kalerkantho


তিন দেশে গাড়ি চলাচল

ঢাকার বাস যাচ্ছে কাঠমাণ্ডু

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:০০



ঢাকার বাস যাচ্ছে কাঠমাণ্ডু

বাংলাদেশ, ভারত ও নেপালের মধ্যে বাস চলাচলের প্রক্রিয়া শুরু হচ্ছে। এরই অংশ হিসেবে বাংলাদেশ থেকে হিমালয়কন্যা নেপালের উদ্দেশে বাস যাচ্ছে আজ সোমবার। ঢাকা থেকে শ্যামলী এনআর ট্রাভেলসের একটি বাস নেপালের কাঠমাণ্ডু গিয়ে পৌঁছাবে। বাসটির প্রথম যাত্রায় যাচ্ছেন বাংলাদেশ, ভারত ও নেপালের সরকারি প্রতিনিধিদল ও দাতা সংস্থা এডিবির সদস্যরা। প্রতিনিধিদল ঢাকা-কাঠমাণ্ডুর এক হাজার ১০০ কিলোমিটার সড়কপথ পরিদর্শন করবে।

২৭ এপ্রিল প্রতিনিধিরা নেপালের রাজধানী কাঠমাণ্ডুতে ত্রিদেশীয় বৈঠক করবেন। সেখানে বাস চলাচল, ভিসা প্রক্রিয়াসহ সব কিছু আলোচনার পর চুক্তি স্বাক্ষরের কথা রয়েছে। বাস অপারেটর শ্যামলী এনআর ট্রাভেলস সূত্র জানায়, ঢাকা থেকে কাঠমাণ্ডু পৌঁছতে ৩০ ঘণ্টার মতো সময় লাগতে পারে।

বিআরটিসি চেয়ারম্যান ফরিদ আহমদ ভূঁইয়া জানান, নেপালের উদ্দেশে প্রথম বাস যাত্রার ট্রায়াল রান শুরু হবে আজ। শ্যামলী এনআর ট্রাভেলসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শুভঙ্কর ঘোষ রাকেশ বলেন, প্রথমবারের মতো হুন্দাই বিলাসবহুল বাস ভারত হয়ে নেপাল যাচ্ছে। এ দেশের পরিবহন খাতের জন্য এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা।

বিআরটিসি ও বাস অপারেটর সূত্র জানায়, আজ সকাল ৮টায় কমলাপুর আন্তর্জাতিক বাস টার্মিনালে একটি অনুষ্ঠানের মাধ্যমে শ্যামলী এনআর ট্রাভেলসের দুটি বাস যাত্রা শুরু করবে। হুন্দাই কম্পানির প্রতিটি বাসে ২৮টি আসন রয়েছে। আজ রাতে রংপুরে রাত যাপন করবেন বাসযাত্রীরা। আগামীকাল সকালে বাংলাবান্ধা সীমান্তপথে শিলিগুড়ি ঢুকবে বাস। এদিন রাতে শিলিগুড়ি অবস্থান করবে প্রতিনিধিদল। পরের দিন ২৫ এপ্রিল সকালে নেপালের কাঁকরভিটায় ঢুকবে বাস। এরপর নেপালের নারায়ণঘাটে রাত যাপন করবে প্রতিনিধিদল। ২৬ এপ্রিল সকালে নারায়ণঘাট থেকে কাঠমাণ্ডুর পথে রওনা হবে বাসটি।

ঢাকা থেকে বাংলাবান্ধার দূরত্ব প্রায় ৪৫০ কিলোমিটার। বাংলাবান্ধা থেকে নেপালের কাঁকরভিটা স্থলবন্দরের দূরত্ব মাত্র ৫৪ কিলোমিটার। কাঁকরভিটা থেকে কাঠমাণ্ডুর দূরত্ব প্রায় ৬০০ কিলোমিটার। এর মধ্যে ২২০ কিলোমিটার পাহাড়ি খাড়া রাস্তা। সব মিলিয়ে ঢাকা থেকে কাঠমাণ্ডু এক হাজার ১০৪ কিলোমিটার সড়কপথ।

 



মন্তব্য