kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


মানুষের বুদ্ধি-বিবেচনাহীন আচরণ সামলাতে...

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৭ মার্চ, ২০১৬ ১৭:২৮



মানুষের বুদ্ধি-বিবেচনাহীন আচরণ সামলাতে...

ব্যবসা করতে গেলে আপনার বহু চরিত্রের মানুষের সঙ্গে পরিচয় ঘটবে আপনার। এদের কেউ দারুণ উচ্চাকাঙ্ক্ষী।

আবার কেউ বা বিভিন্ন ক্ষেত্রে পরিবর্তন ঘটাতে এসেছেন। এদের সঙ্গে সখ্যতা করে আপনি নিজের লক্ষ্য পূরণে এগিয়ে যেতে পারেন। আবার অনেক ক্ষেত্রে যোগ্য মানুষগুলো মাঝেও যুক্তিহীন ও বাস্তববুদ্ধি বিবর্জিত আচরণ করেন। এদের মানিয়ে নিয়ে কাজ চালিয়ে যাওয়া সহজ কথা নয়। তবে মানিয়ে নেওয়া যায়। পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।

১. সমবেদনা জানান : সবার আগে মনে রাখতে হবে, আপনিসহ সবাই মাঝে মাঝে যুক্তিহীন আচরণ করেন। এ ধরনের আচরণের পেছনে নানা ধরনের বাস্তবিক প্রভাবক কাজ করে। মানসিক চাপের মাঝে মানুষ প্রায়ই অদ্ভুত আচরণ করে। ব্যক্তিগত, পেশাগত এবং নানা কারণে এমনটা হওয়া স্বাভাবিক। এ ক্ষেত্রে অসংলগ্ন আচরণ করা মানুষটির প্রতি সমবেদনা প্রকাশ করতে হবে। একমাত্র সমবেদনা প্রকাশের মাধ্যমে পরিস্থিতি পুরো পাল্টে দেওয়া যায়। অন্যের আবেগকে মূল্য দিতে হবে। হয়তো তারা একটা খারাপ সময় পাড় করছেন। কারো প্ররোচণায় হয়তো ভুল পথে পরিচালিত হয়েছেন। এ ধরনের মানুষদের দূরে ঠেলে না দিয়ে সমব্যথী হোন। তারা হয়তো এমন অস্বস্তিকর অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসতে সংগ্রাম করে যাচ্ছেন। কাজেই আপনি সহযোগী হওয়ার চেষ্টা করুন।

২. মূল কারণ খুঁজুন : এমন আচরণ দেখে যে কাউকে 'পাগল' বা 'ফালতু' বলে মন্তব্য করা হয়। কিন্তু এসব আচরণ ধারাবাহিক নয়। এতে জোয়ার ভাটা আসে। একেক পরিস্থিতিতে একেক মানুষ ভিন্ন ভিন্ন অনুভূতি পান। তবে অন্য মানুষের মধ্যে এমন আচরণের কারণ খুঁজে বের করা জরুরি বিষয়। এটি বুঝতে নিজের জীবনের অভিজ্ঞতা ঘাঁটতে পারেন। তাহলে অপরেরটা সহজেই বুঝতে পারবেন। যদি পারেন তবে তার কাছে আপনি বিশ্বস্ত হয়ে উঠবেন। যদি প্রতিষ্ঠানের কোনো কর্মীর মধ্যে এমন আচরণ দেখা গেলে সমাধানে সমস্যা চিহ্নিত করতে হবে। বুদ্ধি-বিবেচনাহীন মানুষের মতো আচরণের পেছনে নির্দিষ্ট কিছু কারণ কাজ করে। একে সহজ করে দিন। যদি আগেই বুঝতে পারেন তবে সমস্যায় পড়ার আগেই তাকে রক্ষা করতে পারবেন।

৩. সহজ হোন এবং যোগাযোগ স্থাপন করুন : এ ধরনের মানুষকে সামলাতে কথা-বার্তায় বিপরীতমুখী হলে চলবে না। তার চিন্তার সঙ্গে মিশে যান। তার এলোমেলো চিন্তার ভুলগুলো খুব দ্রুত ধরিয়ে দিলে তিনি বুঝতে পারবেন না। তাই ধীরে ধীরে তাকে বোঝানোর চেষ্টা করুন। তার মুখ থেকে অযৌক্তিক কথা বেরোবে। একে কঠোরভাবে প্রতিহত করতে যাবেন না। তার সঙ্গে আলাপচারিতায় আপনাকে জয়ী হতে হবে না। সহমর্মিতা ও সহযোগিতার সঙ্গে তার প্রতি খোলামেলা হয়ে উঠুন। তাহলে সহজেই অর্থপূর্ণ যোগাযোগ স্থাপন হবে এবং তাকে পরিস্থিতি থেকে বের করে আনতে পারবেন। সূত্র : ফোর্বস

 


মন্তব্য