kalerkantho


হাইকোর্টে রিট, রুল জারি

অপরাধে আটক শিশুর ছবি-তথ্য প্রকাশ নয়

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



অপরাধে আটক শিশুর ছবি-তথ্য প্রকাশ নয়

কোনো অপরাধে আটক শিশুর ছবি বা তথ্য যাতে গণমাধ্যম বা অন্য কোনো মাধ্যমে প্রকাশ না হয় তার নির্দেশনা চেয়ে রিট আবেদন করা হয়েছে। এই রিট আবেদনে ছবি বা তথ্য প্রকাশের ক্ষেত্রে ২০১৩ সালের শিশু আইনের অস্পষ্টতা দূর করে গেজেট প্রকাশের কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে অস্পষ্টতা দূর করতে বিবাদীদের নিষ্ক্রিয়তা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না তাও জানতে চাওয়া হয়েছে।

হাইকোর্টের একটি দ্বৈত বেঞ্চ গতকাল সোমবার এ রুল জারি করেন। মন্ত্রিপরিষদসচিব, আইনসচিব, স্বরাষ্ট্রসচিব, সমাজকল্যাণসচিব, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব এবং প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যানকে দুই সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

জনস্বার্থে সুপ্রিম কোর্টের তিন আইনজীবী কামাল হোসেন মিয়াজী, আশফাকুর রহমান ও মোহাম্মদ মিফতাউল আলমের করা এক রিট আবেদনে এ আদেশ দেওয়া হয়। আদালতে রিট আবেদনকারীর পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার হাসান এম এস আজিম। প্রশ্নপত্র ফাঁসের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে চট্টগ্রামে আটক কয়েকজন শিশুর (১৮ বছরের কম বয়স) ছবি একটি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত হয়। এ প্রতিবেদন যুক্ত করে রিট আবেদন করা হয়।

ব্যারিস্টার হাসান এম এস আজীম সাংবাদিকদের বলেন, ‘২০১৩ সালের শিশু আইনের ৮১ ধারায় বলা আছে, মামলা হওয়া বা বিচার কার্যক্রম চলাকালে শিশুকে শনাক্ত করা যায় এমন ছবি বা তথ্য প্রকাশ করা যাবে না। কিন্তু মামলার আগে কী হবে সেটা আইনে বলা নেই। তাই এ বিষয়ে অস্পষ্টতা দূর করতে এ রিট আবেদন করা হয়েছে। আমরা চাই, শিশুকে শনাক্ত করা যায় এমন তথ্য বা ছবি মামলার আগে বা পরে কোনোভাবেই যেন প্রকাশ করা না হয়।’

তিনি বলেন, শিশু আইনের ৮১(১) নম্বর ধারায় বলা হয়েছে, ‘এই আইনের অধীন বিচারাধীন কোন মামলা বা বিচার কার্যক্রম সম্পর্কে প্রিন্ট বা ইলেকট্রনিক মাধ্যম অথবা ইন্টারনেটের মাধ্যমে কোন শিশুর স্বার্থের পরিপন্থী এমন কোন প্রতিবেদন, ছবি বা তথ্য প্রকাশ করা যাইবে না, যাহার দ্বারা শিশুটিকে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে শনাক্ত করা যায়।’

তিনি বলেন, “আইনের অস্পষ্টতা দূর করার ক্ষেত্রে সরকারকে গেজেট জারির ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে একই আইনের ৯৭ ধারায় বলা হয়েছে, ‘এই আইনের কোন বিধান কার্যকর করিবার ক্ষেত্রে কোন অস্পষ্টতা দেখা দিলে সরকার, সরকারি গেজেটে প্রজ্ঞাপন দ্বারা, এই আইনের বিধানাবলরী সহিত সঙ্গতিপূর্ণ হওয়া সাপেক্ষে, উক্তরূপ অস্পষ্টতা দূর করিতে পারিবে।’ কিন্তু সরকার এই অস্পষ্টতা দূর করার ক্ষেত্রে কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছে না। ফলে শিশুদের ছবি গণমাধ্যমে প্রকাশিত হচ্ছে। সম্প্রতি চট্টগ্রামে একটি ঘটনায় শিশুদের ছবি প্রকাশ করা হয়। এতে শিশুরা হেয় হয়েছে বলে মনে করি। এর ফলে ওই সব শিশু মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়েছে। এ কারণে রিট আবেদন করা হয়েছে।”


মন্তব্য