kalerkantho


দুয়ার খুলছে আজ একুশের সকালেই

নওশাদ জামিল   

২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



দুয়ার খুলছে আজ একুশের সকালেই

অমর একুশে গ্রন্থমেলায় এক বিদেশি অতিথিকে সঙ্গে নিয়ে হাঁটছিলেন বরেণ্য কথাসাহিত্যিক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম। পাশে দাঁড়াতেই শোনা গেল, মাসব্যাপী এই আয়োজনের তাৎপর্য ও অন্যান্য প্রসঙ্গে তিনি অতিথিকে জানাচ্ছেন। অবাক অতিথির মুখ থেকে বারবার উচ্চারিত হচ্ছিল ‘দ্যাটস গ্রেট’ শব্দদ্বয়!

ভাষা ও সাহিত্যে বিশেষ অবদানের জন্য গতকাল মঙ্গলবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে একুশে পদক গ্রহণ করেন সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম। বিকেলে আসেন মেলা প্রাঙ্গণে। কথা প্রসঙ্গে তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘পৃথিবীর ইতিহাসে বই নিয়ে মাসব্যাপী এমন আয়োজন সত্যিই অভাবনীয় ঘটনা। অনেক দেশেই আমি বইমেলা দেখেছি, কিন্তু আমাদের গ্রন্থমেলা সত্যিই অনন্য।’

মায়ের ভাষার অধিকার আদায়ে বাঙালির রক্তভেজা ঐতিহাসিক দিনটি বছর ঘুরে আবার এসেছে। ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি/আমি কি ভুলিতে পারি’—বাংলার আকাশে বাতাসে আজ বুধবার ধ্বনিত হবে এই গান। আজ অমর একুশে ফেব্রুয়ারি, মহান ভাষাশহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। শিমুলের ডালে আজ ফুটবে যে ফুল, পলাশ ছড়াবে যে মৌতাত, শহর-গ্রাম থেকে হাট-মাঠ-বন্দরে উচ্চারিত হবে যে সুর—সবখানেই থাকবে মায়ের মুখের মধুর ভাষার প্রতি মমত্ববোধ, অপরিমেয় ভালোবাসা। শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধায় নত হবে মাথা। সেই একুশের চেতনাকে ধারণ করেই অমর একুশে গ্রন্থমেলা।

গ্রন্থমেলায় আজ মেলাজুড়ে অনুভূত হবে রক্তরাঙা একুশের আবহ। ফেব্রুয়ারিজুড়ে বইমেলা হলেও এই একটি দিনের আশায় থাকে বাঙালি। সেই সঙ্গে প্রকাশকরাও। বইমেলায় ক্রেতা-দর্শনার্থীর পোশাক থেকে শুরু করে বই কেনার তালিকা, শরীরে আঁকা আলপনা, মেলা মাঠের সাজসজ্জা—সবখানেই আজ থাকবে একুশের ছাপ। ভাষাশহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে আজ নগরীজুড়ে থাকবে বাঙালির সরব পদচারণ। সবার গন্তব্য থাকবে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার। সেখান থেকে জনমানুষের এই ঢলের উল্লেখযোগ্য অংশ আছড়ে পড়বে একুশের বইমেলায়। আজ মেলার দ্বার উন্মোচন হচ্ছে সকাল ৮টায়। বন্ধ হবে রাত ৯টায়। প্রকাশকরা আশা করছেন, আজ সারা দিনই মেলায় থাকবে জনজোয়ার।

গতকাল মঙ্গলবার মেলার দ্বার খোলে যথারীতি বিকেল ৩টায়। শুরুতে ঢিলেঢালা ভাব থাকলেও সন্ধ্যার পর মেলা জমে ওঠে। বিক্রিবাট্টাও ছিল বেশ।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেবেন অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান। সভাপতিত্ব করবেন একাডেমির সভাপতি ইমেরিটাস অধ্যাপক আনিসুজ্জামান।

সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ পুরস্কার ঘোষণা : বাংলা একাডেমি পরিচালিত ‘সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ পুরস্কার-২০১৭’ ঘোষণা করা হয়েছে গতকাল। পুরস্কার পেয়েছেন কানাডাপ্রবাসী কবি মাসুদ খান এবং যুক্তরাজ্যপ্রবাসী কবি মুজিব ইরম। আগামীকাল বৃহস্পতিবার বাংলা একাডেমি আয়োজিত আন্তর্জাতিক সাহিত্য সম্মেলনে আনুষ্ঠানিকভাবে এই পুরস্কার প্রদান করা হবে।

মেলার বিশতম দিনে গতকাল প্রকাশিত হয়েছে ১২৪টি বই। এর মধ্যে চারটির তথ্য-পরিচিতি তুলে ধরা হলো।

নদী কারো নয় : সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হক বিরচিত উপন্যাসগ্রন্থ। লেখকের জাদুবিস্তারী ভাষায় বইটিতে উঠে এসেছে দেশভাগ ও দেশভাগজনিত কারণে একটি নদীর দ্বিখণ্ডিত হওয়া। নদীটির নাম ‘আধকোশা’। লেখকের জন্মস্থান কুড়িগ্রামের পটভূমিতে লেখা এই উপন্যাস। এতে দেশভাগের কারণে উদ্বাস্তু হয়ে হারিয়ে যায় লেখকের দুই বাল্যবন্ধু, ভাগ হয়ে যায় নদী ও নদীপারের জীবন। বইটির প্রকাশক অন্যপ্রকাশ। প্রচ্ছদ করেছেন ধ্রুব এষ। দাম ৬০০ টাকা।

রঙ্গরসের গল্পসমগ্র : বইটির লেখক শামসুজ্জামান খান। বইটিতে উঠে এসেছে লোকসাহিত্যের ভিত্তিতে গড়ে ওঠা নানা রঙ্গরসের গল্প। গ্রামবাংলা, নগর ও ঢাকাইয়া পটভূমিতে গল্পের বিস্তার। এতে পাওয়া যাবে বাঙালির স্বকীয় জীবনবোধসঞ্জাত নানা রসবোধ, বিদ্রুপ, শ্লেষ ও কৌতুকের নানা উপভোগ্য সাহিত্যসামগ্রী। বইটি প্রকাশ করেছে পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স। প্রচ্ছদ করেছেন ধ্রুব এষ। দাম ৪৫০ টাকা।

বাবর আজমের উপন্যাস : লেখক কথাসাহিত্যিক মঈনুল আহসান সাবের। অত্যন্ত মনকাড়া ভাষায় উপন্যাসে তুলে ধরা হয়েছে এক তরুণ লেখকের উপন্যাস লেখার নানামাত্রিক কাহিনি। তরুণ লেখক বুঝতে পারেন না উপন্যাসটি কিভাবে শুরু করবেন, কী বিষয় নিয়ে লিখবেন। ভাবনার খেলা চলে তাঁর মনে। নগর পটভূমিতে এগিয়ে চলে উপন্যাসও। বইটির প্রকাশক পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স। প্রচ্ছদ করেছেন ধ্রুব এষ। দাম ২৭০ টাকা।

নীলগিরিতে চার গোয়েন্দা : গোয়েন্দা উপন্যাসটির লেখক কথাসাহিত্যিক মোস্তফা কামাল। লেখক ইতিমধ্যে রহস্য ও গোয়েন্দা উপন্যাস লিখে অর্জন করেছেন খ্যাতি। পেয়েছেন বিপুল পাঠকের ভালোবাসা। ঝরঝরে ভাষায় লেখক উপন্যাসে তুলে ধরেছেন রোমাঞ্চকর কাহিনি। এতে দেখা যায়, জনপ্রিয় গোয়েন্দা ফটকু মামাকে নিয়ে চার কিশোর ছুটে যায় বান্দরবানে, পাহাড়ের ভেতর লুকিয়ে থাকা এক প্রাসাদের সন্ধানে। গোয়েন্দাদের সেই অভিযানে ঘটে শিহরণ জাগানিয়া নানা ঘটনা। বইটি প্রকাশ করেছে অন্যপ্রকাশ। প্রচ্ছদ এঁকেছেন ধ্রুব এষ। দাম ১৫০ টাকা।


মন্তব্য