kalerkantho


বইকে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে ছড়িয়ে দিতে হয়

বদিউর রহমান

তৌফিক মারুফ   

২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



বইকে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে ছড়িয়ে দিতে হয়

‘বই, শিল্প, সাহিত্য একা ধারণ করা যায় না। এটাকে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মের মাঝে ছড়িয়ে দিতে হয়। বইকে প্রজন্মের হাতে তুলে দিতে হয়। তাই তো আমি একা বইমেলায় আসিনি। সঙ্গে কন্যা ও নাতিকেও নিয়ে এসেছি—তিন প্রজন্ম এক হয়ে। সবাই যদি পারিবারিকভাবে বইয়ের সঙ্গে বসবাসের চর্চা করতে পারে তবে সেটাই হবে নতুন প্রজন্মের জন্য বড় পাওয়া।’

প্রগতিশীল আন্দোলনের সংগঠক, উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর কেন্দ্রীয় সহসভাপতি অধ্যাপক বদিউর রহমান গতকাল মঙ্গলবার অমর একুশে গ্রন্থমেলায় এসে এভাবেই কালের কণ্ঠ’র কাছে নিজের অভিমত তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ‘এ বছরের মেলা আগের চেয়ে অনেক সুশৃঙ্খল বলেই মনে হচ্ছে। মানুষের ঢল তো দেখছি প্রতিদিনই বাড়ছে। এই যে এত মানুষ আসছে, তাদের জন্য প্রকাশকরা কতটা মানসম্পন্ন বই নিয়ে আসতে পারছে সেটাই বড় কথা। প্রকাশকদের উচিত ঝাঁকে ঝাঁকে বই না ছাপিয়ে বরং মানের দিকে বেশি নজর দেওয়া। বেছে বেছে বই প্রকাশ করতে পারলে পাঠক অনেক বেশি লাভবান হবে।’

বদিউর রহমান বলেন, ‘বইমেলার সুবাদে ইদানীং এক শ্রেণির মৌসুমি প্রকাশনা সংস্থা গড়ে উঠেছে। তারা সারা বছর তেমন কোনো কাজ করে না। শুধু মেলা উপলক্ষে নতুন লেখক তৈরির নামে কেউ কেউ লেখকের কাছ থেকে কৌশলে আগাম টাকা নিয়ে বই ছাপিয়ে বাণিজ্য করছে। এমনটা হতে থাকলে মানের বিষয়টি উপেক্ষিত তো হবেই। এ ছাড়া অনেক প্রকাশনা সংস্থা পাঠকের কাছ থেকে ঠিকমতো টাকা আদায় করলেও লেখকদের রয়ালটি দেওয়ার ক্ষেত্রে অনীহা দেখায় বলে শুনে থাকি। তারা স্বচ্ছতার ধার ধারে না।’

লেখক, গবেষক ও অনুবাদক বদিউর রহমান বলেন, ‘প্রকাশকদেরও অনুবাদের বইয়ের দিকে বেশি করে গুরুত্ব দেওয়া উচিত। তাহলে বিশ্বসাহিত্য সম্পর্কে জ্ঞানের পরিধি বাড়বে। সে সঙ্গে সাহিত্য তত্ত্ব সম্পর্কে নতুন প্রজন্মকে জানানো উচিত।’



মন্তব্য