kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


যান্ত্রিকতা মুক্ত হয়ে ২৪ ঘণ্টায় করুন ২৪ কাজ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৫ মার্চ, ২০১৬ ১৮:২৪



যান্ত্রিকতা মুক্ত হয়ে ২৪ ঘণ্টায় করুন ২৪ কাজ

অনলাইন কিংবা বিভিন্ন প্রযুক্তিপণ্যের ব্যবহারে আমাদের ব্যক্তিগত জীবন যেন যান্ত্রিক হয়ে উঠেছে। আর এ যান্ত্রিকতা মুক্ত হওয়ার একটি উপায় হলো ২৪ ঘণ্টা সময় সম্পূর্ণভাবে প্রযুক্তিপণ্য ব্যবহার বাদ দিয়ে।

এ লেখায় রয়েছে তেমন ২৪টি কাজ। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে হাফিংটন পোস্ট।
১. একটু হেঁটে আসুন
হাঁটা স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। এছাড়া এটি সময় কাটানোর জন্য একটি ভালো উপায়। সবচেয়ে ভালো হয় প্রাকৃতিক কোনো পরিবেশের মধ্য দিয়ে হেঁটে আসলে।
২. পোষা প্রাণীর সঙ্গে খেলুন
পোষা প্রাণী অনাবিল আনন্দের উৎস। আপনার যদি কোনো পোষা প্রাণী থাকে তাহলে তাকে সময় দিন। তার সঙ্গে খেলুন। এতে মন ও শরীর উভয়ই ভালো হবে।
৩. অতীত পর্যালোচনা করুন
আপনার পুরনো স্মৃতিময় যেসব বস্তু রয়েছে সেগুলো নিয়ে কিছু সময় কাটান। পুরনো মোবাইল ফোন, ছবির অ্যালবাম, ক্যামেরা ইত্যাদি হতে পারে সেই স্মৃতিময় বস্তু।
৪. স্বেচ্ছাশ্রম
অপরের জন্য বিনা পরিশ্রমে কিছু করতে পারার মধ্যে নির্মল আনন্দ রয়েছে। আপনার এলাকার পাঠাগার, ক্লাব কিংবা জনকল্যাণমূলক কোনো কাজে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিন।
৫. একসঙ্গে খাবার খান
আপনার প্রিয় কোনো মানুষকে নিমন্ত্রণ করুন। দুজন একসঙ্গে খাবার খান এবং নির্মল সময় অতিবাহিত করুন।
৬. শারীরিক অনুশীলন
সুস্থ দেহ মানে সুস্থ মন। আর শরীর সুস্থ রাখার জন্য প্রয়োজন শারীরিক অনুশীলন। এজন্য শারীরিক অনুশীলনের নতুন কোনো ক্লাসে ভর্তি হন কিংবা অন্য কোনো উপায়ে অনুশীলন শুরু করুন।
৭. লিখুন
আপনার আশপাশের সাধারণ সব ঘটনার মাঝেও থাকতে পারে অসাধারণ বহু বিষয়। এসব বিষয় তুলে রাখুন আপনার খাতায়। এটি নেতিবাচক হলেও ক্ষতি নেই। গবেষকরা জানাচ্ছেন নেতিবাচক বিষয় খাতায় তুলে রাখা হলে তা মন পরিষ্কার করে।
৮. জাদুঘর ভ্রমণ
জাদুঘরে গিয়ে ইতিহাসের নানা বিষয় জেনে নিন। এতে আপনার শেখা যেমন হবে তেমন আয়ুও বাড়বে।
৯. নাচুন
নাচ আপনার শুধু মনই ভালো করবে না, এতে শরীরও সুস্থ থাকবে। তাই সুস্থ শরীর ও মনের জন্য একটু নেচে নিন।
১০. ধ্যান করুন
ধ্যান মানসিক চাপ কমানো ও মস্তিষ্ককে ইতিবাচক ভাবধারায় চালিত করার অত্যন্ত ভালো উপায়। নিয়মিত ধ্যান করলে আপনার মানসিকতায় যুগান্তকারী পরিবর্তন চলে আসবে।
১১. রং করুন
ছবি আঁকা কিংবা রংপেন্সিল নিয়ে নানা ধরনের নকশা করা শুধু শিশুদের কাজই নয়, বড়রাও এটি করতে পারে। এর ফলে মানসিক চাপ কমে এবং সৃজনশীলতাও বাড়ে।
১২. রান্না করুন
রান্না করার মাঝে রয়েছে ধৈর্য ও চ্যালেঞ্জ। নিত্যনতুন রেসিপি থেকে রান্না করে নতুন খাবারের স্বাদ অনুসন্ধান করা যায়।
১৩. বেড়াতে যান
দূরে কোথাও ঘুরে আসার মাঝে রয়েছে দারুণ আনন্দ। প্রিয়জনকে সঙ্গে নিয়ে গ্যাজেটবিহীন সময়ে ঘুরে আসুন দূর কোনো স্থান থেকে।
১৪. মানুষ পর্যবেক্ষণ করুন
আপনি হয়ত জানেনও না যে, আপনার চারপাশে কত বৈচিত্রময় মানুষ রয়েছে। ধৈর্য ধরে কিছুক্ষণ মানুষ পর্যবেক্ষণ করলেই বিষয়টি বুঝতে পারবেন।
১৫. ছুটির পরিকল্পনা করুন
আপনার কোনো বন্ধু দূরের কোনো শহরে থাকে? তার কাছে বেড়াতে যাওয়ার পরিকল্পনা করুন। কোথায় যাবেন, কোথায় থাকবেন, কিভাবে ঘুরবেন ইত্যাদি বিশদ পরিকল্পনাতেও সময় কেটে যাবে দারুণভাবে।
১৬. যোগাসন
শরীর ও মনের দারুণ ব্যায়াম হতে পারে যোগাসনের মাধ্যমে। এটি আপনার দেহ ও মনকে সুস্থ রাখতে সহায়তা করবে।
১৭. বই পড়ুন
বই পড়ার মাধ্যমে যেমন জ্ঞান অর্জন করা যায় তেমন অসাধারণ আনন্দও পাওয়া যায়। তাই সময়টি পরিপূর্ণ করে তুলুন বই পড়ে।
১৮. ঘুমের সময় ঠিক করুন
আপনার ঘুমের সময়টিকে আনন্দময় করে তুলতে কিছুটা রদবদল করুন। বালিশ, বিছানা ও অন্যান্য বিষয়গুলো যেন আরামদায়ক হয় সেজন্য নজর দিন।
১৯. সেলাই করুন
আপনার কোনো শার্টের ছেঁড়া বোতামটি নিজেই লাগিয়ে নিন। এছাড়া পুরনো কিংবা নতুন কোনো কাপড়কে নিজেই সেলাই করে ব্যবহার উপযোগী করুন।
২০. খেলুন
কম্পিউটার কিংবা স্মার্টফোনের গেমসের কথা ভুলে যান। ফুটবল, ক্রিকেট কিংবা ব্যাডমিন্টনের মতো সত্যিকার খেলাধুলা করুন।
২১. সূর্যাস্ত দেখুন
সূর্যাস্তের অসম্ভব সুন্দর দৃশ্য প্রত্যক্ষ করুন। এটি আপনার মনের মাঝে ইতিবাচক পরিবর্তন আনবে।
২২. পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা
বাড়ির কাপড়-চোপড় ও অন্যান্য জিনিসপত্র পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন করুন। এতে যেমন সময় কাটবে তেমন ভালো থাকাও হবে।
২৩. নতুন ভাষা শিখুন
নিত্য-নতুন বিষয় শেখার মাঝে দারুণ রোমাঞ্চ রয়েছে। এক্ষেত্রে ভাষা শেখা হতে পারে অসাধারণ একটি উদ্যোগ।
২৪. ঘুমান
কোনো নির্দিষ্ট সময়ে ওঠার বিষয়টি ভুলে গিয়ে টেনশন মুক্ত হয়ে ঘুমানোর তুলনা হয় না। মোবাইল ফোন ও অন্যান্য যন্ত্রপাতি বন্ধ করে আরাম করে ঘুমিয়ে আপনার দীর্ঘদিনের জমানো ক্লান্তি দূর করা সম্ভব।


মন্তব্য