kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


সঙ্গী বাছাইয়ে যে মিলটি সবার আগে দেখা উচিত

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৬ মার্চ, ২০১৬ ১৫:২৫



সঙ্গী বাছাইয়ে যে মিলটি সবার আগে দেখা উচিত

একজন ব্যক্তি অন্য একজন ব্যক্তিকে তার জীবনসঙ্গী হিসেবে নির্বাচন করার সময় কোন বিষয়টি আকর্ষণ করে? অর্থ, সম্পদ, সৌন্দর্য কিংবা যৌন আকর্ষণ? গবেষক ও মনোবিদ পিটার পিয়ারসন বলছেন, এসব নয় বরং সম্পূর্ণ ভিন্ন একটি বিষয় সঙ্গী নির্বাচনে গুরুত্ব বহন করে। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে ইনডিপেনডেন্ট।

টেক ইনসাইডারে ড. পিয়ারসন এক সাক্ষাৎকারে বলেন, সম্পর্ক গড়ার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো আপনার যে মূল্যবোধ, তা সঙ্গীর সঙ্গে মেলে কি না, এটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

আপনি একজন ব্যক্তির প্রেমে পড়তে পারেন হরমোনজনিত আকর্ষণে। তার শারীরিক আকর্ষণ এক পর্যায়ে তাকে সবচেয়ে আকর্ষণীয় মানুষে পরিণত করতে পারে। কিন্তু এ সবই অস্থায়ী। আপনার সঙ্গে যদি তার মূল্যবোধ না মেলে তাহলে ভালোবাসা এক পর্যায়ে ফিকে হয়ে যেতে পারে।

আপনার সঙ্গীর সঙ্গে আপনার যতই অন্তরঙ্গতা থাক না কেন, তা স্থায়ী নাও হতে পারে যদি না আপনাদের মাঝে মূল্যবোধ একধরনের বা কাছাকাছি হয়।

আপনার সঙ্গীর সঙ্গে আপনার একই ধরনের আগ্রহ থাকতে পারে। আপনাদের একই ধরনের শখ থাকতে পারে। এগুলো কিছু ক্ষেত্রে উভয়ের সঙ্গী হওয়ার জন্য গুরুত্ব বহন করতে পারে। আপনাদের টিভি দেখার কিংবা রোমান্সের ধাঁচও ভিন্ন ধরনের হতে পারে। যেমন টিভি খুলে আপনার কমেডি দেখতে ভালো লাগলেও আপনার সঙ্গীর হরর মুভি দেখতে ভালো লাগতে পারে। এর পরেও আপনারা একত্রিত হতে পারবেন একে অন্যকে কিছুটা ছাড় দিলেই। কিন্তু মূল্যবোধ?

আপনার মূল্যবোধ যদি সঙ্গীর তুলনায় ভিন্ন ধরনের হয় তাহলে বিষয়টি সত্যিই সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে বলে মনে করেন মনোবিদ ড. পিয়ারসন। কী ধরনের সমস্যা? এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ধরুন আপনি অর্থ উপার্জনের জন্য অত্যন্ত আগ্রহী এবং অর্থই আপনার ধ্যানজ্ঞান। অন্যদিকে আপনার সঙ্গী টাকা-পয়সা নিয়ে মোটেই ভাবতে আগ্রহী নয়। এটি সত্যিই একটি বড় পার্থক্য।

ড. পিয়ারসন আরও জানান, জীবনের কিছু মূল্যবোধ রয়েছে, যা একে অন্যের সঙ্গে ছাড় দিয়ে পারা যায় না। সঙ্গী বাছাইয়ের ক্ষেত্রে এটি একটি বড় বিষয় হিসেবে ধরা উচিত বলেও মনে করেন তিনি।


মন্তব্য