kalerkantho


একটি মানবিক আবেদন

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০



একটি মানবিক আবেদন

সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা চাকরি থেকে অবসরগ্রহণ করার পর পেনশন প্রাপ্ত হন। পেনশন ভোগরত অবস্থায় কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারী মৃত্যুবরণ করলে তাঁর বিধবা স্ত্রী পারিবারিক পেনশনের দাবিদার হন। কিন্তু ওই বিধবাকে পারিবারিক পেনশন পেতে অমানবিক, অবর্ণনীয় ভোগান্তি, হয়রানি ও কষ্টের সম্মুখীন হতে হয়। তাঁকে ডজনখানেক সনদপত্র ও অঙ্গীকারনামা জমা দিতে হয়। ওই সব অঙ্গীকারনামা এবং সনদপত্র জোগাড় করতে, পারিবারিক পেনশন মঞ্জুর করাতে বিভিন্ন ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান এবং অফিসে, এমনকি এক শহর থেকে অন্য শহরে দৌড়াদৌড়ি করতে হয়। একেক জায়গায় কয় দিন, কয়বার ঘুরতে হয় তার কোনো শেষ নেই। এ অবস্থায় যাতে পারিবারিক পেনশন দাবিকারিণী মৃত পেনশনভোগীর স্ত্রী, তিনি আবার বিয়ে করেননি এবং পেনশনভোগী মৃত্যু সনদ পেশ করা সাপেক্ষে যে হিসাবরক্ষণ অফিস বা ব্যাংক থেকে মৃত পেনশনভোগী পেনশন নিতেন, সেই হিসাবরক্ষণ অফিস বা ব্যাংক থেকেই পারিবারিক পেনশন মঞ্জুর এবং পেনশন প্রদানের ব্যবস্থা করে বিধবাদের মর্মান্তিক, দুর্বিষহ, অবর্ণনীয় ভোগান্তি, হয়রানি ও কষ্টের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য কাজী রিয়াজুল হক, চেয়ারম্যান, জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের নেক দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। উল্লেখ্য, এ ব্যাপারে সরকারের এক পয়সাও খরচ হবে না। শুধু প্রয়োজন সহৃদয়, সহানুভূতি ও কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা।

মো. আবুল হোসেন, মোহাম্মদপুর, ঢাকা।



মন্তব্য