kalerkantho


প্রধান বিচারপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে সিইসি

খালেদার নির্বাচন করা প্রশ্নে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা মানব

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



খালেদার নির্বাচন করা প্রশ্নে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা মানব

সিইসি কে এম নুরুল হুদা

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া সাজাপ্রাপ্ত। তিনি এখন যে অবস্থায় আছেন, সে অবস্থায় তিনি নির্বাচন করতে পারবেন না। তবে তিনি উচ্চ আদালতে গেলে আদালত যে নির্দেশনা দেবেন সে অনুযায়ী নির্বাচন কমিশন (ইসি) সিদ্ধান্ত নেবে। সিইসি বলেন, ‘আমি আশা করি, সব সমস্যার সমাধান করে খালেদা জিয়া নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন।’

প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ শেষে বের হয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সিইসি কে এম নুরুল হুদা এসব কথা বলেন। গতকাল সোমবার দুপুর ২টা ১০ মিনিট থেকে ২টা ৩৫ মিনিট পর্যন্ত সুপ্রিম কোর্টে প্রধান বিচারপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন সিইসি। সেখান থেকে চলে যাওয়ার সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তর দেন।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, এটা ছিল সৌজন্য সাক্ষাৎ। এখানে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মামলা নিয়ে কোনো কথা হয়নি। তিনি বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন একটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান। প্রধান বিচারপতি সংবিধানের প্রথম স্থানের একজন ব্যক্তি। সে হিসেবে ওনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে এলাম। এ সাক্ষাতে আমরা বলেছি, নির্বাচনের সময় আমরা আপনাদের কাছ থেকে সহযোগিতা পেয়ে থাকি।’  

খালেদা জিয়া নির্বাচন করতে পারবেন কি না—এমন প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, ‘আমি তো একজন ছোটখাটো বিচারক ছিলাম। সামান্য জ্ঞানে যেটা মনে হয়, এখন যে অবস্থায় আছেন, তিনি সাজাপ্রাপ্ত। তাই তিনি নির্বাচন করতে পারবেন না। তবে তিনি (খালেদা জিয়া) উচ্চ আদালতে গেলে আদালত যে রকম নির্দেশ দেবেন সে রকম সিদ্ধান্তই হবে।’ সিইসি বলেন, ‘এ বিষয়ে দুটি মত রয়েছে। একটি মত হলো, মামলা বিচারাধীন থাকাকালে নির্বাচন করতে পারবেন। আরেকটি মত হলো নির্বাচন করতে পারবেন না। সে ক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশন কী সিদ্ধান্ত নেবে? এসব ক্ষেত্রে উচ্চ আদালতের নির্দেশের ওপর নির্ভর করে আমাদের কাজ করতে হয়।’

তাহলে খালেদা জিয়ার নির্বাচন করা নিয়ে উচ্চ আদালতের দিকে তাকিয়ে থাকবে ইসি—প্রশ্নের জবাবে সিইসি হ্যাঁ-সূচক জবাব দিয়ে বলেন, ‘খালেদা জিয়া যদি আপিল করেন তাহলে এক রকম পরিস্থিতির সৃষ্টি হবে। তবে এখনো তিনি আপিল করেননি। তার অর্থ হলো, তিনি সাজাপ্রাপ্ত অবস্থায় আছেন। এ অবস্থায় তিনি নির্বাচন করতে পারবেন না। এরপর উচ্চ আদালতে গেলে যে রকম নির্দেশনা আসবে, তার ওপর নির্ভর করে আমাদের সিদ্ধান্ত হবে।’

আপনি এর আগে বলেছিলেন যে বিএনপি নির্বাচনে না এলে সেটা অংশগ্রহণমূলক হবে না। এখন যদি এ রকম হয় যে খালেদা জিয়া নির্বাচন করতে পারছেন না, তাহলে সে ক্ষেত্রে কী করবেন—প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, ‘নির্বাচন অনেক দূরে। এত দূরের অবস্থা এখন বলা যাবে না। কী অবস্থা হবে তা বলা কঠিন। প্রক্রিয়া অনুযায়ী হাইকোর্ট ও আপিল বিভাগ আছে। এরপর আমরা আছি। আশা করি, সকল সমস্যার সমাধান করে খালেদা জিয়া নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন। এটা আমার প্রত্যাশা। এখন এ বিষয়ে আদালত যে নির্দেশনা দেবেন, সেটা তো আমাদের মানতে হবে।’

উচ্চ আদালতে নির্বাচন কমিশনের অনেক মামলা বিচারাধীন। এ অবস্থায় মামলার বিবাদী হিসেবে আপনি প্রধান বিচারপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে পারেন কি না প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, ‘না, না। এখানে এসে দেখা করা যায় না। তবে আমরা যেসব মামলার মুখোমুখি হই, সেগুলো তো আদালতের মাধ্যমে হয়। আমাদের আইনজীবী আছে।’



মন্তব্য