kalerkantho


সিইসি বললেন

সব দলকে নির্বাচনে আনতে আর উদ্যোগ নয়

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি   

৯ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



সব দলকে নির্বাচনে আনতে আর উদ্যোগ নয়

ফাইল ছবি

সব রাজনৈতিক দলকে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আনার ব্যাপারে নতুন করে কোনো উদ্যোগ নেওয়া হবে না বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা। গতকাল বৃহস্পতিবার ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের হলরুমে আইন-শৃঙ্খলা সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান। ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ (নাসিরনগর) আসনের উপনির্বাচন উপলক্ষে জেলা নির্বাচন কমিশনের উদ্যোগে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

গত ১৬ ডিসেম্বর মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী মোহাম্মদ ছায়েদুল হকের মৃত্যুতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ আসনটি শূন্য হয়। আগামী ১৩ মার্চ এই আসনে উপনির্বাচন হওয়ার কথা রয়েছে।

সিইসি নুরুল হুদা বলেন, ‘আমরা সব সময়ই চাই সকল দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করুক। সংলাপের সময় সকলের সাথে কথা হয়েছে। প্রত্যেকটা দলকেই তখন নির্বাচনে অংশগ্রহণের আহ্বান করা হয়েছে। তাই নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণের বিষয়ে নতুনভাবে আমরা আর কিছু করব না।’

প্রসঙ্গত, গত বছর ৩১ জুলাই নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনার মধ্য দিয়ে ইসির সংলাপ শুরু হয়। এরপর একে একে গণমাধ্যম প্রতিনিধি, ৪০টি রাজনৈতিক দল, নির্বাচন পর্যবেক্ষক, নারী নেত্রী, সাবেক সিইসি, ইসি ও সাবেক সচিবদের সঙ্গে সংলাপ করে কমিশন।

আরেক প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, ‘আমাদের নির্বাচন কমিশন দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে প্রতিটি নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য হয়েছে। আপনারাও (সাংবাদিক) কেউ কখনো আমাদের নির্বাচনের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন করেননি, প্রশ্ন করার সুযোগও ছিল না। তেমনিভাবে নাসিরনগরে আসন্ন উপনির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে।’ নাসিরনগরে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করে নুরুল হুদা বলেন, এখানে শান্তিপূর্ণ নির্বাচন করতে সকল কাজ ইতিমধ্যেই সম্পন্ন হয়েছে। সংখ্যালঘুরা যেন নির্বিঘ্নে ভোটকেন্দ্রে যেতে পারে সে ব্যবস্থাও নেওয়া হচ্ছে।

নির্বাচন কমিশনের প্রতি জাতীয় পার্টির আস্থা নেই—দলটির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের এমন বক্তব্যের বিষয়ে জানতে চাইলে সিইসি বলেন, ‘নিরপেক্ষভাবে এবং নিষ্ঠার সঙ্গে আমরা আমাদের দায়িত্ব-কর্তব্য পালন করে যাচ্ছি। আমরা নিরপেক্ষভাবে কাজ করছি। তিনি (এরশাদ) কেন এমন কথা বলেছেন, তার উত্তর তিনিই দিতে পারবেন।’

গত বুধবার এরশাদ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে জাতীয় পার্টির কর্মী সমাবেশে এসে নাসিরনগরের নির্বাচন নিয়ে কথা বলেন। তখন এরশাদ বলেছিলেন, ‘বর্তমান নির্বাচন কমিশনের প্রতি আস্থা না থাকলেও জাতীয় পার্টি আগামী সংসদ নির্বাচনে অংশ নিবে।’ দেশের মানুষের আস্থা ফিরিয়ে আনতে তিনি নির্বাচন কমিশনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রশাসক রেজওয়ানুর রহমানের সভাপতিত্বে গতকাল আইন-শৃঙ্খলাবিষয়ক সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ, চট্টগ্রাম বিভাগের অতিরিক্ত কমিশনার (সার্বিক) শংকর রঞ্জন সাহা, বিজিবির কুমিল্লা সেক্টর কমান্ডার কর্নেল মো. জোবায়ের হাসনাত, চট্টগ্রাম রেঞ্জ পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি মোহাম্মদ আবুল ফয়েজ, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান, কুমিল্লার বিভাগীয় নির্বাচন কর্মকর্তা মো. সাহেদুন্নবী চৌধুরী প্রমুখ।


মন্তব্য