনি যদি বিবাহিত জীবনের সম্পর্কের চেয়েও আপনি কর্মক্ষেত্রকে বেশি গুরুত্ব দেন তাহলে এ সমস্যা হতে পারে। এক্ষেত্রে যে কোনো ব্যক্তিগত বিষয়ের তুলনায় গুরুত্বের বিচারে আপনি যদি পারিবারিক বিষয়কে পেছনে রাখেন তাহলে বুঝতে হবে এক্ষেত্রে আপনার ব্যক্তিগত জীবনে ব্যাঘাত সৃষ্টি করছে পেশাগত জীবন।
২. কর্মক্ষেত্র থেকে ফিরে অতিরিক্ত ক্লান্তিতে সঙ্গীকে সময় দেওয়ায় ব্যাঘাত
আপনি যদি কর্মক্ষেত্র থেকে ফিরে অতিরিক্ত ক্লান্তিতে সঙ্গীকে সময় দেওয়ায় সমস্যার মুখোমুখি হন তাহলে বুঝতে হবে, কর্মক্ষেত্রে আপনার চাপ অনেক বেশি। আর এতে আপনার ব্যক্তিগত জীবনেও সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে।
৩. সঙ্গী যখন ক্যারিয়ার থেরাপিস্ট
আপনার সঙ্গী যখন আপনার ক্যারিয়ারের নানা সমস্যা নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়ে তখন তা কোনো একটি সমস্যা হচ্ছে বলে ধারণা করা যায়।
৪. কাজ ছাড়া অন্য কোনো কথা নেই
আপনি যদি সব সময় কাজের কথা বলেন এবং কাজ ছাড়া অন্য কোনো কথা খুঁজে না পান তাহলে বুঝতে হবে আপনি কাজ নিয়ে অতিরিক্ত ব্যস্ত। এটিই আপনার সমগ্র চিন্তাভাবনা দখল করে নিয়েছে।
৫. কাজের কারণে সামাজিকতায় বিঘ্ন
আপনি যদি কাজের কারণে নানাভাবে সামাজিক অনুষ্ঠান পালনে বিঘ্নের দেখা পান তাহলে বুঝতে হবে আপনি পেশাগত কারণে অতিরিক্ত ব্যস্ত। আর এতে আপনার সামাজিকতাও সমস্যার সম্মুখিন।
৬. জীবনযাপন সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলে আপনার সঙ্গী নিরব থাকেন
আপনাদের জীবনযাপন সম্পর্কে কেউ জিজ্ঞাসা করলে আপনার সঙ্গী কি নিরব থাকেন? এর অর্থ আপনার সব উদ্যম কর্মস্থলেই শেষ হয়ে যায় এবং সঙ্গীকে আপনি সময় দিতে পারেন না।
৭. প্রায়ই কথা-কাটাকাটি
আপনি কি ইদানিং প্রচণ্ড খিটখিটে মেজাজের হয়ে গিয়েছেন? সঙ্গীর সঙ্গে প্রায়ই কি কথা-কাটাকাটি হয়? এ বিষয়টি প্রায় সব কর্মক্ষেত্রে ব্যস্ত বা কাজপাগল মানুষ করে থাকেন।
৮. আপনার সঙ্গীর শারীরিক ভাষা রক্ষণাত্মক
আপনার সঙ্গী যখন আপনার কর্মক্ষেত্রে বাড়তি সময় দেওয়া ও অন্যান্য কারণে হতাশ হয়ে পড়েন তখন তা আপনার শারীরিক ভাষাতেও প্রকাশ পায়।
৯. নিত্যনতুন বিষয়ে তর্ক
আপনার ব্যক্তিগত জীবন যদি ভালো না যায়, সঙ্গীর সঙ্গে যদি প্রায়ই নিত্যনতুন বিষয়ে তর্ক-বিতর্ক লেগে থাকে তাহলে বুঝতে হবে আপনি পারিবারিক জীবনে উদাসীন। এক্ষেত্রে সম্ভাবনা রয়েছে যে, কর্মক্ষেত্র আপনার সব উদ্যম শেষ করছে।
১০. আপনি সঙ্গীর প্রতি উদাসীন
আপনার জীবনসঙ্গী যদি অভিযোগ করে যে, আপনি তাকে সময় দিচ্ছেন না এবং তার প্রতি উদাসীন রয়েছেন তাহলে বুঝতে হবে কর্মক্ষেত্রের কারণেও এমনটা হতে পারে।
১১. অসামাজিক হয়ে ওঠা
আপনি যদি সামাজিক বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যোগদান থেকে বিরত থাকেন এবং ক্রমে সম্পূর্ণ সময় কর্মক্ষেত্রে দিয়ে দেন তাহলে তা আপনার সামাজিক জীবনে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করবে।
১২. কাজের কারণে পরিবারের জন্য সময় না পাওয়া
আপনি যদি কাজের কারণে পরিবারের দিকে দৃষ্টি দিতে না পারেন তাহলে তা সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। এটি হতে পারে আপনার কাজের ক্ষেত্রে অতিরিক্ত সময় দেওয়ার প্রমাণ।
১৩. কর্মক্ষেত্রে আটকে যাওয়ার গল্প নিয়মিত বলা
অতিরিক্ত কর্মব্যস্ত অনেকেরই কর্মক্ষেত্রে আটকে যাওয়ার গল্প নিয়মিত বলার বিষয়টি সাধারণ হয়ে উঠতে পারে। এ বিষয়টি থেকে বাড়তি কাজের চাপে বিবাহিত জীবনে সমস্যার আঁচ পাওয়া যায়।


মন্তব্য