kalerkantho


বৃষ্টিতে স্নিগ্ধ মেলাঙ্গনে ধুন্ধুমার বিকিকিনি

নওশাদ জামিল   

২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



বৃষ্টিতে স্নিগ্ধ মেলাঙ্গনে ধুন্ধুমার বিকিকিনি

একুশে ফেব্রুয়ারির পরই মূলত ধুন্ধুমার বেচাবিক্রি শুরু হয় গ্রন্থমেলায়। আর সেই সময়টাতেই বেরসিক বৃষ্টির হানা। গতকাল সোমবার ভোরের দিকে হালকা বৃষ্টি হয় রাজধানী ও আশপাশ এলাকায়। এতে বেশ কিছু প্রকাশনী ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, ভিজে গেছে তাদের বইপত্র। কয়েকটি স্টলের সামনে দেখা গেল ভেজা বইয়ের স্তূপ। তবে মেলা জমে ওঠার পথে বৃষ্টি বাধা হতে পারেনি। গতকালও ছিল ক্রেতা-দর্শনার্থীর উপচে পড়া উপস্থিতি। বিক্রিবাট্টাও ছিল খুব। সব মিলিয়ে গতকাল ২৬তম দিনে অমর একুশে গ্রন্থমেলা ছিল প্রাণবন্ত, জমজমাট।

মেলাঙ্গন ঘুরে দেখা যায়, ভোরের হালকা বৃষ্টি কিছুটা ছন্দপতন ঘটালেও তা মেলাকে করেছে ধূলিমুক্ত। মেলাঙ্গন হয়ে উঠেছে স্নিগ্ধ। প্রকাশকদের আশা, আজ মঙ্গলবার ও আগামীকাল বুধবার শেষ দিনে মেলাঙ্গনে ব্যাপক ক্রেতার আগমন ঘটবে। বিক্রিটাও হবে সেই অনুপাতে আশাব্যঞ্জক।

মাঠে ত্রিপল বিছিয়ে তার ওপর ভেজা বইগুলো শুকোতে দিয়েছেন বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের বিক্রয় কর্মকর্তা আসিফ রহমান। তিনি বলেন, ‘বৃষ্টিতে তেমন কোনো ক্ষতি হয়নি। সব মিলিয়ে আমাদের স্টলের প্রায় ৫০টির মতো বই ভিজে গেছে শুধু।’

ওদিকে বইমেলার শেষ মুহূর্তে এসে বই কেনার সুযোগটি হাতছাড়া না করতে ছুটে আসছে প্রচুর পাঠক-ক্রেতা। গতকালও পাঠক-ক্রেতারা বই কিনেছে দেদার। সন্ধ্যার দিকে রীতিমতো ছুটির দিনের মতো ঢল নামে গ্রন্থমেলায়। সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ও বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণ ঘুরে দেখা যায় বিপুল মানুষের সমাগম। বেশির ভাগের হাতেই বইয়ের ব্যাগ। প্রকাশকরাও তৃপ্ত। দীর্ঘ হাসি ছড়িয়ে ঐতিহ্যের বিক্রয়কর্মী আমজাদ হোসেন কাজল বলেন, ‘বিক্রি ভালো হয়েছে।’

বরিশাল থেকে বইমেলার টানে ছুটে এসেছিলেন স্বর্ণা আহমেদ। বরিশাল মহিলা কলেজের এই শিক্ষার্থীর সঙ্গে তাঁর ভাই তরুণ কবি ও কথাসাহিত্যিক রাব্বী আহমেদ। স্বর্ণা বলেন, ‘প্রতিবছর বইমেলায় আসি প্রাণের টানেই। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। অনেক বই কিনেছি। কিছু বই উপহারও পেয়েছি।’

পুরান ঢাকার গেণ্ডারিয়া থেকে এসেছিলেন আবদুল কাদির ও তাঁর স্ত্রী মনোয়ারা বেগম। সঙ্গে তিন ছেলে-মেয়ে। আবদুল কাদির বলেন, ‘বইমেলা তো এক অর্থে বৃহৎ সাংস্কৃতিক উৎসব। ছেলে-মেয়েদের জন্য প্রতিবছরই বই কিনি, নিজেদের জন্যও সাধ্যমতো বই কিনে থাকি।’

দুই সন্তানকে সঙ্গে নিয়ে ধানমণ্ডি থেকে মেলায় এসেছিলেন চাকরিজীবী রুবিনা হক। মেলা কেমন লাগছে, বই কিনেছেন কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘সব মিলিয়ে ভালোই লাগছে। বাচ্চাদের জন্য দুটি বই কিনেছি। আরো কিছু বই লিস্ট করা আছে, সেগুলো ঘুরে ঘুরে কিনব।’

প্রতিবার বইমেলার শেষ দিকে পাঠকের ভিড় বাড়তে থাকে। পাল্লা দিয়ে বাড়ে বই বিক্রি। এবারের বইমেলাতেও সেই ধারাবাহিকতা আছে বলে জানান বিভিন্ন প্রকাশনীর প্রকাশক। ইত্যাদি গ্রন্থপ্রকাশের প্রধান নির্বাহী আদিত্য অন্তর বলেন, ‘শেষদিকে এসে মেলায় ক্রেতা-পাঠকের আগমন বেড়েছে। একই সঙ্গে বেড়েছে বিক্রিও।’

গতকাল মেলায় নতুন বই এসেছে ১১৭টি। তার মধ্যে প্রকাশিত চারটি বইয়ের তথ্য-পরিচিতি তুলে ধরা হলো।

অবিস্মৃত স্মৃতি : প্রয়াত কথাসাহিত্যিক শওকত আলীর আত্মকথা। বইটিতে লেখক তুলে ধরেছেন ব্যক্তিজীবন ও শিল্পের সঙ্গে নিজের সংযোগ। পাশাপাশি তুলে ধরেছেন তাঁর জীবন ও কর্মের আলেখ্য। বইটি প্রকাশ করেছে ইত্যাদি গ্রন্থপ্রকাশ। দাম ৩০০ টাকা।

যখন ভাঙল দুয়ার : কথাসাহিত্যিক পূরবী বসুর নিবন্ধ। নারী জাগরণ ও নারীর সংগ্রামের নানা দিক নিয়ে গ্রন্থটি রচিত। তাতে চমৎকারভাবে ফুটে উঠেছে নারীর সংগ্রাম ও ইতিহাসের ইতিবৃত্ত। বইটি প্রকাশ করেছে পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স। দাম ৪১০ টাকা।

গ্রিক পুরাণের গল্প : কথাসাহিত্যিক অদিতি ফাল্গুনীর গ্রন্থ। বইটি সহজ ও প্রাঞ্জল ভাষায় শিশু-কিশোরদের জন্য লেখা। এতে উঠে এসেছে প্রাচীন গ্রিকের অধিবাসীদের নানা আচার-ব্রত, পূজা-পার্বণ, বিশ্বাসসহ পুরাণের নানা কিছু। বইটি প্রকাশ করেছে সংবেদ। দাম ৩০০ টাকা।

দ্বিখণ্ডিত : হাসান তারেক চৌধুরীর প্যারাসাইকোলজি গ্রন্থ। মানুষের মনোজগত সম্পর্কে লেখকের অনুসন্ধিৎসা দীর্ঘদিনের। তার সূত্র ধরেই লিখেছেন সায়েন্স ফিকশন ধারার এই গ্রন্থ। তাতে উঠে এসেছে মানব মস্তিষ্কের নানা জটিল চিন্তা ও কল্পনার অভিনব সমাহার। বইটি প্রকাশ করেছে ভাষাচিত্র। দাম ১৫০ টাকা।

অন্যান্য নতুন বই : সাজ্জাদ আলম খানের ‘অর্থশাস্ত্র নয় সামাজিক অর্থনীতি’ (র‌্যামন পাবলিশার্স), আহসান হাবীবের ‘বিভ্রম’ (তাম্রলিপি), আহমেদ বাসারের ‘নির্বাচিত প্রথম দশক’ (অনিন্দ্য প্রকাশ), সৈয়দ ইকবালের ‘নতুন মুক্তিযোদ্ধা রোদসী’ (দ্য রয়েল পাবলিশার্স),  জফির সেতুর ‘নির্বাচিত কবিতা’ (বেহুলা বাংলা), শিহাব শাহরিয়ারের ‘রাত পৌনে চারটা’, কাদের মাহমুদের ‘শ্লীল-অশ্লীল অভিধান’ ও পীর হাবিবুর রহমানের ‘জেনারেলের কালো সুন্দরী’ (অন্যপ্রকাশ), রেজাউর রহমান রিজভীর ‘গীতি কবিতা আমার গানের খাতা’ (দোয়েল), বুলবুল সরওয়ারের ‘মহাভারতের পথে’ (ঐতিহ্য), মাসুদ খানের ‘প্রসন্ন দ্বীপদেশ’ (পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স) ইত্যাদি।  

মূল মঞ্চের আয়োজন : গতকাল বিকেল ৪টায় গ্রন্থমেলার মূল মঞ্চে ছিল ‘বিজয় সরকার’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন শাহিদা খাতুন। আলোচনায় অংশ নেন মো. শাহিনুর রহমান, স্বরোচিষ সরকার ও আকরাম শাহীদ চুন্নু। সভাপতিত্ব করেন অধ্যাপক আবুল আহসান চৌধুরী।

সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে ছিল স্বপন গুহের পরিচালনায় সাংস্কৃতিক সংগঠন ‘রূপান্তর’-এর পরিবেশনা।

দশ প্রকাশনীকে একাডেমির সতর্ক বার্তা : মেলার নীতিমালা ভঙ্গের অভিযোগে গতকাল সোমবার দশ প্রকাশনীকে কারণ দর্শানোর চিঠি দিয়েছে আয়োজক বাংলা একাডেমি। নীতিমালা ভঙ্গের অভিযোগে চিঠিপ্রাপ্ত প্রকাশনীগুলো হলো- আলীগড় লাইব্রেরি, দোয়েল, ঘাষফড়িং, চলন্তিকা বইঘর, হলি পাবলিকেশন্স, সুপ্ত পাবলিকেশন্স, লাবনী, চিরন্তন প্রকাশ, সিসিবি ফাউন্ডেশন ও রাবেয়া বুক হাউজ।



মন্তব্য