মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বাড়াতে...-333198 | জীবনযাপন | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

শুক্রবার । ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১৫ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৭ জিলহজ ১৪৩৭


মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বাড়াতে...

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৭ মার্চ, ২০১৬ ১৪:৩৯



মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বাড়াতে...

ছোটবেলা থেকেই বৃদ্ধ বয়স পর্যন্ত মানুষের মস্তিষ্ক ক্রমাগত পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যায়। অল্প বয়সে শিশুর যেমন মস্তিষ্ক গঠিত হতে থাকে তেমন বৃদ্ধ বয়সে মস্তিষ্ক ক্ষয়প্রাপ্ত হতে থাকে। তবে এ পরিবর্তনকে মানিয়ে নিয়েই মস্তিষ্কের উন্নতি করার জন্য কিছু কৌশল প্রয়োগ করা যায়। এ লেখায় রয়েছে তেমন তিনটি উপায়। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক।
১. নতুন বিষয় শিখুন
ম্যাসাচুসেটস ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজির সিনিয়র লেকচারার ও লেখক টারা সোয়ার্ট। তিনি ‘নিউরোসায়েন্স ফর লিডারশিপ’ বইয়েরও লেখক। সে বইতে তিনি তুলে ধরেছেন যে, মানুষের মস্তিষ্ক প্রধানত অলস। যে কোনো কাজের ক্ষেত্রেই মস্তিষ্ক সবচেয়ে সহজ উপায়ে তার সমাধান করতে চায়। কিন্তু নিত্যনতুন কাজ করার মাধ্যমে মস্তিষ্কের এ আলসেমিকে নিয়ন্ত্রণ করা যায়। নিত্যনতুন বিষয়ের পেছনে মস্তিষ্ককে কাজ করতে হয় এবং তাতে কার্যক্ষমতাও বেড়ে যায়।
নতুন কোন বিষয় শেখা যায়? এ প্রসঙ্গে সোয়ার্ট বলেন, নতুন ভাষা শেখা হতে পারে একটি ভালো উপায়। এছাড়া সঙ্গীতের বাদ্যযন্ত্র ব্যবহার শেখাও যথেষ্ট কার্যকর। এক্ষেত্রে প্রধান বিষয় হলো সিদ্ধান্ত নেওয়া, জটিল সমস্যার সমাধান, স্মৃতিতে ধারণ করা, নীতি নির্ধারণ করা, নিজের মতামত জানানো, আবেগ নিয়ন্ত্রণ ও উদ্যম দিয়ে একটি কাজ করা।
২. আন্তরিকভাবে ধ্যান করা
ফোর্বসের এক নিবন্ধে রিচার্ড ডেভিডসন ধ্যানের মাধ্যমে নিজের সচেতনতা বৃদ্ধির উপায় তুলে ধরেছেন। ডেভিডসন ‘ইমোশনাল লাইফ অব ইওর ব্রেন’ বইয়ের লেখক। তিনি বলেন মস্তিষ্কের কার্যক্রম বাড়ানোর জন্য ধ্যান হতে পারে একটি দারুণ উপায়। এজন্য আপনার একটি ভালো সময় বেছে নিতে হবে, যে সময়ে আপনি সচেতন ও জেগে থাকবেন। এরপর সোজা হয়ে বসে নিজের শ্বাস-প্রশ্বাসের দিকে লক্ষ্য রাখবেন এবং তা দেহে কীভাবে কাজ করছে তা অনুভব করবেন। যখনই আপনি বিক্ষিপ্ত হয়ে যাবেন তখনই এ কাজটি করবেন।
৩. হাতের কাজে মন দিন
আপনি হয়ত চিন্তা করবেন যে, একসঙ্গে বহু কাজ আপনার উৎপাদনশীলতা বাড়াবে। কিন্তু বাস্তবে বিষয়টি সত্য নয়। বিভিন্ন গবেষণাতেও দেখা গেছে, একসঙ্গে একাধিক কাজ আপনার উৎপাদনশীলতা কমিয়ে দেয়। এর মূল কারণ মস্তিষ্কের নিয়ন্ত্রণের বিষয়টি যেখানে হয় সেখানেই একাধিক বিষয় একসঙ্গে চালানো যায় না। ডানা ফাউন্ডেশনের বই ‘ব্রেইন ফিটনেস’-এ বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে। সেখানে জানানো হয়েছে, মাল্টিটাস্কিং তথ্য-প্রক্রিয়াজাত করার ক্ষেত্রে ‘বটলনেক’ তৈরি করে। এতে বাস্তবে মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা কমে যায় এবং নতুন বিষয় শেখার ব্যবস্থায় বাধা দেয়। এ কারণে হাতের কাজটি শেষ করাতেই সবচেয়ে গুরুত্ব দেওয়ার কথা বলেন বিশেষজ্ঞরা। একটি একটি করে কাজ শেষ করা উচিত। একসঙ্গে একাধিক কাজ করতে গেলে তা গণ্ডগোল সৃষ্টি করে এবং মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতাও কমিয়ে দেয়।

মন্তব্য