kalerkantho


ড. মাহাবুবুর রহমান

নবীনদের ভাবনা ও ভাষায় বৈচিত্র্য আসছে

তৌফিক মারুফ   

২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



নবীনদের ভাবনা ও ভাষায় বৈচিত্র্য আসছে

 কিছু ত্রুটি-বিচ্যুতির পরও নবীনদের মধ্যে ভাবনা ও ভাষা প্রকাশে বৈচিত্র্য আসছে। এই ধারাটি প্রসারিত করছে আগামীর সম্ভাবনার পথ। এটিকে অমর একুশে গ্রন্থমেলার অর্জন হিসেবে দেখা শ্রেয়। শুধুই সমালোচনা, কঠোর চোখে না দেখে নবীনদের সাহিত্যের প্রতি ইতিবাচক

মনোভাব প্রদর্শন প্রয়োজন। গতকাল বুধবার ভাষা দিবসে বাংলা একাডেমির বইমেলায় কালের কণ্ঠকে কথাগুলো বলছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. মাহাবুবুর রহমান।

উদাহরণ টেনে ড. মাহাবুব বলেন, “এই যে দেখছেন একজন নবীন লেখক ‘মানুষ ও মাছির ভালবাসা’ নিয়ে বই লিখেছেন, এটিকে পাঠক হিসেবে আমি এড়িয়ে যেতে পারি না। মানুষ ও মাছির মনস্তত্ত্ব নিয়ে ভেবেছেন লেখক, সেই ভাবনাগুলো বই আকারে প্রকাশ করেছেন, এটা তো অত্যন্ত সাহসের কথা। অত্যন্ত পরিশ্রমের কাজ। এখন দেখতে হবে প্রকাশনা সংস্থা ও সম্পাদক গ্রন্থটিকে কতটা ত্রুটি-বিচ্যুতিমুক্ত করে পাঠকের হাতে তুলে দিতে পেরেছেন। যাঁরা সম্পাদনা করেন তাঁদের কিন্তু এ ক্ষেত্রে অনেক দায় রয়েছে। নবীন লেখকদের লেখা পাঠযোগ্য হচ্ছে না, মানসম্পন্ন হচ্ছে না বলে তাঁদের অবহেলা করলে ভুল হবে।”

তিনি আরো বলেন, বোদ্ধা পাঠক বলতে যাঁদের বোঝায়, তারা অনেক বিষয়ে লেখকদের চেয়ে বেশি জ্ঞান রাখেন। কিন্তু সব ভালো পাঠক লেখক হবেন এমনটা নয়। একজন ভালো পাঠক বইয়ের মূল বিচারক। তাঁরা টের পান কোনটি ভালো বই আর কোনটি মন্দ। ফলে লেখক-প্রকাশকদের মূল্যায়ন করতে হবে পাঠকদের। একটি গ্রন্থ প্রকাশ করলেই পাঠক সেটি লুফে নেবে—এমন ভাবনা ঠিক নয়।

মেলা আয়োজনের প্রসঙ্গ টেনে ড. মাহাবুব বলেন, এই যে একুশের টানে শিশু কোলে মা-বাবা, বৃদ্ধ-বৃদ্ধা, তরুণ-তরুণী, প্রেমিক-প্রেমিকা, বন্ধুবান্ধব মিলে মেলায় মিলিত হচ্ছে, তাদের সবাই হয়তো বই কিনছে না, কিন্তু এটা তো ঠিক, মেলার উদ্দেশ্যেই তারা এখানে এসেছে। এর মানে দাঁড়াচ্ছে, মেলা নিয়ে মানুষের উৎসাহ ও উদ্দীপনা আছে। বৈচিত্র্যময় গ্রন্থ প্রকাশ করে এই মানুষগুলোকে গ্রন্থের প্রতি আগ্রহী করে তুলতে হবে।

তিনি বলেন, যানজট ঠেলে বইমেলায় পৌঁছে সব ক্লান্তি দূর হয়ে যায়। এখানে অন্য রকম এক ভালো লাগা আছে। এত বই একসঙ্গে দেখতে পাওয়াটা বিশাল ব্যাপার। কত নামের স্টল কত রূপে সাজানো হয়েছে। ভাষার জন্য যাঁরা প্রাণ দিয়েছেন তাঁদের আত্মত্যাগের প্রতি শ্রদ্ধাবোধও মিশে আছে এই মেলার পরতে পরতে। ভাষা আন্দোলন, ভাষাশহীদ, মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধা, মহান স্বাধীনতা—এ বিষয়গুলো নিয়ে কত বই! এসব মোটেও কম কথা নয়। বিষয়-বৈচিত্র্যে বইয়ের ধরনও পাল্টে যাচ্ছে।

 

 

 


মন্তব্য