kalerkantho


দলের সবাই নৌকার পক্ষে কাজ করবে

ডা. মোজাম্মেল হোসেন, সভাপতি, জেলা আওয়ামী লীগ

১৮ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০



দলের সবাই নৌকার পক্ষে কাজ করবে

কালের কণ্ঠ : আগামী সংসদ নির্বাচনে আপনাদের দলের প্রস্তুতি কেমন?

মোজাম্মেল হোসেন : জেলার চারটি সংসদীয় আসনেই নির্বাচনী প্রস্তুতি শুরু হয়েছে আগে থেকেই। জেলা থেকে শুরু করে উপজেলা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ে কমিটি গঠন করা হয়েছে। দলের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের মধ্যে নির্বাচনী আমেজ বইতে শুরু করেছে। আমরা নির্বাচনের জন্য সম্পূর্ণ প্রস্তুত।

 

কালের কণ্ঠ : বাগেরহাটের চারটি আসনে আপনাদের দলের প্রার্থী চূড়ান্ত হয়েছে কি?

মোজাম্মেল হোসেন : বাগেরহাট-১ ও বাগেরহাট-৩ আসনে দলীয় প্রার্থী চূড়ান্ত হয়েছে। বাগেরহাট-২ আসনে প্রার্থী প্রায় চূড়ান্ত। আর বাগেরহাট-৪ আসনে এখনো প্রার্থী চূড়ান্ত হয়নি।

 

কালের কণ্ঠ : ভোটারদের জন্য আপনাদের দলের কোনো বার্তা আছে কি?

মোজাম্মেল হোসেন : আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব অক্ষুণ্ন থাকবে। ভালো থাকবে দেশের মানুষ। আর একমাত্র শেখ হাসিনাই পারবেন দেশের মানুষের ভাগ্যের উন্নয়ন ঘটাতে।

 

কালের কণ্ঠ : ভোটাররা আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে কেন ভোট দেবে?

মোজাম্মেল হোসেন : আওয়ামী লীগের দুই মেয়াদের শাসনামলে দেশে সর্বক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। দেশ এখন উন্নয়নের মহাসড়কে। স্বাধীনতা-পরবর্তী সরকারগুলো ক্ষমতায় এসে যা উন্নয়ন করেছে তার চেয়ে অনেক বেশি উন্নয়ন হয়েছে আওয়ামী লীগের এই দুই মেয়াদে। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলেই দেশের উন্নয়ন হয় এবং মানুষের ভাগ্যের চাকা ঘোরে। এ কারণে আওয়ামী লীগের প্রতি দেশের জনগণের আস্থা বেশি। উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে দেশের মানুষ আবারও আওয়ামী লীগকে ভোট দিয়ে ক্ষমতায় আনবে বলে বিশ্বাস করি।

 

কালের কণ্ঠ : গত নির্বাচনের ইশতেহার কতটুকু বাস্তবায়িত হয়েছে?

মোজাম্মেল হোসেন : বাগেরহাটের চারটি আসনের সংসদ সদস্যরা গত নির্বাচনে যে ইশতেহার দিয়েছেন তার বেশির ভাগ বাস্তবায়ন করেছেন। কোনো কোনো এলাকায় ইশতেহারের চেয়ে অনেক বেশি উন্নয়ন হয়েছে।

 

কালের কণ্ঠ : নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগের মধ্যে কোনো বিভক্তি আছে কি?

মোজাম্মেল হোসেন : আস্থার ঘাটতি থাকতে পারে; কিন্তু কোনো ধরনের বিভক্তি নেই। জেলায় আওয়ামী লীগ ঐক্যবদ্ধ।

 

কালের কণ্ঠ : বিভিন্ন আসনে আওয়ামী লীগের একাধিক মনোনয়নপ্রত্যাশীর বিষয়টি দল কিভাবে দেখছে?

মোজাম্মেল হোসেন : আওয়ামী লীগ দেশের প্রাচীনতম বড় রাজনৈতিক দল। এ কারণে নেতাদের প্রত্যাশাও অনেক বেশি। যেকোনো নেতা দলের কাছে মনোনয়ন প্রত্যাশা করতে পারেন। মনোনয়ন চূড়ান্ত হওয়ার আগ পর্যন্ত প্রচার-প্রচারণা চালাতে বাধা নেই। মনোনয়ন চূড়ান্ত হলে সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করতে কাজ করবে।

 

কালের কণ্ঠ : মহাজোটের শরিকদের বাগেরহাটে কোনো আসন দেওয়া হবে কি?

মোজাম্মেল হোসেন : বর্তমানে বাগেরহাটে আওয়ামী লীগের কর্মী-সমর্থক অন্য যেকোনো সময়ের চেয়ে অনেক বেশি। মানুষ আওয়ামী লীগের ওপর বেশি আস্থা রাখে। শরিকদের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার মতো তেমন কোনো প্রার্থী তৈরি হয়নি।

 

কালের কণ্ঠ : আগামী সংসদ নির্বাচনে বিজয়ের ব্যাপারে আপনি কতটা আশাবাদী?

মোজাম্মেল হোসেন : বাগেরহাটের চারটি সংসদীয় আসনে শতকরা ৬০ থেকে ৭০ ভাগ ভোট বেড়েছে আওয়ামী লীগের। বাগেরহাট এখন আওয়ামী লীগের ঘাঁটি। সব শ্রেণি-পেশার ভোটাররা আওয়ামী লীগকেই চায়। এ কারণে আগামী সংসদ নির্বাচনে বাগেরহাটের চারটি আসন থেকেই আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের বিজয়ী হওয়ার ব্যাপারে আমি শতভাগ আশাবাদী।

 



মন্তব্য