kalerkantho


জাফর ইকবাল কেবিনে, নতুন তথ্য দেয়নি হামলাকারী

শাবি ক্ষোভে উত্তাল

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা ও সিলেট    

৮ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



জাফর ইকবাল কেবিনে, নতুন তথ্য দেয়নি হামলাকারী

লেখক ও অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালকে গতকাল বুধবার দুপুরে আইসিইউ থেকে কেবিনে স্থানান্তর করা হয়েছে। অন্যদিকে তাঁর ওপর হামলার ঘটনাটি এখন পর্যন্ত পুলিশই তদন্ত করছে। পাশাপাশি পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিট, সিআইডি, র্যাবসহ বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা ছায়া তদন্ত করছে। তবে হামলাকারী ফয়জুল হাসান ওরফে ফয়জুর ওরফে শফিকুর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকায় পুরোপুরি জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করতে পারছে না পুলিশ।

বর্তমানে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে হামলাকারীর মা-বাবা, ভাইসহ ছয়জন আটক আছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। হামলার ঘটনায় শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এখনো ক্ষোভ-বিক্ষোভে উত্তাল। গতকাল হাজারো কণ্ঠে জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে ন্যক্কারজনক হামলার প্রতিবাদ জানায় শিক্ষার্থীরা। এ ছাড়া শিক্ষকদের গণস্বাক্ষর কর্মসূচি এবং শিক্ষার্থীরা মৌন মিছিল করে।

আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) এক খুদে বার্তায় জানায়, শারীরিক অবস্থার উন্নতি হওয়ায় গতকাল দুপুরের দিকে কেবিনে স্থানান্তর করা হয় জাফর ইকবালকে। তবে তাঁকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়ার বিষয়ে চিকিৎসকরা এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নেননি।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মহানগর পুলিশের জালালাবাদ থানার ওসি শাফিকুল ইসলাম জানান, আটককৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। ঘটনাটির মোটিভ উদ্ঘাটনে বিভিন্ন দিক খতিয়ে দেখা হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, মূল আসামি চিকিৎসাধীন থাকায় তাকে পুরোপুরি জিজ্ঞাসাবাদ করা যাচ্ছে না। যে কারণে নতুন কোনো তথ্যও আপাতত নেই।

তবে নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র জানিয়েছে, হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকলেও হামলাকারী ফয়জুরকে বিভিন্ন সংস্থা হাসপাতালেই জিজ্ঞাসাবাদ করছে। গতকাল বুধবারও গোয়েন্দা সংস্থার লোকজন কয়েক দফা তার সঙ্গে কথা বলেছেন। সূত্র মতে, ফয়জুরের কাছ থেকে উল্লেখযোগ্য কোনো তথ্য এখনো পাওয়া যায়নি।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, হামলাকারী ফয়জুর এখন মোটামুটি সুস্থ। তার শরীরে বাহ্যিক কোনো আঘাতের চিহ্ন নেই। তবে গণপিটুনির কারণে তার শরীরে ব্যথা আছে। দু-এক দিনের মধ্যে তাকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হতে পারে। বিষয়টি নিশ্চিত করে ওসমানী হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার এ কে মাহবুবুল হক গতকাল কালের কণ্ঠকে বলেন, ফয়জুর স্বাভাবিক আছে এবং আগের চেয়ে সুস্থ আছে। তাকে শিগগিরই ছাড়পত্র দেওয়া হবে বলেও তিনি জানান।

এদিকে উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমদ গতকাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির গণস্বাক্ষর কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখোমুখি হন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেতর থেকে হামলাকারীকে সহায়তা করা হয়েছিল কি না—এমন প্রশ্নের জবাবে উপাচার্য বলেন, বিষয়টি নিয়ে তদন্ত হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়ে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তাব্যবস্থা নিশ্চিত করতে ইতিমধ্যে কাজ শুরু হয়েছে জানিয়ে উপাচার্য বলেন, এ জন্য যা যা করা দরকার তাই করা হবে।

গতকাল দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের গোল চত্বরের সামনে বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের উদ্যোগে হাজারো কণ্ঠে জাতীয় সংগীত পরিবেশন করে হামলার প্রতিবাদ জানানো হয়। টানা কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ জোটের উদ্যোগে বিশ্ববিদ্যালয় চলচ্চিত্র প্রদর্শনী ও মাইম প্রদর্শনী, আগামীকাল মৌলবাদবিরোধী আলোচনাসভা এবং ১০ মার্চ মৌলবাদবিরোধী সাইকেল শোভাযাত্রা কর্মসূচি পালন করা হবে।

এদিকে জড়িত চক্রকে শনাক্ত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে শাবি শিক্ষক সমিতি গতকাল থেকে দুই দিনব্যাপী গণস্বাক্ষর ও কালো ব্যাজ ধারণ কর্মসূচি শুরু করেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমদের স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে কর্মসূচি শুরু হয়। কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার ভবনের সামনে টানানো বিশাল সাদা কাপড়ে স্বাক্ষর ও নিজেদের মতামত তুলে ধরে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। কর্মসূচিতে অংশ নেন শাবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক সৈয়দ হাসানুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক সহযোগী অধ্যাপক জহীর উদ্দীন আহমেদ, শাবির কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ইলিয়াস উদ্দিন বিশ্বাস, ছাত্র উপদেশ ও নির্দেশনা পরিচালক অধ্যাপক রাশেদ তালুকদার, অধ্যাপক কবির হোসেন, অধ্যাপক আখতারুল ইসলাম, অধ্যাপক আনোয়ারুল ইসলাম, অধ্যাপক আব্দুল গণি, অধ্যাপক আমিনা পারভীনসহ অন্য শিক্ষকরা।

এর আগে সকালে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে সিএসই, ইইই ও সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থীদের আয়োজনে বের করা হয় প্রতিবাদী মৌন মিছিল। পরে সমাবেশে কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. শহিদুর রহমান বলেন, ড. জাফর ইকবালের ওপর হামলার ঘটনা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে যে কাদা ছোড়াছুড়ি চলছে, তা চলতে থাকলে এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার পাওয়া নিয়ে সংশয় রয়েছে। বরং ঘটনা ভিন্ন খাতে প্রবাহিত হতে পারে।



মন্তব্য