kalerkantho

অনলাইনে পণ্য ক্রয় ও ক্রেতাস্বার্থ

১০ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাংলাদেশে এখন জমজমাট অনলাইন ব্যবসা চালু হয়েছে। অনলাইন স্টোরগুলো নিজেরা কোনো পণ্য উৎপাদন করে না। বিভিন্ন পণ্য বিক্রেতার পণ্যের বিজ্ঞাপন তারা ফেসবুকসহ নানা মিডিয়ায় প্রচার করছে। ‘বেস্ট কাস্টমার সার্ভিস’, ‘জেনুইন প্রডাক্টস’, ‘১০০% ট্রাস্টেড অনলাইন শপ’, ‘ইজি রিটার্নস’ ইত্যাদি মনলোভা বিজ্ঞাপন প্রচার করে তারা ক্রেতাদের আকৃষ্ট করছে। কিন্তু এই অনলাইন স্টোরগুলো আদৌ কি ক্রেতাস্বার্থ দেখছে? অনেক ক্ষেত্রেই ক্রেতা তাদের দ্বারা প্রতারিত হচ্ছে। এভাবে একজন প্রতারিত হওয়া ক্রেতা জানে না যে কার বিরুদ্ধে এবং কোথায় অভিযোগ করবে—পণ্য সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে, না যে অনলাইন স্টোর পণ্যটি বাজারজাত করছে তার বিরুদ্ধে? কারণ ক্রেতা এ ক্ষেত্রে শুধু প্রতিষ্ঠান দুটির নামই জানে। প্রতিষ্ঠান দুটি যারা চালাচ্ছে সেই ব্যক্তিদের নাম-ঠিকানা ক্রেতা জানতে পারছে না। তারা নানাভাবে গ্রাহকদের সঙ্গে প্রতারণা করে। স্থানীয়ভাবে খোঁজখবর নিয়ে জানলাম, অনলাইন স্টোরগুলো অহরহই এ ধরনের ঘটনা ঘটাচ্ছে। কিন্তু ঠকে যাওয়া ক্রেতা জানে না এসব ক্ষেত্রে তারা কোন কর্তৃপক্ষের কাছে কিভাবে অভিযোগ জানাবে। আর তার প্রতিকারই বা কী পাবে? এসব জানা না থাকায় ৭০০, এক হাজার বা দুই হাজার টাকার জন্য কেউই কোথাও অভিযোগ করতে যায় না। যার কারণে অনেক অনলাইন স্টোরকে এ ধরনের প্রতারণাপূর্ণ পণ্য বিক্রয়ে উৎসাহিত করছে। খোলা অর্থনীতি, বাজার অর্থনীতির নামে অনলাইন স্টোরগুলোর একেবারেই লাগাম ছেড়ে দিয়ে রাখাটা কি রাষ্ট্রের ঠিক হয়েছে? জনস্বার্থে অনলাইন স্টোরগুলোর ক্রেতা ঠকানো ব্যবসার অবিলম্বে লাগাম টানা জরুরি বলে মনে হয়।

আনিস-উল-হক

সৈয়দপুর, নীলফামারী।

মন্তব্য