kalerkantho


কেন্দ্রের সিদ্ধান্তই মেনে নেবে সবাই

এম এ সালাম, সভাপতি, জেলা বিএনপি

১৮ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০



কেন্দ্রের সিদ্ধান্তই মেনে নেবে সবাই

কালের কণ্ঠ : আগামী সংসদ নির্বাচনে আপনাদের দলীয় প্রস্তুতি কেমন?

এম এ সালাম : একাদশ সংসদ নির্বাচনের জন্য বাগেরহাট জেলা বিএনপি শতভাগ প্রস্তুত। হামলা-মামলার ভয়ে অসংখ্য নেতাকর্মী বাড়িঘর ছাড়া। নির্বাচনের এক মাস আগেও যদি নেতাকর্মীরা বাড়ি ফিরে আসতে পারে তবে নির্বাচনে জয়ের ব্যাপারে আমরা নিশ্চিত। দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে মুক্ত করেই আমরা নির্বাচনে অংশ নেব।

 

কালের কণ্ঠ : নির্বাচনের আগে খালেদা জিয়া যদি মুক্তি না পান সে ক্ষেত্রে আপনারা কী করবেন?

এম এ সালাম : খালেদা জিয়াকে জেলখানায় রেখে বিএনপি নির্বাচনে যাবে কি না, এ বিষয়ে দলীয় হাইকমান্ড সিদ্ধান্ত নেবে। মূলত নির্বাচনে যাওয়া না যাওয়ার বিষয়ে চেয়ারপারসনের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত। এ ব্যাপারে চেয়ারপারসন দিকনির্দেশনা দেবেন।

 

কালের কণ্ঠ : বিএনপির সাংগঠনিক অবস্থা কেমন?

এম এ সালাম : বাগেরহাটে বিএনপি সুসংগঠিত। জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন এবং ওয়ার্ড পর্যায়ে কমিটি গঠন করা হয়েছে। শাসক দল এবং পুলিশের বাধার কারণে আমরা সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড চালাতে পারছি না। বাগেরহাটে সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড চালানোর মতো পরিবেশ নেই। পুলিশের হয়রানি আর মিথ্যা মামলার ভয়ে নেতাকর্মীরা বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশীরা এলাকায় গণসংযোগ করলেও বিএনপির নেতারা বাড়িছাড়া।

 

কালের কণ্ঠ : বাগেরহাটে আপনাদের শরিক দলকে কোনো আসন দেওয়া হবে কি?

এম এ সালাম : বাগেরহাটের চারটি আসনেই বিএনপি প্রার্থীরা যাতে মনোনয়ন পান সে জন্য জেলাপর্যায়ে আমাদের প্রস্তুতি রয়েছে। কেন্দ্র থেকেই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত আসবে।

 

কালের কণ্ঠ : জামায়াতের সঙ্গে জোটবদ্ধ হলে আপনাদের ভূমিকা কী হবে?

এম এ সালাম : জামায়াতের সঙ্গে জোটবদ্ধ হবে কি না, জানি না। জামায়াত ছাড়া নির্বাচন করলে কোনো অসুবিধা নেই। এমনিতেই বিএনপি বিজয়ী হবে। আর জামায়াত জোটে থাকলে ভোটের সংখ্যা আরো বাড়বে।

 

কালের কণ্ঠ : ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ের পর নির্বাচনে আপনাদের দলের ওপর কোনো প্রভাব পড়বে কি?

এম এ সালাম : মিথ্যা সাজা দেওয়া হয়েছে। দেশের মানুষ জানে কারা গ্রেনেড হামলা চালিয়েছে। ওই রায়কে কেন্দ্র করে নির্বাচনে আমাদের দলের ওপর কোনো প্রভাব পড়বে না।

 

কালের কণ্ঠ : বাগেরহাটের চারটি আসনে আপনাদের দলীয় প্রার্থী চূড়ান্ত হয়েছে কি?

এম এ সালাম : এখন পর্যন্ত কোনো আসনেই প্রার্থী চূড়ান্ত হয়নি। কেন্দ্র থেকেই প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে।

 

কালের কণ্ঠ : মানুষ বিএনপিকে ভোট দেবে কেন?

এম এ সালাম : বিএনপির সময় দেশে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। আর আওয়ামী লীগের উন্নয়নের নামে চলছে লুটপাট। বিএনপি সফলভাবে রাষ্ট্র পরিচালনা করেছে। দেশের মানুষ বিএনপিকেই ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবে।

 

কালের কণ্ঠ : কোন শ্রেণি-পেশার মানুষের ভোট বেশি আশা করেন?

এম এ সালাম : সব শ্রেণি-পেশার মানুষ বিএনপিকে ভোট দেবে। যারা কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যুক্ত নয়, এমন মানুষের ভোট বেশি পাবে বিএনপি।

 

কালের কণ্ঠ : একাদশ সংসদ নির্বাচনে আপনারা বিজয়ের ব্যাপারে কতটা আশাবাদী?

এম এ সালাম : নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে শতকরা ৬০ থেকে ৭০ ভাগ ভোট বিএনপির প্রার্থীরা পাবেন। বাগেরহাটের চারটি আসনেই বিএনপি প্রার্থীরা জয়ী হবেন বলে প্রত্যাশা করি।

 

 



মন্তব্য