kalerkantho


বকেয়া রাজস্ব আদায়ে রবির হিসাব জব্দ

এটা কর ফাঁকি নয় শুনানিরও সুযোগ দেওয়া হয়নি : রবি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



বকেয়া রাজস্ব আদায়ে রবির হিসাব জব্দ

ফাইল ছবি

মোবাইল ফোন অপারেটরদের কাছ থেকে বকেয়া রাজস্ব আদায়ে কঠোর অবস্থান নিয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। গতকাল সোমবার প্রায় ১৯ কোটি টাকার বকেয়া রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যে মোবাইল ফোন অপারেটর রবি আজিয়াটা লিমিটেডের ব্যাংক হিসাব তিন দিনের জন্য অপরিচালনযোগ্য বা জব্দ করা হয়েছে। এরই মধ্যে সিটিসেলের ব্যাংক হিসাব জব্দ করা হয়েছে। স্থান ও স্থাপনা খাতে বকেয়া রাজস্ব পরিশোধ না করলে বেসরকারি অন্য মোবাইল ফোন অপারেটরদের ব্যাংক হিসাবও জব্দ করা হতে পারে। এনবিআর সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

এনবিআরের আওতাধীন বৃহৎ করদাতা ইউনিট (এলটিইউ) মূল্য সংযোজন কর (মূসক) শাখার কমিশনার মতিউর রহমান স্বাক্ষরিত একটি চিঠি গতকাল সব ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বরাবর পাঠানো হয়েছে। এতে রবি আজিয়াটা লিমিটেডের ব্যাংক হিসাব তিন দিনের জন্য অপরিচালনযোগ্য বা জব্দ করতে বলা হয়েছে।

চিঠিতে উল্লেখ রয়েছে, ‘রবি আজিয়াটা লিমিটেড ২০১৭ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত চার মাসে ১০ কোটি ৩৫ লাখ ২৬ হাজার ৯৫ টাকার অপরিশোধিত সম্পূরক শুল্ক, ছয় কোটি ৭৪ লাখ ৮৩ হাজার ৭৬১ টাকার স্থান ও স্থাপনা ভাড়ার ওপর অপরিশোধিত মূসক, ৮১ লাখ ছয় হাজার ২০২ টাকা ৬৫ পয়সা সিমের ওপর কম প্রদর্শিত সম্পূরক শুল্ক ও মূসক এবং বিটিসিএলকে প্রদত্ত সেবার ওপর প্রযোজ্য অপরিশোধিত মূসক বাবদ ৮১ লাখ ৭১ হাজার ৯৭৪ টাকাসহ মোট ১৮ কোটি ৭২ লাখ ৮৮ হাজার ৩২ টাকা ৭০ পয়সার রাজস্ব ফাঁকি দিয়েছে।’ চিঠিতে আরো বলা হয়, ‘মূল্য সংযোজন কর আইন, ১৯৯১-এর ধারা ২৬-এর উপধারা ৪ অনুযায়ী রবি আজিয়াটা লিমিটেডের এই ফাঁকি দেওয়া রাজস্ব আদায়ে ব্যবস্থা নিতে প্রতিষ্ঠানটির ব্যাংক হিসাব আগামী তিন কার্যদিবসের জন্য জব্দ করতে সব ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালককে অনুরোধ করা হলো।’

এ বিষয়ে এলটিইউয়ের কমিশনার মতিউর রহমান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বারবার তাগাদা দেওয়ার পরও বকেয়া রাজস্ব জমা না দেওয়ায় রবির ব্যাংক হিসাব তিন দিনের জন্য জব্দ করা হয়েছে। এই সময়ের মধ্যে বকেয়া রাজস্ব পরিশোধ না করলে আরো কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ এই কর্মকর্তা আরো বলেন, ‘তাগাদা দেওয়ায় সরকারি মোবাইল ফোন অপারেটর টেলিটক বকেয়া রাজস্ব পরিশোধ করেছে। সিটিসেলের ব্যাংক হিসাব জব্দ করা হয়েছে। স্থান ও স্থাপনা খাতে পাওনা ভ্যাট জমা না দিলে অন্য মোবাইল ফোন অপারেটরদেরও ব্যাংক হিসাব জব্দ করতে বাধ্য হব।’

এ বিষয়ে মোবাইল ফোন অপারেটর রবির ভাইস প্রেসিডেন্ট ইকরাম কবীর বলেন, “এটি কর ফাঁকি নয়। এনবিআরের সঙ্গে আমাদের দীর্ঘদিনের চলমান বিতর্ক। এ বিষয়ে আমাদের কাছে পাঠানো চিঠিতে উল্লিখিত মূল্য সংযোজন কর আইনের ধারা ২৬খ-এর উপধারা ৫-এ বলা হয়েছে, ‘এই ধারার বিধান কার্যকর করার ক্ষেত্রে করদাতার অনুকূলে শুনানির সুযোগদান সংক্রান্ত আইনের অন্যান্য বিধান অনুসরণ করতে হবে।’ অত্যন্ত দুঃখজনক ঘটনা যে আমরা এ ক্ষেত্রে কোনো শুনানির সুযোগ পাইনি। লক্ষণীয় যে এই চিঠিতে এমন কিছু বিষয়ের অবতারণা করা হয়েছে, যা মাননীয় আদালতে বিচারাধীন।”



মন্তব্য